মোগলাবাজারে বিদ্যুতের খুটি স্থাপনের জের ধরে নিরীহ পরিবারের উপর হামলা – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

মোগলাবাজারে বিদ্যুতের খুটি স্থাপনের জের ধরে নিরীহ পরিবারের উপর হামলা

প্রকাশিত: ৪:৩২ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ২৬, ২০১৭

মোগলাবাজারে বিদ্যুতের খুটি স্থাপনের জের ধরে নিরীহ পরিবারের উপর হামলা

দক্ষিণ সুরমার মোগলাবাজারে বিদ্যুতের খুটি স্থাপনের জের ধরে এক নিরীহ পরিবারের উপর হামলার ঘটনা ঘটেছে। ঘটনায় ৫ জন গুরুতর আহত হয়েছেন। আহতরা বর্তমানে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। গত শুক্রবার (২৪ নভেম্বর) বিকাল ৩টায় মোগলাবাজার থানার জালালপুরের ইসলামপুর মতি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।
জানা যায়, প্রায় ৬ বছর পূর্বে জালালপুরের ইসলামপুর মতি গ্রামের নিকটে জমির আলীর পুত্র হেলাল আহমদ নতুন বাড়ি বানিয়ে বসবাস শুরু করেন। তার পার্শ্বে সমেসপুর গ্রামের বাবুল মিয়াও নতুন বাড়ি বানিয়ে আসেন। দীর্ঘদিন একসাথে বসবাসের ফলে তারা একে অন্যের প্রতিবেশী হয়ে উঠে। এক পর্যায়ে হেলাল মিয়া ও বাবুল মিয়া তাদের বাড়িতে বিদ্যুৎ আনার সব রকম ব্যবস্থা করেন। গত শুক্রবার বিকালে বিদ্যুৎ বিভাগের লোকজন বিদ্যুতের খুটি স্থাপনের জন্য ঐ এলাকায় যান । বিদ্যুতের খুটি কোথায় স্থাপন করা হবে এ নিয়ে দু’জনের মধ্যে বাকবিতন্ডা হয়। শেষ পর্যায়ে হেলাল মিয়া বলেন, যেখানে খুটি স্থাপন করলে দুজনেরই ভাল হবে সেখানেই খুটি স্থাপন করেন। কিন্তু বাবুল মিয়া এ সিদ্ধান্তে একমত না হওয়ায় এবং তার কথামত বিদ্যুতের খুটি না স্থাপন করায় তিনি হেলাল আহমদের উপর ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেন। পরে ঐদিন বিকাল ৩টায় বাবুল মিয়া দাউদপুর গ্রামের মিরন মিয়া ও তার দলবল নিয়ে হেলাল আহমদের উপর হামলা করেন। দেশীয় অস্ত্র সস্ত্র সজ্জিত হয়ে তাদের উপর ঝাঁপিয়ে পড়েন। লাঠিসোঠা দিয়ে অমানবিক মারধরের ফলে হেলাল আহমদ ও তার পিতা জমির আলী, ভাই বোরহান উদ্দিন, রহিম উদ্দিন এবং বোন মিনা বেগম গুরুতর আহত হন। হামলাকারীরা তাদেরকে মৃত ভেবে মাটিতে ফেলে চলে যায়। এসময় তাদের আর্তচিৎকারে আশপাশের লোকজন এসে তাদেরকে উদ্ধার করে সিলেট ওসমানী হাসপাতালে ভর্তি করেন। বর্তমানে তারা ঐ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।
এ ব্যাপারে মোগলাবাজার থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন হেলাল আহমেদর বোন মিনা বেগম।
মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মোগলাবাজার থানার এসআই ফজলু জানান, অভিযোগের ভিত্তিতে বিয়ষটি তদন্তাদিন আছে।