বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় বন্ধ পাটকল চালুর নীতিতে প্রধানমন্ত্রীর সায় – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় বন্ধ পাটকল চালুর নীতিতে প্রধানমন্ত্রীর সায়

প্রকাশিত: ৭:০১ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ২৮, ২০২১

বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় বন্ধ পাটকল চালুর নীতিতে প্রধানমন্ত্রীর সায়

অনলাইন ডেস্ক :

বন্ধ ঘোষিত পাটকলগুলো লিজের মাধ্যমে বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় চালুর মৌলনীতিতে সায় দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ররিবার (২৮ ফেব্রুয়ারি) সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির বৈঠকে মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে এ তথ্য জানানো হয়েছে। কমিটির সভাপতি মো. মুজিবুল হকের সভাপতিত্বে সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত বৈঠকে কমিটির সদস্য শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী মন্নুজান সুফিয়ান, শাজাহান খান, মো. নজরুল ইসলাম চৌধুরী এবং শামসুন নাহার অংশগ্রহণ করেন। প্রসঙ্গত,কমিটি তার আগের বৈঠকে বন্ধ হওয়া পাটকলগুলো পুনরায় চালু করার সুপারিশ করেছিল। ওই সুপারিশের অগ্রগতি অবহিত করতে গিয়ে কমিটিকে মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, বাংলাদেশ পাটকল করপোরেশন -বিজেএমসি’র নিয়ন্ত্রণাধীন বন্ধ ঘোষিত পাটকলগুলোর উৎপাদন কার্যক্রম বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় পুনরায় চালু করার উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। মিল চালুর জন্য লিজ বা ইজারা দেওয়ার ক্ষেত্রে অনুসরণীয় মৌলনীতি ও কর্মপরিকল্পনায় প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দিয়েছেন। এর কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে। মিলগুলো চালু করা সম্ভব হলে অবসায়নকৃত শ্রমিকদের মধ্যে অভিজ্ঞ ও দক্ষ শ্রমিকরা অগ্রাধিকার ভিত্তিতে কাজ করার সুযোগ পাবেন বলে মন্ত্রণালয়ের প্রতিবেদনে আশা প্রকাশ করা হয়। এদিকে কারাখানা পরিকর্শক অধিদফতরের দুই জন কর্মকর্তা অস্থিতিশীল পরিস্থিতি তৈরির জন্য কাজ করছেন— শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের এমন একটি চিঠিতে সাবেক নৌপরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খানকে জড়ানো হয়েছে বলে কমিটির আগের বৈঠকে যে অভিযোগ তোলা হয়েছে, তা সত্য নয় বলে দাবি করা হয়েছে। এ বিষয়ে রবিবারের বৈঠকের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে— গাজীপুরে ওয়াসিফ নিট কম্টোজিট লিমিটেডের মালিক বেআইনিভাবে কারখানা বন্ধ এবং বকেয়া পরিশোধ না করা নিয়ে শ্রমিক অসন্তোষ দেখা দেয়। তা নিরসনে ২৭ মে ২১০৯ সংসদ ভবনের এমপি হোস্টেলে মালিক-শ্রমিক নেতা এবং কারখানা ও প্রতিষ্ঠান অধিদফতরের কর্মকতাদের সঙ্গে সংসদ সদস্য শাজাহান খানের বৈঠক হয়। ওই বৈঠকে কর্তৃপক্ষের অনুমতিতে শ্রম পরিদর্শক উজ্জল দেব ও জালাল খান উপস্থিত ছিলেন। ওইদিন একই সময়ে এমপি শাজাহান খানের চেম্বারে শেখ আসাদুজ্জামান সহকারী মহাপরিদর্শক, কলকারাখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদফতর, প্রধান কার্যালয় ঢাকা এবং জাকির হোসেন, সহকারী মহাপরিদর্শক, জেলা কার্যালয়, পাবনা কর্তৃপক্ষের অনুমতি ব্যতিরেকে উপস্থিত ছিলেন। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়া কর্মস্থল ত্যাগ করে কোনও সভায় যোগদান করার জন্য তাদের কর্মকাণ্ড অসদাচরণ প্রতীয়মান হওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা রুজু করা হয়েছে। এ মামলা বিচারাধীন রয়েছে। অস্থিতিশীল পরিস্থিতি তৈরির বিষয়ে মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে প্রদত্ত চিঠিতে শাজাহান খানকে কোনোভাবেই সংশ্লিষ্ট করা হয়নি বলে প্রতিবেদনে দাবি করা হয়। এ বিষয়ে সংসদ সচিবালয়ের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, বৈঠকে কমিটির সদস্য শাজাহান খানের অফিসে কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদফতরের দুই জন কর্মকর্তা কর্তৃক অস্থিতিশীল পরিস্থিতি তৈরির জন্য কাজ করেছেন মর্মে মন্ত্রণালয় থেকে একটি প্রতিবেদন দাখিল করায় শাজাহান খান অসন্তোষ প্রকাশ করেন। পরে কমিটির সদস্য শাসমুন নাহারকে ওই প্রতিবেদনটি পুনরায় তদন্ত করার জন্য কমিটি দায়িত্ব দেয়। বৈঠকে শ্রমিকদের পাওনাদি দ্রুত পরিশোধের লক্ষ্যে শ্রমিকদের করা অনিষ্পন্ন মামলাগুলো দ্রুত নিষ্পত্তি করতে সুপারিশ করা হয়