মজিববর্ষ উপলক্ষে গৃহ পাচ্ছে প্রায় ৯ লাখ গৃহহীন পরিবার – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

মজিববর্ষ উপলক্ষে গৃহ পাচ্ছে প্রায় ৯ লাখ গৃহহীন পরিবার

প্রকাশিত: ২:৫৯ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৩০, ২০২০

মজিববর্ষ উপলক্ষে গৃহ পাচ্ছে প্রায় ৯ লাখ গৃহহীন পরিবার

অনলাইন ডেস্ক :: সারা দেশে গৃহ ও ভূমিহীন ৮ লাখ ৮২ হাজার ৩৩ পরিবারকে পাকা বাড়ি নির্মাণ করে দিচ্ছে সরকার। ‘মুজিববর্ষে বাংলাদেশে কোনো মানুষ গৃহহীন থাকবে না’ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এমন নির্দেশের পর এ উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। প্রতিটি বাড়ি নির্মাণে সম্ভাব্য ব্যয় ধরা হয়েছে এক লাখ ৭১ হাজার টাকা। সে হিসেবে এ কর্মসূচিতে মোট ব্যয় হবে ১৫ হাজার ৮২ কোটি টাকা। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের আশ্রয়ণ-২ প্রকল্প, ভূমি মন্ত্রণালয়ের গুচ্ছগ্রাম ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের দুর্যোগ সহনীয় বাড়ি প্রকল্পের সুবিধাভোগীদের নিয়ে এ প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হবে। জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকীর বছরে অর্থাৎ মুজিববর্ষে এটিই হবে প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ উপহার। আগামী মার্চের মধ্যে এ কর্মসূচি বাস্তবায়নের লক্ষ্য নিয়ে কাজ করছে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়। খবর সংশ্লিষ্ট সূত্রের। এর সত্যতা নিশ্চিত করেছেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. এনামুর রহমান। তিনি যুগান্তরকে বলেন, ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে আমরা এবার সারা দেশের ৮ লাখ ৮২ হাজার ৩৩টি গৃহ ও ভূমিহীন পরিবারকে একটি পূর্ণাঙ্গ পাকা বাড়ি নির্মাণ করে দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। এর মধ্যে ভূমিহীন পরিবারের সংখ্যা ২ লাখ ৯২ হাজার ২৮৩টি এবং জমি আছে ঘর নেই এমন পরিবারের সংখ্যা ৫ লাখ ৮৯ হাজার ৭৫০টি। এজন্য সুবিধাভোগীকে কোনো ধরনের টাকা-পয়সা খরচ করতে হবে না। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় ইতোমধ্যে সুবিধাভোগীর তালিকা চূড়ান্ত করেছে। আমরা দ্রুত এ কর্মসূচি বাস্তবায়ন করতে যাচ্ছি। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে এ বিষয়ে ২৩ সেপ্টেম্বর তাগিদ দেয়া হয়েছে।’ চলতি বছর আওয়ামী লীগ আয়োজিত ঐতিহাসিক ৭ মার্চের আলোচনা সভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছিলেন, ‘মুজিববর্ষে বাংলাদেশের কোনো মানুষ ভূমিহীন-গৃহহীন থাকবে না। আমরা মুজিববর্ষ উদযাপনে অনেক কর্মসূচির চিন্তা করছি। জাতির পিতা বলেছেন, বাংলাদেশের মানুষ যেন অন্ন, বস্ত্র, বাসস্থান পায়। তার স্বপ্ন ছিল একটি মানুষও গৃহহীন থাকবে না। এজন্য তিনি গুচ্ছগ্রাম প্রকল্প হাতে নিয়েছিলেন। এখনও আমাদের দেশে নদীভাঙনে মানুষ গৃহহারা হয়। দেশে কিছু মানুষ খুঁজে পাওয়া যায়, যারা ভূমিহীন, গৃহহীন। আমি চাই মুজিববর্ষ আমরা উদযাপন করছি, এ মুজিববর্ষের ভেতরেই গৃহহীনদের ঘর করে দেব। বাংলাদেশের একটা মানুষও গৃহহীন থাকবে না।’ প্রসঙ্গত, ২০১৮ সালের জুলাইয়ে সরকার জাতির পিতার জন্মশতবর্ষ উদযাপনে ২০২০-২১ সালকে ‘মুজিববর্ষ’ ঘোষণা করে। আর তার জন্ম তারিখ অর্থাৎ ১৭ মার্চ থেকে শুরু হয়ে ২০২১ সালের ১৭ মার্চ পর্যন্ত চলবে মুজিববর্ষের কর্মকাণ্ড। ১৯২০ সালের ১৭ মার্চ গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় জন্ম নেন শেখ মুজিবুর রহমান। কালক্রমে তার হাত ধরেই বিশ্ব মানচিত্রে নতুন দেশ হিসেবে স্থান করে নেয় বাংলাদেশ। জানা গেছে, ২ মার্চ মন্ত্রিসভার অনানুষ্ঠানিক আলোচনায় জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী উদযাপনে কেন্দ্রীয় কমিটির সঙ্গে সমন্বয় করে মুজিববর্ষের কর্মসূচি গ্রহণের নির্দেশনা দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি ‘অহেতুক’ নতুন কর্মসূচি না নিয়ে মন্ত্রণালয় ও বিভাগগুলোকে নিজেদের বাজেট থেকে মানুষের কল্যাণ ও দেশের উন্নয়নে ভূমিকা রাখতে পারে এমন কর্মসূচি নেয়ার নির্দেশনা দেন।