সফল ও জনবান্ধব চেয়ারম্যান আফছর – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

সফল ও জনবান্ধব চেয়ারম্যান আফছর

প্রকাশিত: ৯:৪১ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ২৪, ২০২০

সফল ও জনবান্ধব চেয়ারম্যান আফছর

নিজস্ব প্রতিবেদক:
আটটি ইউনিয়ন পরিষদ নিয়ে গঠিত সিলেটের সদর উপজেলা। এর মধ্যে ৪নং খাদিমপাড়া সদর ইউনিয়ন পরিষদটি অন্যতম। এ ইউনিয়নে জনগণের দেয়া বিপুল ভোটের ব্যবধানে ইউপি চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছিলেন তারুণ্যদীপ্ত মেধাবী ছাত্রনেতা খাদিমপাড়াবাসীর প্রিয়মুখ এডভোকেট আফছর আহমদ। তিনি নির্বাচিত হওয়ার পর থেকেই ইউপি সদস্য-সদস্যাদের সার্বিক সহযোগিতা, দিক-নির্দেশনায় সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে সরকার ঘোষিত প্রতিটি কার্যক্রম ইউনিয়ন ও এলাকার উন্নয়নে সফলভাবে সম্পাদন করে আসছেন। জনসেবা প্রদানের মাধ্যমে এলাকায় সফল ও জনবান্ধব চেয়ারম্যান হিসেবে অধিষ্ঠিত হয়েছেন।

ইউনিয়নের প্রত্যেকটি ওয়ার্ডের সর্বস্তরের জনসাধারণ দলীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে রয়েছে তার সু সম্পর্ক। তিনি খাদিমপাড়াড় উন্নয়নে ইউনিয়ন বাসী সহ সকলের দোয়া, সহযোগিতা ও পরামর্শ চেয়েছেন সফল এ চেয়ারম্যান। স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতামূলক কাজ করে দলমত নির্বিশেষে তিনি সর্ববৃতহ এই ইউনিয়ন মধ্যে আস্থা অর্জন করেছেন।

এছাড়াও খাদিমপাড়া ইউনিয়ন পরিষদে বরাদ্দকৃত টিআর, কাবিখা-টাবিখা, কর্মসৃজন প্রকল্প, এলজিএসপি, ওয়ান পারসেন্ট, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে বেঞ্চ, কমিউনিটি ক্লিনিকে ফ্যান, চেয়ার, আলমারি, অবহেলিত রাস্তাঘাট সংস্কার ও জলাবদ্ধতা দূরীকরণে ব্রীজ ও কালভার্ট নির্মাণে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতার পরিচয় দিয়েছেন। উন্নয়ন পাগল, জনগণের আস্থাভাজন পরিশ্রমী বিচক্ষণ চেয়ারম্যান এডভোকেট আফছর আহমদ খাদিমপাড়াবাসীর সার্বিক উন্নয়নে নিজেকে উৎসর্গ করতে চান।

খাদিমপাড়াড় রাজনৈতিক নেতা, ব্যবসায়ী, স্থানীয়রা জানান, বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিক, এক সময়ের তুখোড় ছাত্রনেতা সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক উপজেলার খাদিমপাড়া ইউনিয়নের উন্নয়নে ও মানুষের কল্যাণে ব্যাপকভাবে কাজ করে চলছেন। দীর্ঘদিন পর স্বচ্ছ ভাবমূর্তি ও ক্লিন ইমেজের চেয়ারম্যান পেয়েছেন ইউনিয়নবাসী। নাগরিক সেবা ও উন্নয়নের প্রত্যাশায় ভোটাররা আবারও পরিবর্তনের পক্ষে রায় দিবেন। তিনি ইউনিয়নকে আধুনিক ও মডেল ইউনিয়ন পরিষদ হিসেবে গড়ে তুলতে কাজ করে চলেছেন।

জনগণের প্রত্যাশা পূরণে ইউনিয়নের চেয়ারম্যান দায়িত্ব গ্রহণের পর থেকেই ইউনিয়নের সকল অসংগতি দূরসহ নাগরিক অধিকার অগ্রাধিকার ভিত্তিতে বাস্তবায়ন করে চলেছেন। বিশেষ করে কর্মসূচী প্রকল্প, কাবিখা-টাবিখাসহ সকল উন্নয়নমূলক প্রকল্পগুলো ইউনিয়নের ইউপি সদস্য ও সদস্যাদের আন্তরিক সহযোগিতা নিয়ে বাস্তবায়ন করছেন। উন্নয়নমূলক কর্মকান্ডগুলো সবসময় তদারকি করে চলেছেন। সততা, যোগ্য নেতৃত্ব ও উন্নয়নমূলক কাজে অবদান রাখায় ইতোমধ্যে সদর উপজেলার মধ্যে তরুণ জনপ্রতিনিধি হিসেবে ইউনিয়ন বাসীসহ সর্বমহলের মনিকোঠায় স্থান করে নিয়েছেন।

আজ তিনি ইউনিয়নে বিভিন্ন স্থানে উন্নয়ন কর্মকান্ড পরিদর্শনকালে চেয়ারম্যান এডভোকেট আফছর আহমদ বলেন, আমি খাদিমপাড়ার সন্তান। কারো ভাই, কারো বন্ধু, কারো ভাতিজা-ভাগিনা। আমি চেয়ারম্যান নির্বাচিত হবার পর থেকেই ইউনিয়ন পরিষদের বরাদ্দ ও বিশেষ করে সিলেটের কৃতি সন্তান সাবেক অর্থ মন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত ও বর্তমান পররাষ্ট্রমন্ত্রী মন্ত্রী সিলেট ১ আসনের সংসদসদস্য ড.এ কে আব্দুল মোমেনের আন্তরিকতা ও সহযোগিতায় সর্ব ক্ষেত্রে বেপক উন্নয়ন করে যাচ্ছি। আমি ছাত্র থেকেই জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শের রাজনীতি সঙ্গে সম্পৃক্ত।

আওয়ামী লীগের চরম দুঃসময়ে বিএনপি জামায়াত জোট সরকারের সময়ে দলের দূর্দিনে সংগঠনকে সুসংগঠিত করা জোট সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলন করতে হামলা, মামলা নির্যাতনের শিকার হয়েছি। তবু কখনো পিছুপা হইনি। নানা প্রতিকূলতার মধ্যেদিয়ে আমি মানুষের সেবা করে যাচ্ছি। চেয়ারম্যান আরও বলেন, নির্বাচনে প্রতিশ্রুতি ছিল মডেল ইউনিয়ন করব। এ লক্ষ্যেই বিভিন্ন প্রকল্প হাতে নিয়ে কাজ করছি। স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করে সদর উপজেলার মধ্যে খাদিমপাড়া ইউনিয়নকে একটি আদর্শ ও মডেল ইউনিয়নে রূপান্তরিত করতে কাজ করছি।

এ ইউনিয়নে থাকবে না কোন বাল্যবিবাহ, ইভটিজিং, মাদক জোয়া এমনকি জঙ্গীবাদ। ইউনিয়নটিতে শিক্ষা ব্যবস্থা, স্বাস্থ্যসেবা থেকে শুরু করে সরকার ঘোষিত সকল প্রকার সুবিধাদি পাচ্ছেন ইউনিয়নে বসবাসকৃত সর্বসাধারণ। আমি সারাজীবন ইউনিয়নবাসীর কল্যাণে ও উন্নয়নে কাজ করতে চাই। সবার সহযোগিতা নিয়ে খাদিমপাড়া ইউনিয়নকে একটি মডেল ইউনিয়ন হিসেবে গড়ে তুলতে চাই। পাশাপাশি তনি অতিথের মত ইউনিয়নের উন্নয়নে সকলের দোয়া ও সহযোগিতা কামনা করেন সফল এ চেয়ারম্যান।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

ফেসবুকে সিলেটের দিনকাল