মুগ্ধতা ছড়ায় এক মানবিক প্রাণ – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

মুগ্ধতা ছড়ায় এক মানবিক প্রাণ

প্রকাশিত: ১২:৫২ পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২৮, ২০২০

মুগ্ধতা ছড়ায় এক মানবিক প্রাণ

মাহমুদ হাসান

 

করোনাবেলায়ও মৃত্যুর দুর্ভাবনা উপচে জাগরণের জোয়ারে ভাসছে জনপদের পর জনপদ। তিনি পাল্টে দিয়েছেন গোটা দেশটা। দেশ ও মানুষের কল্যাণে নিজেকে সপেছেন তিনি। তার ত্যাগের শক্তিতে এগিয়ে চলেছে দেশ। বাবা-মা, ভাইদের, আপনজনদের হারিয়েও তিনি মৃত্যুর ঝুঁকি নিতে কখনই পিছপা হননি। তার দর্শনে দেশ ও দেশের মানুষের ভালোর জন্য, মঙ্গল ও কল্যাণের জন্য কাজ করার চেয়ে উত্তম আর কী হতে পারে। এই ভালো কাজ সবাই পারে না, সবার দিয়ে হয় না। এজন্য চাই অন্তরে-বাহিরে সমান ভালোবাসা, অকৃত্রিম ভালোবাসা। আর এ সুবাদেই মাত্র ক’বছরে দেশ ও দেশের মানুষের ভাগ্যটা, স্বপ্নটা পাল্টে দিয়েছেন তিনি, বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা।

এই দেশ, দেশের মানুষ যে তার হৃৎকমল, তার রাজনীতির প্রাণভমরা। দেশের মানুষের জন্যে প্রাণ দিয়ে গেছেন তার অকুতোভয় পিতা। তার স্নেহময়ী মাতা। তার বীর ভাইয়েরা। আর তিনি পিতার স্বপ্ন, দুঃখী মানুষের মুখে হাসি ফুটানোর স্বপ্ন পূরণের নিরন্তর সংগ্রামে আজ সফল এক রাজনীতিক, সফল এক রাষ্ট্রনায়ক। একজন গৃহিণী থেকে আজ তিনি ডিজিটাল বাংলাদেশের স্রষ্টা, উন্নয়ন ও কল্যানের রূপকার। তাকে কেন্দ্র করে, তার নেতৃত্বে আবর্তিত হচ্ছে বাংলাদেশের রাজনীতি, গণতন্ত্র এবং উন্নয়ন। তার কল্যানে বাংলাদেশ আজ এক সাফল্যের গল্প। পৃথিবীর দুচোখ ভরা বিস্ময়। দেশের অগ্রযাত্রার কাণ্ডারি শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাঙালি জাতি আজ ঘুরে দাঁড়িয়েছে।
১৯৮০-র দশক। যিনি বাঙালির স্বাধীনতা এনে দিলেন, সেই স্বাধীনতা অটুট রাখতে প্রাণ দিয়ে গেলেন, বাংলাদেশের স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তখন নিষিদ্ধ। দেশে দুঃসময় চলছে। গণতন্ত্র দুর্দশাগ্রস্ত। চারদিকে অনাসৃষ্টি। প্রাণহীন রাজনীতি। সেই নিস্তেজ নিষ্প্রাণ রাজনীতিতে প্রাণের সঞ্চার করতে বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিকদের আশার আলো হয়ে এলেন তিনি। ৬ বছর নির্বাসন শেষে ১৯৮১-র ১৭ মে দেশে ফিরে তুমুল বর্ষণের ভেতর উদ্যম বসন্তের গান শোনালেন তিনি। তার আগমনে সেদিন ঢাকা ও ঢাকার বাইরে সারাদেশে আওয়ামী লীগের কর্মীরা পেয়েছিল নতুন সকালের ইঙ্গিত। প্রিয়জন হারানোর শোক ও পিতা-মাতার স্বপ্ন পূরণের সংকল্পশক্তির মিশেলে শুরু হয় তার নতুন পথ চলা। আর রাজনীতির দুর্গম-বন্ধুর পথ পরিক্রমায় তিনি নিজের ভেতর আবিষ্কার করেন এক দুর্লঙ্ঘনীয় নেতৃত্ব। রাজনীতির এই নিষ্ঠাবান নেতৃত্ব আর প্রত্যয়ী রাষ্ট্রনায়কের দূরদর্শিতায় আজ শেখ হাসিনা স্বয়ং তার সময়ের উপমা। আর সর্বশেষ প্রতিবেশী মিয়ানমারের লাখ লাখ নির্যাতিত রোহিঙ্গা শরণার্থীর আশ্রয়দানের মধ্যদিয়ে তিনি সারা বিশ্বের সামনে নতুন পরিচয়ে পরিচিত হয়েছেন, চ্যাম্পিয়ন অব হিউম্যান রাইটস শেখ হাসিনা মাদার অব হিউম্যানিটি।

১৯৮১ থেকে ২০২০, সব পাল্টে গেছে, শুধু পাল্টে যাননি জননন্দিত শেখ হাসিনা, তিনি তেমনি আছেন। নিজের সাধনা নিয়ে অবিচল আছেন। দেশের মানুষের মনের গহীনে আছেন। চার দশক ধরে তিনি তার হৃদয়জাত স্বপ্নের ভেতর মগ্ন করে রেখেছেন আমাদের। সে স্বপ্ন বাংলাদেশকে উন্নত দেশের কাতারভুক্ত করা, দেশের দুঃখী মানুষের মুখে হাসি ফোটানো। জনগণের কল্যাণ তার আরাধনা, তার একজনমের সাধনা। দেশদশের স্বার্থরক্ষার প্রশ্নে তিনি আবেগতাড়িত। দেশদশের মঙ্গল আকাঙ্খা তাকে সৃজনশীল রাজনীতিতে উদ্বুদ্ধ করেছে। তাকে একজন যথার্থ রাষ্ট্রনায়ক করে তুলেছে। যদিও নিজের সাফল্য নিয়ে তার আত্মতুষ্টি নেই। তিনি পিতার মতো দেশের মানুষের মনে জাগরণ জাগিয়েছেন, মানুষকে স্বপ্ন দেখতে শিখিয়েছেন। ন্যায়ের প্রশ্নে কখনো আপসকামী ও পলায়নপর হননি। দ্বন্দ্বমুখর রাজনীতির ঘাত-প্রতিঘাতে কখনো হননি হতাশ-হতবিহ্বল। কখনো কখনো প্রতিপক্ষের ষড়যন্ত্রের রাজনীতি তার মনে ক্ষনিক বিষন্নতার ছায়া ফেললেও হতোদ্যম হননি তিনি। কারণ তার মনের গভীর গহীনে রয়েছে প্রবল আত্মবিশ্বাস। আর এই আত্মবিশ্বাসের জোরেই তিনি স্রোতের বাইরে হাঁটার সাহস দেখাতে পারেন। এ সাহস ক্রমেই সক্ষম ও শক্তিশালী করে তুলেছে তাকে। তার চেতনাকে আরো ঋদ্ধ করেছে। তার গুণমুগ্ধ না হয়ে কী উপায় আছে!

রাজনীতির একটা আলাদা সৌন্দর্য আছে। সেই সৌন্দর্যটা সবার হাতে আসে না। সৌন্দর্য রচনার রসদ যে রাজনীতিকের মনের গহীন ভেতরে থাকতে হয়। আর তা হচ্ছে দেশের জন্য, দেশের মানুষের জন্য অকৃত্রিম ভালোবাসা। এই ভালোবাসার সুবাদেই শেখ হাসিনা মানুষের আকাঙ্খাগুলো নিজের মধ্যে নিয়ে প্রকাশ করেন। তিনি নিজের কণ্ঠে সকলের কথা বলেন। পিতার মতো এই অসামান্য ভিন্নতা তাকে সমকালীন আর সবার থেকে আলাদা করেছে। বাংলা সাহিত্যের এই মেধাবী ছাত্রীর সব কিছুকে ছাপিয়ে গেছে তার বড়মাপের মানবিক গুণাবলী। শুধু বাংলাদেশ কেন, দেশের বাইরে, এ অঞ্চলে, অঞ্চল ছাড়িয়ে সমকালীন বিশ্ব পরিমণ্ডলে কী দারিদ্র বিমোচন, কী গভীর গভীরতম মানবিকতায় তিনি আজ বাঙালির গর্ব।

শেখ হাসিনার বড় গুণ, কখোনই তিনি ‘শাসক’ হয়ে উঠতে চাননি। চেয়েছেন ভাল ‘জনসেবক’ হতে এবং তিনি তা হয়েছেনও। এ পারঙ্গমতা সব নেতা-নেত্রীর হয় না। আজ তার রাজনৈতিক জীবনের যে সাফল্য এর পেছনে রয়েছে নিজের আত্মবিশ্বাস এবং কমিটমেন্ট। আর লক্ষ্যে পৌঁছানোর জন্য পথ চলার ধৈর্য। পরিশ্রম করার মতো মনোবল। তিনি রাজনৈতিক কিংবা অর্থনৈতিক দুর্নীতির গড্ডালিকায় গা ভাসিয়ে দেননি। ক্ষমতার পেছনে অন্ধের মতো ছোটেননি। বরং ক্ষমতার অংশদারিত্বের ক্ষেত্রে দেখিয়েছেন বিশাল উদারতা। এক উদার রাজনীতিকের চিন্তা-চেতনা নানাভাবে ধরা দিয়েছে তার রাজনৈতিক ও প্রশাসনিক কাজকর্মে, পদক্ষেপ গ্রহণে। তার রাজনীতিতে ক্ষমতা নয়, সবার উপরে মানুষ। তাই তো তার রাজনীতি চেয়ে থাকে মানুষের দিকে, চেয়ে থাকে মাটির দিকে।

১৯৮১ থেকে ২০২০, কত বাঁক, কত দীর্ঘশ্বাস। কত স্বপ্ন দেখা, স্বপ্ন ভাঙা। আবার ভাঙা স্বপ্নগুলো জোড়া লাগিয়ে পথ হাঁটা। একটা জাতির পথ যে অনেক দীর্ঘ, সে পথ কখনো শেষ হয়না। হাঁটা শেষ হয়না, সময়ের বাঁকে বাঁকে পথ বদলায়। নতুন পথের সন্ধান দেয়। সেই পথের সন্ধানী শেখ হাসিনা। আওয়ামী লীগের সভাপতি হিসেবে, তিন বার জাতীয় সংসদে বিরোধী দলের নেতা হিসেবে, চারবারের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে ৪০ বছর ধরে নিজ রাজনৈতিক প্রজ্ঞা ও আপসহীন নেতৃত্বের মাধ্যমে দেশের অসাম্প্রদায়িক-গণতান্ত্রিক রাজনীতির মূল স্রোতধারার প্রধান নেতা হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন তিনি।

আশির দশক থেকে একুশের প্রথম দশক, এ সময় একজন রাজনৈতিক সংবাদদাতা হিসেবে শেখ হাসিনার সভা-জনসভার খবরাখবর,বিভিন্ন মিটিং-সিটিং, সাংগঠনিক ও রাষ্ট্রীয় সফর প্রভৃতি সংবাদ নিয়মিত কভার করার সুযোগ হয়েছে আমার। এ সুবাদে তার সান্নিধ্য ও স্নেহ লাভের সৌভাগ্যও হয়েছিল। তখন অনেক সময় প্রতিবেদনের খাতিরে আওয়ামী লীগ বা দলীয় সভানেত্রীর প্রশংসা কিংবা সমালোচনা করেছি সত্যি। কিন্তু আমি বরাবরই ছিলাম তার একজন গুণমুগ্ধ ভক্ত। আজ মনে হয়, সেই সময় মনে মনে তাকে আদর্শ হিসেবে বেছে নিয়ে ভুল করিনি। একজন সংবাদকর্মীকে হতেই হবে আপসহীন। সত্য ও ন্যায়ের জন্য আপসহীন পথ চলার এই শিক্ষাটা তার কাছ থেকেই নিয়েছি। আমি যখন রিপোর্টার ছিলাম, তাকে পেয়েছি সম্পূর্ণ ভিন্ন এক কণ্ঠস্বরে। সে কণ্ঠস্বরে ছিল আশা ও উচ্ছ্বাস, ছিল সমকালীন অনেকের থেকে আলাদা একটা ভাবনা। এই কণ্ঠস্বরের শক্তি হচ্ছে তার সততা, তার নিষ্ঠা ও তার রাজনৈতিক দৃঢ়তা।

স্বজন হারানোর বুকভরা কষ্ট পাথরচাপা দিয়ে তাকে পাড়ি দিতে হয়েছে দুর্গম পথ। পার হতে হয়েছে বহু চড়াই-উতরাই। পদে পদে তাকে হত্যার চেষ্টা করা হয়েছে। ঢাকায় ২১ আগস্টের ভয়াবহ গ্রেনেড হামলাসহ ধানমন্ডি, গ্রীনরোড, চট্টগ্রামের লালদীঘি, নাটোর, নওগাঁ, কলারোয়া, কোটালিপাড়ায় জীবননাশের উদ্দেশ্যে পরিচালিত হামলা ও হত্যাচেষ্টার মতো ষড়যন্ত্র মোকাবেলা করতে হয়েছে তাকে। একদিকে মৃত্যুঝুঁকি, অন্যদিকে ষড়যন্ত্রের পর ষড়যন্ত্র প্রতিহত করে জনগণকে সাথে নিয়ে বন্ধুর পথ চলতে হয়েছে। চার দশকের অধ্যবসায় ও পরিশ্রম, ত্যাগ ও ধৈর্য আজ তাকে আসীন করেছে এক অনন্য উচ্চতায়। ন্যায়ের জন্য, জনগণের কল্যাণের জন্য, মানবতার জন্য তার ডাক, তার উদ্যোগ, তার পদক্ষেপ তাকে সমকালীন বিশ্বের চোখে দিয়েছে এক ভিন্ন মর্যাদা। আর সর্বশেষ বিতাড়িত রোহিঙ্গাদের পাশে দাঁড়িয়ে তিনি আজ সারাবিশ্বের কাছে অভিষিক্ত হয়েছেন দুঃখী মানুষের আপনজন, নির্যাতিত নিপীড়িত জনগণের সহমর্মী।

একজন রাজনৈতিক নেতা, একজন রাষ্ট্রনায়ক হিসেবে শেখ হাসিনার যে গুণটি আমায় সবচেয়ে আকৃষ্ট করেছে তা হচ্ছে, যে কোনো সংকট মুহূর্তে বা প্রতিকূল পরিবেশে কিংবা জরুরি পরিস্থিতিতে বা সংক্ষিপ্ত সময়ে চটজলদি সিদ্ধান্ত গ্রহণ এবং বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই সে সিদ্ধান্ত হয় সঠিক। যেমন, স্বৈরাচার এরশাদ জামানায় ১৯৮৬ সালের সংসদ নির্বাচনে অংশ নিয়ে আবার পরে সংসদ থেকে বের হয়ে আসা এবং এরপর ১৯৮৮’র নির্বাচন বর্জনের সিদ্ধান্ত। খালেদা জামানায় ১৯৯৬ এর ১৫ ফেব্রুয়ারি ও ২০০৭ এর ২২ জানুয়ারির নির্বাচনে অংশগ্রহণে বিরত থাকা। আবার বিএনপি জোটের বয়কটের মুখে ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচন অনুষ্ঠানের মতো সিদ্ধান্তটি ছিল তার দূরদর্শী রাজনৈতিক অভিজ্ঞার বহিঃপ্রকাশ। তার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ এ পর্যন্ত চার মেয়াদে ক্ষমতাসীন হয়েছে। তার নেতৃত্বে ১৯৯৬ সালের ১২ জুনের নির্বাচনের মাধ্যমে দীর্ঘ ২১ বছর পর রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় আসে মুক্তিযুদ্ধে নেতৃত্বদানকারী দলটি। গণতন্ত্র এবং দেশের মানুষের ভোট ও ভাতের অধিকার প্রতিষ্ঠার আন্দোলন-সংগ্রামে অসামান্য অবদান রাখার পাশাপাশি এখন রাষ্ট্র পরিচালনায় ব্যাপক সাফল্যের পরিচয় দিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পার্বত্য চট্টগ্রাম শান্তিচুক্তি, গঙ্গার পানি বণ্টন চুক্তি, সমুদ্র সীমায় সার্বভৌমত্ব প্রতিষ্ঠা ও ছিটমহল সমস্যা সমাধানের মতো বিষয়গুলো তার সরকারের ঐতিহাসিক সাফল্য হিসেবে চিহ্নিত হয়ে থাকবে দেশের ইতিহাসে। সেইসঙ্গে জাতির পিতার খুনিদের এবং একাত্তরের যুদ্ধাপরাধীদের বিচার ও রায় কার্যকরণের মতো রাজনৈতিক অঙ্গীকার পূরণ।

আমাদের জীবনে আশা আছে, হতাশাও আছে। আনন্দ-বেদনাও আছে। স্বপ্ন আছে, স্বপ্নভঙ্গও আছে। দুঃখ আছে, দুঃখের দায়ও আছে। সব মিলিয়ে বদলে যাওয়া অগ্রসরমান দেশের বাসিন্দা হওয়ার গর্বও আছে। এ গর্ব ও গৌরবের উৎস শেখ হাসিনা। তিনি এক মানবিক প্রাণ, যিনি আমাদের মুগ্ধতা ছড়িয়ে চলেছেন। তিনি আমাদের অগ্রযাত্রার প্রাণভমরা, বাংলাদেশকে নিজের পায়ে দাঁড় করানোর অদম্য শক্তি। জয়তু শেখ হাসিনা। বারবার ফিরে আসুক শুভ জন্মদিন।

লেখক : উপসম্পাদক, বাংলাদেশ প্রতিদিন।
সুত্র : বাংলাদেশ প্রতিদিন।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

ফেসবুকে সিলেটের দিনকাল