রিমান্ড দিলে আমি বাঁচব না, নাসিরের আকুতি – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

রিমান্ড দিলে আমি বাঁচব না, নাসিরের আকুতি

প্রকাশিত: ৬:৫৪ অপরাহ্ণ, জুন ২৩, ২০২১

রিমান্ড দিলে আমি বাঁচব না, নাসিরের আকুতি

সিলেটের দিনকাল ডেস্ক::
চিত্রনায়িকা পরীমনির ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টা মামলায় আবাসন ব্যবসায়ী নাসির উদ্দিন মাহমুদ ও নায়িকার বন্ধু তুহিন সিদ্দিকী অমিকে ১০ দিনের রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন করেছিলেন মামলা তদন্তকারী কর্মকর্তা।রিমান্ড শুনানিতে নাসির বলেন, করোনার আগে ৯ দিন আমি হাসপাতালে ভর্তি ছিলাম। আমাকে রিমান্ড দিলে আমি বাঁচব না। দয়া করে আমাকে জেলগেটে জিজ্ঞাসাবাদের নির্দেশ দিন।

বুধবার ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টার অভিযোগে সাভার থানায় চিত্রনায়িকা পরীমনির দায়ের করা মামলায় ঢাকার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট রাজিব হাসানের আদালতে রিমান্ড শুনানি হয়। পরে আদালত নাসির ও অমির ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

এসময় নাসির বলেন, ‘স্যার আমার বয়স ৬৫ বছর। আমি অ্যাজমাসহ বিভিন্ন রোগে ভুগছি। করোনার আগে ৯ দিন আমি হাসপাতালে ভর্তি ছিলাম। আমাকে রিমান্ড দিলে আমি বাঁচব না। আমি একজন সমাজসেবক। তাছাড়া আমি উত্তরা ক্লাবের সভাপতি ছিলাম। সাভার বোট ক্লাবের সদস্য। আমি কোনো ঝামেলায় ছিলাম না। কাইন্ডলি আমাকে জেলগেটে জিজ্ঞাসাবাদের নির্দেশ দিন।’

এর আগে মাদক মামলায় গ্রেফতার ব্যবসায়ী নাসির উদ্দিন মাহমুদ ও তুহিন সিদ্দিকী অমির জামিন নামঞ্জুর করেছেন আদালত।

আদালতের সংশ্লিষ্ট থানার সাধারণ নিবন্ধন কর্মকর্তা পুলিশের উপ-পরিদর্শক মাহমুদুর রহমান এ তথ্য গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন।

গত ৯ জুন মধ্যরাতে সাভারে অবস্থিত ঢাকা বোট ক্লাবে চিত্রনায়িকা পরীমনিকে ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টা করা হয় বলে তিনি অভিযোগ করেন।

ঘটনার চার দিন পর ১৩ জুন রাত ৮টার দিকে ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দিয়ে এবং রাত ১১টার দিকে সংবাদ সম্মেলন করে এ ঘটনা প্রকাশ করেন নায়িকা পরীমনি।

পরদিন ১৪ জুন সকালে ব্যবসায়ী নাসির উদ্দিন মাহমুদ ও অমিসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে সাভার থানায় মামলা করেন তিনি।

এদিন বিকালে উত্তরা থেকে নাসির ও অমিসহ পাঁচজনকে আটক করা হয়। এরপর ডিবির গুলশান জোনাল টিমের উপ-পরিদর্শক (এসআই) মানিক কুমার সিকদার বাদী হয়ে তাদের বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা করেন।

ওই মামলায় গত ১৫ জুন ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট নিভানা খায়ের জেসি নাসির ও অমির সাত দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

ওই মামলায় রিমান্ড শেষে আজ পরীমনির মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে নতুন করে আরও ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করা হলো আসামিদের বিরুদ্ধে।