শুকনো খাবার নিয়ে নগরবাসীর পাশে সিলেট সিটি করপোরেশনের ভারপ্রাপ্ত মেয়র তৌফিক বক্স লিপন(ভিডিও)

প্রকাশিত: ১০:০৭ অপরাহ্ণ, মে ১৭, ২০২২

শুকনো খাবার নিয়ে নগরবাসীর পাশে সিলেট সিটি করপোরেশনের ভারপ্রাপ্ত মেয়র তৌফিক বক্স লিপন(ভিডিও)

শুকনো খাবার নিয়ে নগরবাসীর পাশে সিলেট সিটি করপোরেশনের ভারপ্রাপ্ত মেয়র তৌফিক বক্স লিপন(ভিডিও)
বন্যাকবলিত সিলেট নগরীতে খোলা হলো ১৬টি আশ্রয়কেন্দ্র

নিজস্ব প্রতিবেদক

টানা বৃষ্টিপাত ও উজান থেকে নেমে আসা পানিতে সিলেট নগরীর বেশকিছু এলাকায় জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। নগরীর বর্ধিত এলাকা ও নিম্নাঞ্চলে এমন দৃশ্য দেখা গেছে। পানিবন্দী পরিবারগুলোর মাঝে খাদ্য ও বিশুদ্ধ পানির সংকট দেখা দিয়েছে। ফলে নগরবাসীর দুর্ভোগ বেড়েই চলেছে। নগরবাসীর পাশে শুকনো খাবার নিয়ে সিলেট সিটি করপোরেশনের ভারপ্রাপ্ত মেয়র তৌফিক বক্স লিপন।

এমন পরিস্থিতিতে নগরীর ৭টি ওয়ার্ডে ১৬টি আশ্রয়কেন্দ্র চালু করেছে সিটি কর্পোরেশন। সেগুলো হচ্ছে- ১৫ নং ওয়ার্ডের মিরাবাজারস্থ কিশোরী মোহন বালক উচ্চ বিদ্যালয়, ১৪ নং ওয়ার্ডের চালিবন্দর রামকৃঞ্চ উচ্চবিদ্যালয় ও চালিবন্দর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ২৩ নং ওয়ার্ডের মাছিমপুরস্থ আব্দুল হামিদ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ২৪ নং ওয়ার্ডের বুরহান উদ্দীন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, শাহজালাল উপশহরস্থ তেররতন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ১৩ নং ওয়ার্ডের মির্জাজাঙ্গালস্থ বালিকা উচ্চবিদ্যালয়, কাজিরবাজার স্কুল, মনিপুরি রাজবাড়ি আশ্রয়কেন্দ্র ও মাছুদিঘীর, ১০ নং ওয়ার্ডের ঘাসিটুলা স্কুল, ইউনিসেফ স্কুল, কানিশাইল স্কুল, জালালাবাদ স্কুল, বেতের বাজার কাউন্সিলয়ের চতুর্থ তলা বিল্ডিং এবং ২৭ নং ওয়ার্ডের হবিনন্দি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়।

জানা গেছে, সোমবার (১৬ মে) গভীর রাত থেকে সিলেট নগরীতে পরিস্থিতির অবনতি হতে থাকে। সুরমা ও কুশিয়ারাসহ কয়েকটি নদীর পানি দ্রুত বৃদ্ধি পেয়ে নগরীর তলিয়ে গেছে নগরীর নিম্নাঞ্চল।

মঙ্গলবার (১৭ মে) ভোরে সরেজমিনে দেখা যায়, সিলেট নগরীর বেশ কয়েকটি ওয়ার্ডের বাসিন্দারা পানিবন্দী হয়ে পড়েছেন। কোনো কোনো বাসাবাড়িতে হাটু বা কোমর পরিমাণ পানি প্রবেশ করেছে। পানিবন্দী অবস্থায় রয়েছেন হাজার হাজার মানুষ।

বিভিন্ন সড়ক পানির নিজে তলিয়ে গিয়ে যানবাহন চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়ায় সকালে অফিসগামীদের পড়তে হয় চরম ভোগান্তিতে। সিলেট নগরীর সোবহানীঘাট, তালতলা, পাঠানটুলা, বাগবাড়ি, সুবিদবাজার, জিন্দাবাজারসহ গুরুত্বপূর্ণ কিছু সড়কে জলাবদ্ধতার চিত্র দেখা গেছে।

নগরীর নিচু এলাকা, পাড়া-মহল্লা-গলি, বস্তি ও বাসা-বাড়িতে পরিবার-পরিজন নিয়ে চরম বিপাকে পড়েছেন এলাকাবাসী। অনেকেই বাড়িতে রান্না করতে পারছেন না। বিশুদ্ধ পানি ও শুকনো খাবারেরও তীব্র সংকট দেখা দিয়েছে। এতে সবচেয়ে বেশি বিপাকে পড়েছে শিশু ও বৃদ্ধরা।

এদিকে সিলেট সিটি কর্পোরেশন সূত্রমতে, নগরীর ৭টি ওয়ার্ডে খোলা ১৬টি কেন্দ্রে ইতোমধ্যে বেশ কিছু পরিবার আশ্রয় নিয়েছে।

সিলেট সিটি কর্পোরেশনের ভারপ্রাপ্ত মেয়র তৌফিক বক্স লিপন জানান, সিলেট নগরীতে ১৬টি বন্যা আশ্রয়ণ কেন্দ্র খোলা হয়েছে। এসব পরিবারের মাঝে বিকালে শুকনো খাবার বিতরণ করা হয়েছে। প্রয়োজনীয় সেবা তারা পাবেন।

 

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

ফেসবুকে সিলেটের দিনকাল