ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ভাংচুর কালে গণপিটুনীতে আহত হয়েছিল ছাত্রলীগ কর্মীরা: ছাত্রদল – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ভাংচুর কালে গণপিটুনীতে আহত হয়েছিল ছাত্রলীগ কর্মীরা: ছাত্রদল

প্রকাশিত: ১:৪৯ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২৩, ২০১৬

ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ভাংচুর কালে গণপিটুনীতে আহত হয়েছিল ছাত্রলীগ কর্মীরা: ছাত্রদল

amadrrtyuiopp২৩ অক্টোবর ২০১৬, রবিবার: সিলেট জেলা ছাত্রদলের সাবেক সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক শাকিল মুর্শেদ, মহানগর ছাত্রদলের সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক কাওসার মাহমুদ সুমন ও তানভীর আহমদ চৌধুরী সহ ছাত্রদল নেতা কর্মীদের উপর মিথ্যা মামলা ও তাদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ছাত্রলীগ সন্ত্রাসীদের ভাংচুর ও হামলার প্রতিবাদ জানিয়েছেন মহানগর ছাত্রদলের সহ-সভাপতি ফরহাদ হোসেন রিপন, জেলা ছাত্রদলের সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক সাইফুল ইসলাম, সহ-ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক লিটন আহমদ সাগর, সিনিয়র সদস্য শেখ লিমনুজ্জামান লিমন, মাহফুজুল করিম শিপলু, মদন মোহন বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ ছাত্রদল নেতা আশিকুর রহমান তারেক, যুবদল নেতা জাকির হোসেন, আতিকুর রহমান পারভেজ, সাহাবুদ্দিন সাবু প্রমুখ।

এক বিবৃবিতে নেতৃবৃন্দ বলেন, ছাত্রলীগের সন্ত্রাসীরা ছাত্রদলের নেতাদের কাছে থেকে চাঁদা না পেয়ে মিথ্যা ষড়যন্ত্র মূলক ভাবে সিলেটের ছাত্র রাজনীতির দিকপাল সংগ্রামী ছাত্রনেতা শাকিল মুর্শেদ সহ প্রায় অর্ধ শতাধিক ছাত্রদলের নেতা কর্মীদের নাম উল্লেখ্য করে মামলা দায়ের করেছে যা সম্পন্ন মিথ্যা ও বানোয়াট। দেশে যে স্বাধীনতা নেই তা প্রমাণিত হয় এ ঘটনার মধ্যে দিয়ে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ভাংচুর কালে পূর্বের মত গণপিটুনি খেয়ে মেডিকেলে চিকিৎসা নিচ্ছেন ছাত্রলীগ নামধারী সন্ত্রাসীরা আর মামলা দায়ের করা হয় ছাত্রদলের নেতা কর্মীদের বিরুদ্ধে। থানায় মামলা নিয়ে গেলে ছাত্রলীগের মামলা গ্রহণ করেন থানা কতৃপক্ষ আর ছাত্রদলের মামলা নেওয়া হয় নি। যা সম্পন্ন সাজানো নাটকের একটি অংশ। যদি অবিলম্বে শাকিল মুর্শেদ সহ সকল ছাত্রদল নেতা কর্মীদের উপর থেকে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করে প্রকৃত অপরাধী ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ভাংচুরকারী সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার না করা হয় তা হলে সিলেটের সর্বস্থরের ছাত্র জনতা ঐক্যবন্ধ হয়ে এই সকল সন্ত্রাসীদের সকল অপকর্মের বিরুদ্ধে রুখে দাড়াবে।

উল্লেখ্য গত ১৯ অক্টোবর বুধবার সিলেট নগরীর স্টেডিয়াম মার্কেটের সাবেক ছাত্রলীগ নেতা পীযুষ ক্রান্তি দে ও ছাত্রদল প্রান্তিক গ্র“পের মধ্যে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে সংর্ঘষের ঘটনা ঘটে। ছাত্রলীগ ও ছাত্রদল ২ পক্ষ থানা মামলার এজহার দায়ের করেন। থানা পুলিশ ছাত্রলীগ মহানগর শাখার সাংগঠনিক সম্পাদক সজল দাস অনিকের মামলা এজহারভূক্ত করেন। আর ছাত্রদল ব্যবসা প্রতিষ্ঠার ভাংচুরের একটি মামলা দ্বায়ের করেন তা গ্রহণ করেন নি থানা।