শিক্ষামন্ত্রীর দলীয় পদ প্রাপ্তিতেও অভিনন্দন জানিয়ে শিক্ষাবোর্ডের তোরণ! – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

শিক্ষামন্ত্রীর দলীয় পদ প্রাপ্তিতেও অভিনন্দন জানিয়ে শিক্ষাবোর্ডের তোরণ!

প্রকাশিত: ১:৫৮ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ১২, ২০১৬

শিক্ষামন্ত্রীর দলীয় পদ প্রাপ্তিতেও অভিনন্দন জানিয়ে শিক্ষাবোর্ডের তোরণ!

নিজস্ব প্রতিবেদক:: আওয়ামী লীগের সর্বশেষ কাউন্সিলে দলের সর্বোচ্চ নীতি নির্ধারণী ফোরাম সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মনোনীত হয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। সিলেটের এই নেতা আওয়ামী লীগের শীর্ষ ফোরামের পদ পাওয়ায় সিলেটের দলীয় নেতাকর্মীরা স্বভাবতই উচ্ছ্বসিত।

দলের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য হওয়ার পর বুধবার প্রথম নিজ শহরে আসেন সিলেট-৬ (গোলাপগঞ্জ-বিয়ানীবাজার) আসনের এই সাংসদ। এ উপলক্ষে নাহিদকে অভিনন্দন জানিয়ে সিলেটের নগরীর বিভিন্ন সড়কে বেশ কয়েকটি তোরণ নির্মাণ করেন আওয়ামী লীগ ও অঙ্গসংগঠনের নেতারা। জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকেও তোরণ নির্মাণ করা হয়। একইসঙ্গে সিলেট শিক্ষাবোর্ডও নুরুল ইসলাম নাহিদ আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য মনোনীত হওয়ায় অভিনন্দন জানিয়ে তোরণ নির্মাণ করে।

দলীয় পদ পাওয়ায় একটি সরকারী প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে তোরণ নির্মাণ করে অভিনন্দন জানানোর সমালোচনা করেছেন অনেকে। নাহিদকে অভিনন্দন জানিয়ে শিক্ষাবোর্ডের তোরণের ছবিটি ফেসবুকে তুলে দিয়ে এর সমালোচনা করা হয়।

আজিজুল ইসলাম শামীম নামের একজন ফেসবুক ব্যবহারকারী লিখেছেন- ‘সরকারী কর্মকর্তারা কোন নেতার রাজনৈতিক প্রমোশনে বাকুম-বাকুম করতে পারে না। এটা নীতি বিবর্জিত, গর্হিত ও বেআইনি। শিক্ষাবোর্ড মাননীয় মন্ত্রীকে স্বাগত জানাতে পারে মার্জিতভাবে, কিন্তু, তোরণ এসব কী?’

ইকরামুল হক নামের আরেকজন ফেসবুকে লিখেছেন, ‘সরকারের মন্ত্রী হলে আরো ১০ গেট দিলেও সমস্যা না কিন্তু দলের পদ পাওয়ায় এমন অভিনন্দন জানানো কিছুটা চাটুকারিতা বটে।’

নগরী ঘুরে দেখা গেছে, কেবল সিলেট শিক্ষাবোর্ডই নয় বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকেও নাহিদ আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য মনোনীত হওয়ায় অভিনন্দন জানিয়ে তোরণ নির্মাণ করেছে। এরমধ্যে সিলেট সরকারী অগ্রগামী বালিকা বিদ্যালয়ও রয়েছে।

এ ব্যাপারে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে সচেতন নাগরিক কমিটি, সিলেটের সভাপতি ফারুক মাহমুদ চৌধুরী বলেন, এটা সম্পূর্ণ অনৈতিক। সরকারী প্রতিষ্ঠান রাষ্ট্রের অর্থে চলে। তাঁরা শিক্ষামন্ত্রীকে অভিনন্দন জানাতেই পারেন। কিন্তু কেউ দলীয় পদ পেলে অভিনন্দন জানিয়ে তোরণ নির্মাণ করতে পারেন না।

ফারুক মাহমুদ আরও বলেন, শিক্ষামন্ত্রী যদি এসব অনৈতিক কাজ সমর্থন না করে থাকেন তাহলে আশাকরি যারা তোরণ নির্মাণ করেছেন তাদের বিরুদ্ধে তিনি ব্যবস্থাগ্রহণ করবেন।

দলীয় পদ পাওয়ার পর বুধবার সিলেটে এসে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ দলীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। এসময় দলীয় নেতাকর্মীদের পক্ষ থেকে তাকে অভিনন্দিত করা হয়। নিজ এলাকায় সংবর্ধনাও দেওয়া হয় এই নেতাকে।