মহানগর আওয়ামীলীগের সম্পাদক আসাদ উদ্দিনের রাজনৈতিক কর্মদক্ষতায় সাবির্ক পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রন – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

মহানগর আওয়ামীলীগের সম্পাদক আসাদ উদ্দিনের রাজনৈতিক কর্মদক্ষতায় সাবির্ক পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রন

প্রকাশিত: ৮:১৩ পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৩, ২০১৬

মহানগর আওয়ামীলীগের সম্পাদক আসাদ উদ্দিনের রাজনৈতিক কর্মদক্ষতায় সাবির্ক পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রন

asad copy৩ সেপ্টেম্বর ২০১৬, শনিবার : সিলেট নগরীর কাজলশাহ এলাকায় নামাজের সময় গান বাজনা চলাকে কেন্দ্র করে ইন্টারন্যাশনাল সোসাইটি ফর কৃষ্ণ কনসাসনেস (ইসকন) মন্দিরে পূজারীদের সাথে মুসল্লিদের রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে গতকাল শুক্রবার। সংঘর্ষে নারী পুরুষ সহ প্রায় ২০ জন আহত হয়েছেন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ র‌্যাব সহ বিপুল সংখ্যক আইনশৃঙ্খলা বাহীনির সদস্যরা অভিযান চালিয়ে প্রায় ২০ জনকে গ্রেফতার করে।
শুক্রবার বেলা ২টার দিকে এই ঘটনা ঘটে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণকালে সিলেট কোতোয়ালী থানার ওসি সহ অন্যান্য পুলিশের গুলি ও লাঠিচার্জে সাবেক কাউন্সিলর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল খালিক ও সাবেক মহিলা কাউন্সিলর জেবুন্নাহার শিরিন সহ ২০জন আহত হয়েছেন। প্রায় ২ ঘন্টাব্যাপী সংঘর্ষ ও গোলাগুলিতে এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। এসময় জলকামান নিয়ে পুলিশের একটি দল ঘটনাস্থলের আশপাশের ওলিগলিতে অভিযান চালায়।
এব্যাপারে সিলেট মহানগর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদ উদ্দিন আহমদ জানান, সিলেটে রয়েছে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির সুদীর্ঘ ইতিহাস। শুক্রবার ঘটে যাওয় অনাকাঙ্খিত ঘটনাটি অত্যন্ত দু:খজনক। এর একটি সুষ্ঠু সমাধানের উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে। তিনি বলেন, এ ঘটনায় আটককৃতদের মুক্তির ব্যাপারেও বিশেষ উদ্যোগ নেওয়া হবে বলে প্রতিবেদককে জানিয়েছিলেন।
zallaতার পরপর তিনি সিলেটের রাজনৈতিক, সুশীল সমাজ, পেশাজীবি ও প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্মকর্তার সাথে আলাপ আলোচনা শুরু করে। তাৎক্ষণিক ভাবে প্রশাসন ও রাজনৈতিক নেতাদের নিয়ে শুক্রবার (২ সেপ্টেম্বর) বিকেলে সিলেট জেলা ক্রীড়া সংস্থার কার্যালয়ে সমঝোতা বৈঠকে বসেন। তিনি প্রথমে আটক কৃতদের ছেড়ে দেওয়ার জন্য বলেন তার প্রস্তাবের ভিত্তিতে আটক কৃতদের ছেড়ে দেওয়া হয়। এবং ঘটনার সুষ্ট তদন্তের জন্য প্রশাসনের সম্বয়নে ৩ সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়।
সিলেট মহানগর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদ উদ্দিন আসাদের এই রাজনৈতিক কর্ম তৎপরতার কারণে বড় ধরনের একটি সংর্ঘষ থেকে রক্ষা পেল সিলেটবাসী।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, শুক্রবার কাজলশাহ এলাকায় মসজিদ ও মন্দিরের অবস্থান কাছাকাছি হওয়াতে বাদ্যযন্ত্রের শব্দ মসজিদের ভেতর পর্যন্ত পৌঁছায়। এতে ক্ষিপ্ত হন নামাজে আগত কয়েকজন মুসল্লি বিষয়টি তারা আগে কয়েকবার ইসকনকে জানালেও কোন প্রতিকার পাওয়া যায়নি। এরই ধারাবাহিকতায় শুক্রবার ২ সেপ্টেম্বর জুমুআর নামাজ শেষে বেরিয়ে এসে মুসল্লিরা ইস্কন মন্দিরে অবস্থানকারীদের বিষয়টি আবার অবগত করতে গেলে। এতে দু’পক্ষের মধ্যে কথা কাটাকাটি শুরু হয়। একপর্যায়ে উত্তপ্ত বাক্য বিনিময় হলে মুহুর্তে উভয় পক্ষ সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন। শুরু হয় ধাওয়া-পাওয়া ইটপাটকেল নিক্ষেপ ও ভাংচুর। ইসকনের সদস্যরা মন্দিরের প্রধান ফটক বন্ধ করে দেয়। তারা ভেতর থেকে ইট পাটকেল নিক্ষেপ করে মুসল্লিদের সাথে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে।
এ ব্যাপারে সাবেক কাউন্সিলর বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল খালিক আমাদেরকে জানিয়েছিলেন, মধুশহীদস্থ ইসকনের ভক্তরা নামাজের সময়ে বাদ্যযন্ত্র দিয়ে গানবাজনা করে থাকে। তাদেরকে পূর্বে এলাকার লোকজন আযান ও নামাজের সময় গানবাজনা বন্ধ রাখার জন্য অনুরোধ জানান। কিন্তু তারা তাতে কর্ণপাত করেনি। এ অবস্থায় শুক্রবার জুমু’আর নামাজের সময় গানবাজনার শব্দ মসজিদে পৌছে। জুম’আর নামাজ শেষে বিষয়টির প্রতিবাদ জানাতে গিয়ে মুসল্লিরা সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন। এসময় বেশীরভাগ মুসল্লিরা আহত হন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে বিপুল সংখ্যক পুলিশ টিয়ারগ্যাস ও ফাঁকা গুলি নিক্ষেপ করে।
তবে সিলেটবাসী মনে করেন সিলেট মহানগর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদ উদ্দিন আসাদের রাজনৈতিক কর্ম দক্ষতার প্রমান দিয়েছেন।