সরকার বিচারবিভাগকে নিয়ন্ত্রণে নেয়ার চেষ্টা করছে : এমাজউদ্দীন – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

সরকার বিচারবিভাগকে নিয়ন্ত্রণে নেয়ার চেষ্টা করছে : এমাজউদ্দীন

প্রকাশিত: ১২:১৫ অপরাহ্ণ, মে ৭, ২০১৬

সরকার বিচারবিভাগকে নিয়ন্ত্রণে নেয়ার চেষ্টা করছে : এমাজউদ্দীন

dinkale photoসংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী প্রসঙ্গে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সাবেক ভিসি ড. এমাজউদ্দীন আহমেদ বলেছেন, সরকার বিচার বিভাগকে নিজেদের নিয়ন্ত্রণে নেয়ার ষড়যন্ত্র করছে। গতকাল শুক্রবার দুপুরে রাজধানীর ফটো জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশন মিলনায়তনে দিগন্ত টেলিভিশন আয়োজিত এক  প্রতিবাদী সংহতি সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন। দিগন্ত টেলিভিশনের সাময়িক সম্প্রচার নিষেধাজ্ঞার আঁধার দুঃসহ ৩ বছর শীর্ষক এ সম্মেলন এমাজউদ্দীন বলেন, ‘সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী হাইকোর্টর ঘোষণা বিচারবিভাগকে সংসদের নিয়ন্ত্রণ নেয়ার  প্রচেষ্টা চলছে। পৃথিবীর ইতিহাসে কোনো দেশে এরকম ঘটনা ঘটেনি। : সরকারকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, সংবিধানের কতগুলো মৌলিক বিষয় আপনারা পরিবর্তনের চেষ্টা করছেন। আপনাদের শুভবুদ্ধির উদয় হোক। যে কয়েক দিন ক্ষমতায় আছেন সাধারণ মানুষের জন্য কাজ করুন। কারণ জনগণের জন্য কাজ করলেই দেশে শান্তি ফিরে আসবে।অবিলম্বে নিজেদের সংশোধন করুন। এমাজউদ্দীন বলেন, সরকার ষড়যন্ত্রমূলকভাবে একজন সম্মানিত ব্যক্তিকে কারাগারে নেয়ার  প্রচেষ্টা করছে। এই ঘটনা অগ্রহণযোগ্য। ওসমান ফারুকের বিরুদ্ধে যুদ্ধাপরাধীর যে মিথ্যা অভিযোগ আনা হয়েছে তার তীব্র নিন্দা ও  প্রতিবাদ জানান তিনি। মুক্ত চিন্তার চর্চা ও সংবাদের স্বাধানীতা যেখানে বন্ধ। মানবতা যেখানে অনুপস্থিত সেখানে গণতন্ত্র থাকে না বলে মন্তব্য করেন এমাজউদ্দীন আহমেদ। সরকার ক্ষমতাকে ধরে রাখতে ও নিজেদের হাতকে শক্তি করতে গণমাধ্যমগুলো একের পর এক বন্ধ করছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি। : গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র্রের প্রতিষ্ঠাতা ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেছেন, বিএনপির কাউন্সিল হয়েছে। কাউন্সিল অধিবেশনে কমিটি গঠনে চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে ক্ষমতা  প্রদান করেন কাউন্সিলররা। সেখানে কত তাঁবেদার, কত দিকে তদবির? সবাই দাবি করছে, তারা মাঠে ছিল। নেতারা মাঠে থাকলে বর্তমান সরকার আসলো কী করে? ডা. জাফরুলাহ চৌধুরী বলেন, শুনলাম, বিকল্পধারা বাংলাদেশের সভাপতি অধ্যাপক ডা. একিউএম বদরুদ্দোজা চৌধুরী ও এলডিপির সভাপতি কর্নেল (অব.) ড. অলি আহমদ পুনরায় বিএনপিতে ফিরে যাচ্ছেন। এটি হলে খুবই ভাল হয়। বর্তমান পরিস্থিতিতে যত বিরোধী দল একত্রিত হয়ে সম্মিলিত আন্দোলন করবে, ততই মঙ্গল। সিপিবি নেতাদের উদ্দেশে তিনি বলেন, আপনারা আওয়ামী লীগের লেজুড় আর কতদিন ধরে থাকবেন? বিএনপি থেকে আওয়ামী লীগ একটু ভাল, এই তথ্য ছাড়ুন। বিএনপিকে এখনো দেশের সবচেয়ে বড় রাজনৈতিক দল উল্লেখ করে দলটির রাজনীতির পরামর্শক ও সমালোচক এ বুদ্ধিজীবী বলেন, রাজনীতিতে পরিবর্তন আনতে হলে বেগম খালেদা জিয়াকে একটি পরিষ্কার ঘোষণা দিয়ে আসতে হবে। সে দিগন্তের মতো একাত্তর টিভিকে বন্ধ করে দেবে না। আমরা চাইব, শত ফুল ফুটুক। : দিগন্ত টিভির নির্বাহী পরিচালক মাহমুদুল আলমের সভাপতিত্বে আরো বক্তব্য রাখেন-লেখক ও কলামিস্ট ফরহাদ মজহার, দৈনিক নয়া দিগন্তের সম্পাদক আলমগীর মহিউদ্দীন, নির্বাহী সম্পাদক মাসুদ মজুমদার, সম্মিলিত পেশাজীবী পরিষদের ভারপ্রাপ্ত আহ্বায়ক সাংবাদিক রুহুল আমিন গাজী, বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের মহাসচিব এম আব্দুল্লাহ, সাবেক মহাসচিব এম এ আজিজ, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি কবি আব্দুল হাই শিকদার, মহাসচিব জাহাঙ্গীর আলম প্রধান, বিএনপির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক শহীদুল ইসলাম বাবুল প্রমুখ।