সাইড দেয়া নিয়ে এএসপির শ্যালককে পিটুনি, এএসআই ক্লোজড – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

সাইড দেয়া নিয়ে এএসপির শ্যালককে পিটুনি, এএসআই ক্লোজড

প্রকাশিত: ৫:৫৫ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ২৪, ২০১৮

সাইড দেয়া নিয়ে এএসপির শ্যালককে পিটুনি, এএসআই ক্লোজড

চুয়াডাঙ্গায় এক সহকারী পুলিশ সুপারের (এএসপি) নিকট আত্মীয়কে মারধর করায় সদর থানার সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) তুহিনকে চাকরি থেকে সাময়িক অব্যাহতি দিয়ে পুলিশ লাইনে ক্লোজড করা হয়েছে।

শুক্রবার রাতে তাকে ক্লোজড করার পাশাপাশি তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়।

কমিটির প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন সহকারী পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) তরিকুল ইসলাম।

জানা গেছে, চুয়াডাঙ্গা জেলা পুলিশের এএসপি (হেডকোয়ার্টার) আহসান হাবিবের স্ত্রীসহ শ্বশুরবাড়ির আত্মীয়রা বসবাস করেন ফার্মপাড়ায়। স্ত্রী তার ভাই মিঠুসহ চারজন শুক্রবার রাত আনুমানিক সাড়ে ৮টার দিকে ফার্মপাড়ায় রেললাইনের পাশ ঘেষে হাঁটছিলেন।

এসময় পেছন থেকে সদর থানার এএসআই তুহিন মোটরসাইকেল নিয়ে যাওয়ার সময় হর্ন বাজান। তখন একেকজন একেক দিকে সরে গিয়ে সাইড দেন।

সাইড দিতে মিঠুর (২৪) কিছুটা বিলম্ব হয়। এএসআই মোটরসাইকেল থেকে নেমে মিঠুকে সাইড দিতে বিলম্ব হয়েছে কেন জানতে চেয়ে তাকে চড় দেন।

এসময় এএসপির স্ত্রীসহ অন্যরা নিজেদের পরিচয় দিয়ে সাদা পোশাকে থাকা এএসআই তুহিনের আচরণের প্রতিবাদ জানান। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে মিঠুকে মারধরের মাত্রা বাড়িয়ে দেন তুহিন। একই সঙ্গে এএসআই তুহিন পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা সম্পর্কে আপত্তিকর মন্তব্য করেন বলেও অভিযোগ উঠেছে।

এএসপি আহসান হাবীব তার পদস্থ কর্মকর্তাকে বিষয়টি জানান। তাৎক্ষণিক এএসআই তুহিনকে তার দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দিয়ে পুলিশ লাইনে ক্লোজড করা হয়। গঠন করা হয় তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি।

এএসআই তুহিনকে ক্লোজড এবং তদন্ত কমিটি গঠনের বিষয়টি নিশ্চিত করে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবদুল মোমেন বলেন, অভিযোগ প্রমাণিত হলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।