যুক্তরাষ্ট্র ও ভারতকে কড়া হুঁশিয়ারি চীনের – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

যুক্তরাষ্ট্র ও ভারতকে কড়া হুঁশিয়ারি চীনের

প্রকাশিত: ৮:২০ পূর্বাহ্ণ, জুলাই ৯, ২০১৬

যুক্তরাষ্ট্র ও ভারতকে কড়া হুঁশিয়ারি চীনের

in pic_134387বিতর্কিত দক্ষিণ চীন সাগর নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র এবং ভারতকে চরম হুঁশিয়ারি দিয়েছে বেইজিং। চীনের সরকারি দৈনিক পিপলস ডেইলি-র প্রতিবেদন অনুযায়ী, দক্ষিণ চীন সাগর নিয়ে প্রতিবেশী দেশগুলোর সঙ্গে বেইজিংয়ের বিরোধে নাক গলানোর চড়া মাশুল দিতে হবে যুক্তরাষ্ট্রকে।

এদিকে সম্প্রতি সাউথ ব্লককে দেয়া গোপন বার্তায় চীন বুঝিয়ে দিয়েছে, আন্তর্জাতিক আদালতের রায় যাই হোক না কেন, দক্ষিণ চীন সাগরে যুদ্ধজাহাজ পাঠানোর মত পদক্ষেপ তারা মেনে নেবে না। সাউথ ব্লককে এ কথাও মনে করিয়ে দেয়া হয়েছে যে ভারতের বেশ কিছু কূটনৈতিক এবং বাণিজ্যিক স্বার্থ এই মুহুর্তে বেজিংয়ের আদালতে রয়েছে।

উল্লেখ্য, বিতর্কিত দক্ষিণ চীন সাগর নিয়ে আগামী ১২ জুলাই হেগের আদালতে রায় শোনানো হবে।

মার্কিনীরা নাক গলানোর ফলে দ্বিপক্ষীয় এবং আঞ্চলিক- উভয় স্থিতিশীলতাই ঝুঁকির মুখে পড়েছে। ওয়াশিংটনের জানা উচিত, সব কিছুরই চূড়ান্ত সীমারেখা থাকে। সেই সীমারেখা অতিক্রম করলে তার মাশুল দিতে হয়।

পিপলস ডেইলি চিনের ক্ষমতাসীন কমিউনিস্ট পার্টির মুখপাত্র বলে পরিচিত। যার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, যুক্তরাষ্ট্র যদি পরিণতির কথা না ভেবেই চাপ ও হুমকি দেয়ার পথ বেছে নেয় তাহলে দক্ষিণ চীন সাগরে সম্ভাব্য উত্তেজনা আরো বাড়বে। ফলাফল খারাপ হলে সব দায় ওয়াশিংটনের উপরেই বর্তাবে।

সরকারিভাবে ভারত এর কোনও উত্তর এখনও দেয়নি। বিষয়টিকে অবশ্যই সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে দেখা হচ্ছে। ভারত-চীন সম্পর্ক এখন অত্যন্ত স্পর্শকাতর এবং সঙ্কটজনক পরিস্থিতির মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে।

পরমাণু সরবরাহকারী সংস্থা বা এনএসজি-তে প্রবেশের পথে ভারতের বাধা হয়ে দাঁড়িয়ে রয়েছে চীনের প্রাচীর। ভারতীয় শীর্ষ নেতৃত্ব মরিয়া হয়ে চেষ্টা চালাচ্ছে পরমাণু অস্ত্র সম্প্রসারণে নিজেদের সদর্থক ভূমিকাকে আন্তর্জাতিক মঞ্চে তুলে ধরতে এবং চীনকে বোঝাতে।

চীন গত তিন বছর ধরে দাবি করছে, দক্ষিণ চীন সাগরের সিংহভাগই তাদের নিজস্ব জলসীমা। দখলদারি সুনিশ্চিত করতে দক্ষিণ চীন সাগরের বিভিন্ন অংশে চীন কৃত্রিম দ্বীপও বানিয়েছে। কিন্তু যুক্তরাষ্ট্রসহ বিভিন্ন দেশ চীনের এই আগ্রাসনের বিরুদ্ধে সরব।

এদিকে, দক্ষিণ চীন সাগর এত দিন ধরে আন্তর্জাতিক জলপথ হিসেবেই স্বীকৃত। সেই অঞ্চলকে চীন নিজেদের এলাকা বলে দাবি করলেই তা মেনে নেয়া হবে না। সেই বার্তা চীনকে দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।

চীন-যুক্তরাষ্ট্রের পাল্টা-পাল্টি হুমকীর বিষয়টি ফিলিপাইন, ভিয়েতনাম এবং ভারতের নিরাপত্তার প্রশ্নে যথেষ্ট উদ্বেগের।

কিন্তু এই মুহূর্তে আন্তর্জাতিক আদালতের রায়ের আগে যথেষ্ট শঙ্কায় চীন। কূটনৈতিক বিশেষজ্ঞদের মতে ভারতকে এনএসজি-র লোভ দেখিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে নয়াদিল্লিকে পাশে পাওয়ার একটা প্রয়াস শুরু করেছেন চীনা কূটনীতিকেরা।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

ফেসবুকে সিলেটের দিনকাল