সড়ক, সেতু দখল করে যানবাহনের স্ট্যান্ড – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

সড়ক, সেতু দখল করে যানবাহনের স্ট্যান্ড

প্রকাশিত: ৬:০২ পূর্বাহ্ণ, জুলাই ১৯, ২০১৬

সড়ক, সেতু দখল করে যানবাহনের স্ট্যান্ড

3b2a1f8589c7e0d716efe9e1a58ac0cb-99_DHARAMPASHA-PIC-17.07সুনামগঞ্জের ধরমপাশা উপজেলা সদরে যানবাহনের কোনো স্থায়ী স্ট্যান্ড নেই। ফলে তিনটি সড়কের বিভিন্ন স্থান ও একটি সেতুর একাংশ দখল করে অস্থায়ী স্ট্যান্ড গড়ে উঠেছে। যত্রতত্র যানবাহন রাখায় একদিকে যানজট লেগে থাকে। অন্যদিকে পথচারীদের অবর্ণনীয় দুর্ভোগ পোহাতে হয়।এলাকাবাসী ও উপজেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, উপজেলা সদরের ধরমপাশা-মধ্যনগর সড়কের ত্রিমুখী মোড়ে লেগুনা, ভটভটি, ইজিবাইক, মোটরসাইকেল ও রিকশার স্ট্যান্ড গড়ে তোলা হয়েছে। একইভাবে উপজেলা পরিষদের সামনে ধরমপাশা-জয়শ্রী সড়কে ভটভটিস্ট্যান্ড ও একই সড়কের ফিউচার লিডার কিন্ডারগার্টেনের সামনে মোটরসাইকেলের স্ট্যান্ড, ধরমপাশা থানার অদূরে ধরমপাশা-বারহাট্টা সড়কে লেগুনা ও অটোরিকশার স্ট্যান্ড এবং কংস সেতুর একাংশ দখল করে ভটভটি, ইজিবাইক, মোটরসাইকেল ও রিকশার স্ট্যান্ড গড়ে উঠেছে। প্রায় তিন বছর ধরে এসব অবৈধ স্ট্যান্ডে যানবাহন রাখা হচ্ছে।যত্রতত্র যানবাহন রাখায় এসব এলাকায় প্রায়ই যানজটের সৃষ্টি হয়। সড়কে চলাচলের পথ সংকুচিত হয়ে পড়ায় পথচারী ও যানবাহন চলাচলে বিঘ্ন ঘটছে। বিশেষ করে ধরমপাশা জনতা মডেল উচ্চবিদ্যালয়, ধরমপাশা বালিকা উচ্চবিদ্যালয়, ধরমপাশা ডিগ্রি কলেজ, ফিউচার লিডার কিন্ডারগার্টেনসহ কয়েকটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের ঝুঁকি নিয়ে সড়কে চলাচল করতে হচ্ছে। অনেক সময় ঘটছে দুর্ঘটনা।‘আমরা ধরমপাশাবাসী’ নামের একটি সামাজিক সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক চয়ন কান্তি দাস বলেন, কর্তৃপক্ষের নজরদারির অভাবে উপজেলা সদরে একের পর এক অস্থায়ী স্ট্যান্ড গড়ে উঠছে। সমস্যা সমাধানের উদ্যোগ না নেওয়া হলে ভবিষ্যতে এসব স্ট্যান্ড নাগরিক জীবনের জন্য অভিশাপ হয়ে দাঁড়াবে।তবে বিভিন্ন যানবাহনের অন্তত ২০ জন চালক বলেন, নির্ধারিত স্ট্যান্ড না থাকায় তাঁরা সড়ক ও সেতুর ওপরেই যানবাহন রাখতে বাধ্য হচ্ছেন। স্থায়ী স্ট্যান্ডের জন্য তাঁরা উপজেলা প্রশাসন, রাজনৈতিক নেতা ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের কাছে একাধিকবার ধরনা দিলেও কোনো কাজ হয়নি।ধরমপাশা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. গোলাম কিবরিয়া বলেন, নির্ধারিত স্ট্যান্ড না থাকায় এসব অস্থায়ী স্ট্যান্ডের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া যাচ্ছে না।উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোহাম্মদ নাজমুল হক বলেন, যানবাহনের স্ট্যান্ড নির্মাণের জন্য কোনো খাসজমি নেই। ব্যক্তিগতভাবে কেউ জমি দিতে আগ্রহী হলে সেই জায়গায় স্ট্যান্ড গড়ে তুলতে সহযোগিতা করবে প্রশাসন।
উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবদুল মোতালিব খান বলেন, উপজেলা প্রশাসন, রাজনৈতিক নেতা, জনপ্রতিনিধি ও এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিদের নিয়ে শিগগিরই সভা করে সমস্যা সমাধানের উদ্যোগ নেওয়া হবে।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

ফেসবুকে সিলেটের দিনকাল