রকিব আহমদ’র আধিপত্য: শ্রমিকলীগ নেতার নেতৃত্বে দলিল লেখকদের উপর হামলা! আহত-১৫ – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

রকিব আহমদ’র আধিপত্য: শ্রমিকলীগ নেতার নেতৃত্বে দলিল লেখকদের উপর হামলা! আহত-১৫

প্রকাশিত: ১২:৪৪ অপরাহ্ণ, মে ১০, ২০১৬

রকিব আহমদ’র আধিপত্য: শ্রমিকলীগ নেতার নেতৃত্বে দলিল লেখকদের উপর হামলা! আহত-১৫

somik ligeসিলেট রেজিস্ট্রারি মাঠে হর্কার লীগ ও দলিল লেখকদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে। মঙ্গলবার বেলা ৪ টায় এ সংর্ঘষে ঘটনায় পুলিশ সদস্যসহ আহত হয়েছেন অন্তত ১৫ জন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ ৩২ রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুড়ে।
প্রত্যদর্শীরা জানান, গাড়ি পার্কিংয়ের জন্য কিছু জায়গার ছেড়ে দিতে হর্কারদের বলেন দলিল লেখক হাসনাত, ইমন ও রাজনসহ কয়েকজন দলিল লেখক। সরিয়ে নেওয়ার কথা বলার পরও সরিয়ে নেননি হর্কাস লীগের নেতারা পরে পৌঁণে ৪টার দিকে রেজিস্ট্রারি মাঠের পূর্ব পাশে বসা হর্কার মইন উদ্দিনের দোকানটি সরিয়ে নেওয়ার জন্য বলে। এতে তিনি রাজি না হয়ে সিলেট মহানগর হকার্স লীগের সহ সভাপতি রকিব আহমদ নেতৃত্বে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে দলিল লেখকদের উপর হামলা চালায় হর্কাস লীগ।
DSC_13 (25)এসময় পুলিশ নীরব ভূমিকা পালন করে পরে দলিল লেখকরা সঙ্গবদ্ধ হয়ে প্রতিবাদ জানানে এক পর্যায়ে পুলিশ গুলি চালায়। এসময় পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ৩২ রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুড়ে। সংঘর্ষে প্রতিপরে ছুড়া ইটপাটকেলের আঘাতে বন্দরবাজার ফাঁড়ি পুলিশ সদস্য রাজনসহ দু’পে অন্তত ১৫ জন আহত হন।
সিলেট মহানগর হকার্স লীগের সভাপতি সহ সভাপতি রকিব আহমদ বলেন, কয়েকজন দলিল লেখক মইন উদ্দিনের দোকান সরিয়ে নেওয়ার জন্য বলেন। আমরা তার প্রতিবাদ জানায় এক পর্যায়ে দলিল লেখক ও হকার্সদের মধ্যে আলাপকালেই কিছু উশৃঙ্খল হকার্সরা দলিল লেখকদের উপর হামলা চালায়।
DSC_0520বাংলাদেশ দলিল লেখক সমিতি সিলেট শাখার সভাপতি মামমদ আলী  ও সাধারণ সম্পাদক ময়নুল হক খান বলেন, গাড়ি পার্কিংয়ের জন্য কিছু জায়গার ছেড়ে দিতে হর্কারদের বললে তারা উত্তেজিত হয়ে অতর্কিত হামলা চালায় দলিল লেখকদের উপর। দলিল লেখক সমিতি তাদের উপর হামলার নিন্দা জানিয়ে বলেন শনিবারের মধ্যে হকার উচ্ছেদ এবং ঘটনার সুষ্ঠু বিচার না হলে সারাদেশে দলিল লেখা বন্ধ করে দেওয়া হবে।
এব্যাপারে সিলেট কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সুহেল আহমদ বলেন, একটি অস্থায়ী দোকান সরানো নিয়ে এ সংর্ঘষের ঘটনা ঘটেছে। তবে বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, সংঘর্ষ থামাতে পুলিশ ৩২ রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুড়েছে।
এদিকে মহানগর হর্কাস লীগের সহ সভাপতি রকিব আহমদ সাবেক মেয়র বদর উদ্দিন আহমদ কামরান ও জেলা শ্রমিক লীগের সভাপতি প্রকৌশলী এজাজুল হক এজাজের সহযোগিতায় নগরীর বিভিন্ন স্থানে অবৈধ ভাবে হর্কাসদের বসিয়ে চাঁদা বিনিময়ে ব্যবসা বসতে দেন।
রকিব আহমদ দলীয় নেতা কর্মী ও প্রশাসনকে টাকার বিনিময়ে হাত করে পূর নগরী অবৈধ ভাবে লিজ নিয়ে ফেলেছেন বলে দাবী করেন তৃণমূল হর্কাসরা। তারা জানান আওয়ামীলীগের শীর্ষ নেতাদের কথা বলে তার বাহিনী দিয়ে দৈনিক, সাপ্তাহিক ও মাসিক টাকা উত্তলন করেন রকিব আহমদ।
তার বিরুদ্ধে তদন্ত কালে আরো জানাযায় বিগত ৫ মার্চ বৃহস্পতিবার যথারীতি ভাসমান ব্যবসায়ীরা আগের মতো ডাকঘর’র সম্মুখে পসরা সাজিয়ে বসলে সিলেট জেলা শ্রমিক লীগের সভাপতি প্রকৌশলী এজাজুল হক এজাজ ও শ্রমিক লীগ নেতা মহানগর হর্কাস লীগের সহ-সভাপতি রকিব আহমদ হকারদের পুলিশ বাহিনী নিয়ে তুলে দেন। রোববার ভাসমান দোকান প্রতি ২০ হাজার টাকা ‘চুক্তি’ সম্পন্ন করে ডাকঘর’র সম্মুখ ভাগে ব্যবসা করার অনুমতি দেন মহানগর হকার সমিতির সভাপতি রকিব আহমদ। ফলে ভাসমান ব্যবসায়ীরা সোমবার থেকে পূণরায় প্রধান ডাকঘর’র সামনে পসরা সাজিয়ে ব্যবসা শুরু করে।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

ফেসবুকে সিলেটের দিনকাল