সাফল্যকে আমরা কিভাবে চিনতে পারি – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

সাফল্যকে আমরা কিভাবে চিনতে পারি

প্রকাশিত: ৯:৫৩ অপরাহ্ণ, মার্চ ২, ২০২১

সাফল্যকে আমরা কিভাবে চিনতে পারি

 

লেখক: মুকুল হক :আমরা যখন কোন “সফল” ব্যক্তির কথা বলি, তখন আমরা সাধারণত তাঁদের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে কয়েক বিলিয়নের কথা বলি কিংবা এমন কেউ পুরো জাতির দায়িত্বে থাকেন, তাঁদের কথা বলি।

হাঁ আজ আমি কথা বলছি, না পুরো জাতির দায়িত্বে কিংবা ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে বিলিয়ন টাকা নয় বলছি আমাদের বাড়ির পরিচারক ইনসানের কথা ( পাঁচটি ঘরের দায়িত্বে-পাঁচটি ঘরের সবাই বিদেশে বসবাস করছেন)।

আমার কাছে ইনসান দায়িত্বশীল, কর্মঠ, সুচিন্তাশীল। তাঁর প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষাগত যোগ্যতা তেমন নেই ( শিক্ষাগত যোগ্যতা থাকলে অনেক দূর এগিয়ে যেত) কিন্ত তাঁর স্থিরতা, চিন্তায়, কথায়, আচার আচরনে সে খুব স্মার্ট।

আমাদের বাড়ির এবং গ্রামের প্রত্যেকের সাথে রয়েছে তাঁর সংযোগ। দেখেছি আমার মায়ের শিরনীর সময় তাঁর সত্যবাদিতা, সুশৃঙ্খল, ইতিবাচক মনোভাব, নেটওয়ার্কিং, মিতব্যয়িতা আর সত্যকে যেন অবলম্বন করে চলেছে তাঁর পথ চলা।

আসলেই সত্যবাদিতা জীবনের স্বরূপ বিকশিত করে। ইনসান নিজের কষ্টের উপার্জিত টাকা দিয়ে ১৫ শতক জায়গার উপর ওর গ্রামের বাড়িতে তৈরী করছে ইটের তৈরী-ব্রিক বিল্ডিং। খুব ইচ্ছে ছিল ওর বাড়িতে যাওয়ার কিন্ত সময় আমার বিরুদ্ধে থাকায় ওর বাড়িতে যাওয়া হয়নি। যাই হউক, শুনে আমি খুবই খুশি হয়েছি আর গর্বে ওর জন্য আমার বুক ভরে উঠছিল। গ্রামে ও হচ্ছে এখন talk of the town, একজনতো বলেই ফেললো “আপনার বাড়িতেই এমন বিল্ডিং নেই, যে বিল্ডিংটি ও বানাচ্ছে”। আমি খুবই খুশি, ও স্বচ্ছন্দে এগিয়ে যাক।

 

গত দু-সপ্তাহ আগে কথা হচ্ছিল ওর সাথে, “বললো মাত্র ১২ বছর বয়েসে আমাদের বাড়িতে এসেছে, সন্তানরা পড়াশোনা করছে স্কুল ও কলেজে, বললো সন্তানরা পড়াশোনায় খুবই ভালো করছে”। কথা প্রসঙ্গে বললাম, তোমার একটা ছবি নেই? নেন ভাই।

আসলে ইনসানকে দেখলে মনে হয় সত্যিকারের সাফল্য “আপনি কতটুকু খুশি এবং কতজন লোক সত্যিকারভাবে আপনাকে ভালবাসে”।