মাংসের নামে কি খাচ্ছেন সিলেটবাসী? – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

মাংসের নামে কি খাচ্ছেন সিলেটবাসী?

প্রকাশিত: ৪:০৯ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ২২, ২০২১

মাংসের নামে কি খাচ্ছেন সিলেটবাসী?

স্টাফ রিপোর্ট:::

মাংসের নামে কি খাচ্ছেন সিলেটবাসী? কি খাওয়াচ্ছেন মাংস ব্যবসায়ীরা? আর সিলেট সিটি করপোরেশনইবা কি দায়িত্ব পালন করছে? এ ব্যাপারে এমন অসংখ্য প্রশ্ন উঠছে। যার সঠিক কোন জবাব বা ব্যাখ্যা নেই কারও কাছে। এমনকি সিলেট সিটি কর্পোরেশনের কাছেও।

আর তাই মারাত্মক স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে সিলেট সিটি করপোরেশনের নাগরিক বৃন্দ। পেটে ২/৩ কেজি ওজনের বাচ্চা ওয়ালা গাভী জবাই হচ্ছে নির্দিধায়, তার মাংসও খাওয়ানো হচ্ছে নগরবাসীকে।

আজ বৃহস্পতিবার ( ২২ এপ্রিল ) তেমন একটা ঘটনা ঘটেছে নগরীর শিবগঞ্জে। মাংস ব্যবসায়ী আব্দুল মালেকের বিরুদ্ধে উঠেছে এই অভিযোগ। লজ্জিত বা অনুতপ্ত হওয়ার বদলে তিনি বিষয়টি প্রকাশের অপরাধে পাশের দোকানদারের ওপর হামলা করেছেন। তার মারধরে ঐ ব্যবসায়ী এখন নিরাপত্তাহীনতায় ভোগছেন।

দুপুর ২টার দিকে শিবগঞ্জে রটে যায় যে, মাখন মিয়ার মাংসের দোকানে ২/৩ কেজি ওজনের বাচ্চাওয়ালা গাভী জবাই করে তার মাংস বিক্রি করা হয়েছে। প্রমাণ হিসাবে প্রতিবেশি এক ব্যবসায়ী পাশের ড্রেন থেকে তুলে আনেন সেই বাচ্চা। দেখেতো সবার চক্ষু চড়কগাছ! আর এতে ক্ষুব্ধ হয়ে আব্দুল মালেক সেই ব্যবসায়ীকে মারধর করেছেন বলেও জানিয়েছেন কয়েকজন প্রত্যক্ষদর্শী।

যখন জানাজানি হয়েছে তখন ঐ গাভীটির মাংস বিক্রি প্রায় শেষের দিকে। এরপর স্থানীয় লোকজন ও ব্যবসায়ীরা বিষযটি নিয়ে মালেকের সাথে আলাপ করতে চাইলেও তিনি কোন সদুত্তর দিতে পারেন নি। তবে ইফতারের পরে বিষয়টি নিয়ে বিস্তারিত আলাপ আলোচনা শেষে একটা সিদ্ধান্ত নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন শিবগঞ্জের কয়েকজন ব্যবসায়ী নেতা।

নগরবাসীর জন্য জবাই হওয়া গরু-ছাগল বা ভেড়া পরীক্ষার দায়িত্ব সিলেট সিটি কর্পোরেশনের স্বাস্থ্য বিভাগের। অথচ এ বিভাগের প্রধান ডাক্তার জাহিদ হোসেন সুমন বিষয়টি সম্পর্কে কিছুই জানেন না। এমনকি জানেন না সিসিক’র ভেটেনারি সার্জনও। এ ব্যাপারে পাওয়া গেলো আরো খারাপ খবর।

সিলেট সিটি কর্পোরেশনে পশু জবাইয়ের জন্য নির্ধারিত জবাইখানা মাত্র একটি এবং সেটির অবস্থান নগরীর বাগবাড়ি এলাকায়। সিসিক’র ভেটেনারি সার্জন ডাক্তার অনুপ চৌধুরী এ ব্যাপারে বলেন, আমি নির্ধারিত বাগবাড়ি জবাইখানায় পশু পরীক্ষা করে জবাইয়ের জন্য অনুমতি দিই। এর বাইরে অন্য কোথাও বিনা পরীক্ষায় কোন কোন মাংস ব্যবাসায়ী পশু জবাই করে থাকেন অবৈধভাবে। মাখন মিয়ার মাংসের দোকানেও তাই হয়েছে হয়ত।

সিলেট সিটি করপোরেশনের দেয়া ফি আদায়ের রিসিট প্রসঙ্গে অনুপ চৌধুরী বলেন, সেটিতো আদায় করেন ইন্সপেক্টররা। আমি তা জানিনা।

সার্বিক বিষয় নিয়ে আলাপকালে সিলেট সিটি কর্পোরেশনের প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাক্তার জাহিদ হোসেন সুমন বলেন, আমি বিষয়টি নিয়ে খোঁজ খবর নিচ্ছি। এ ব্যাপারে সিটি কর্পোরেশনের যদি কোন গাফিলতি থাকে তাহলে সংশ্লিষ্ট সবার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।