শান্তির নগরী সিলেটকে এগিয়ে নিতে সকলকে কাজ করতে হবে: মেয়র আরিফ – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

শান্তির নগরী সিলেটকে এগিয়ে নিতে সকলকে কাজ করতে হবে: মেয়র আরিফ

প্রকাশিত: ১০:০৪ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ২৫, ২০২০

শান্তির নগরী সিলেটকে এগিয়ে নিতে সকলকে কাজ করতে হবে: মেয়র আরিফ

নিজস্ব প্রতিবেদক:
সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী বলেছেন, সুদূর অতীতে থেকেই সিলেট নগরী শান্তির নগরী হিসেবে সারাবিশ্বে পরিচিত। এই নগরীর মানুষ ধর্মীয় সম্প্রীতির অটুট বন্ধনে আবদ্ধ। শান্তির সিলেটে আমাদের এই সম্প্রীতি কেউ যাতে নষ্ট করতে না পারে, সে ব্যাপার সকলকে সতর্ক থাকতে হবে। এই নগরীরকে এগিয়ে নিতে সকলকে কাজ করতে হবে।

আধ্যাত্মিক সিলেট নগরী সুনাম অক্ষুণ্ন রাখার মাধ্যমে নগরীকে সুন্দর মডেল নগরীর হিসেবে গড়ে তুলতে তিনি সকলের সহযোগিতা কামনা করেন। তিনি রামকৃষ্ণ মিশনের উদ্যোগে প্রতি বছর যে শিক্ষা বৃত্তি প্রদান করে যে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে, তা অব্যাহত রাখতে প্রতিবছর সিলেট সিটি কর্পোরেশনের পক্ষ থেকে ১ লক্ষ টাকা অনুদান ঘোষণা করেন। তিনি শিক্ষার্থীদের মাদক ও মোবাইল আসক্তি থেকে দূর থেকে পড়লেখায় মনোযোগ হওয়ার আহবান জানান।

মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী মঙ্গলবার ২৫ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যায় ভগবান শ্রীরামকৃষ্ণ পরমহংসদেবের ১৮৫তম আবির্ভাব তিথি ও বার্ষিক উৎসব উপলক্ষে সিলেট রামকৃষ্ণ মিশন আশ্রমে ৪ দিনব্যাপী ব্যাপক অনুষ্ঠানমালার ১ম দিনে ‘রামকৃষ্ণ মিশনের সেবাধর্ম’ শীর্ষক আলোচনা সভা ও শিক্ষা বৃত্তি প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরোক্ত কথাগুলো বলেন।

সিলেট রামকৃষ্ণ মিশন আশ্রমের সম্পাদক স্বামী চন্দ্রনাথানন্দজী মহারাজ স্বাগত বক্তব্যের মধ্যে সূচিত আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন আশ্রমের সভাপতি অধ্যাপক বিজিত কুমার দে। অরুপ বিজয় চৌধুরীর পরিচালনায় আলোচনায় অংশ গ্রহণ করেন সিলেট জেলা প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি আজিজ আহমদ সেলিম, প্রকৌশলী সুধাময় দেব, ডাঃ কল্লোল বিজয় কর, বিকাশ রঞ্জন বিশ্বাস, স্বামী পরমপদানন্দ। অনুষ্ঠানে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন সিলেট রামকৃষ্ণ মিশন আশ্রম পরিচালনা কমিটির সদস্য পান্না লাল রায়।

অনুষ্ঠানে ১০টি উচ্চ বিদ্যালয়ের ৪০ জন, এম.সি কলেজের ১০ জন ও বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ১৭ জন মোট ৬৭ জন শিক্ষার্থীদের মধ্যে প্রত্যেককে নগদ ৩ হাজার টাকা করে মোট ২ লক্ষ ১ হাজার টাকা শিক্ষা বৃত্তি প্রদান করেন প্রধান অতিথি মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী সহ অতিথিবৃন্দ। পরে রাত ৮টায় বিশেষ সঙ্গীতানুষ্ঠানে অংশ গ্রহণ করেন প্রিয়াংকা রায়, স্বপ্নীলা চৌধুরী, সুস্মিতা চৌধুরী, ঐশী বর্ধন, পারমিতা বিশ্বাস, মুমু চৌধুরী।

এর আগে মঙ্গলবার ভোর ৫টায় মঙ্গলারতি ও স্তোত্র পাঠ, সকাল ৭টায় শ্রীরামকৃষ্ণ লীলা প্রসঙ্গ, গীতা ও চণ্ডীপাঠ, সকাল ৮টায় ঠাকুরের বিশেষ পূজা, হোম ও পরে মহোৎসব। সকাল সাড়ে ১০টায় আলোকিত কথামৃত পাঠচক্র, করেরপাড়া সিলেটের অংশগ্রহণে সঙ্গীতাঞ্জলি। বেলা সাড়ে ১১টায় শ্রীদেবল দেব সিলেটের পরিবেশনায় লীলা কীর্ত্তন, দুপুর ২টায় শ্রীপঙ্কজ দেব গোয়ালাবাজার ওসমানীনগরের পরিচালনায় বাউল গান, বিকেল সাড়ে ৩টায় অনুর্ধ ১২ বছরের শিশু কিশোরদের সঙ্গীত ও আবৃত্তি। বিকাল সাড়ে ৪টায় শ্রী সুবিনয় রায়ের পরিবেশনায় সঙ্গীতালেখ্য অনুষ্ঠিত হয়।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •