সারা বিশ্বে বিলুপ্তির পথে জোনাকি পোকা – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

সারা বিশ্বে বিলুপ্তির পথে জোনাকি পোকা

প্রকাশিত: ৪:১৭ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ১০, ২০২০

সারা বিশ্বে বিলুপ্তির পথে জোনাকি পোকা

সিলেটের দিনকাল ডেস্ক:

জোনাকি পোকা নিয়ে আমাদের আগ্রহের শেষ নেই। সাহিত্যে জোনাকি পোকা দিয়ে কত উপমা! জ্বলজ্বল করার ক্ষমতা জোনাকি পোকাকে করেছে অনন্য। জোনাকির এই স্বপ্রভ ক্ষমতা বিজ্ঞানীদেরও আকৃষ্ট করেছে। বিজ্ঞানে এই বিষয়টিকে সাধারণভাবে বলা হয় জৈবপ্রভা (Bio luminescence)।

জোনাকি পোকার আলো তৈরির ক্রিয়াকৌশল (mechanism) নিয়ে গবেষণা হয়েছে এবং হচ্ছে। এরই মধ্যে অবশ্য এর মূল রসায়নটা জানা গেছে। সহজ করে ব্যাখ্যা করলে বিষয়টা দাঁড়ায় এমন-জোনাকি পোকার কোষে লুসিফেরিন (luciferin) নামের অণু থাকে। সেই অণু, অক্সিজেনের সংস্পর্শে এসে অক্সিলুসিফেরিন নামের একটি অণু তৈরি করে। লুসিফেরিন থেকে অক্সিলুসিফেরিন (oxyluciferin) রূপান্তরের বিক্রিয়ায় সাহায্য করে একটি এনজাইম। এনজাইমটির নাম লুসিফিরেজ (enzyme luciferase)। প্রকৃতিতে শক্তির বহুমাত্রায় রূপান্তর সম্ভব। আমার যে জোনাকের আলো দেখি তা মূলত এই রাসায়নিক বিক্রিয়া থেকে উৎপন্ন শক্তি (hv)।

জোনাকি, সমগ্র প্রক্রিয়াটি খুব নিখুঁতভাবে নিয়ন্ত্রণ করতে সক্ষম। প্রকৃতি, প্রাণীদের মধ্যে অসম্ভব সুন্দর বৈচিত্র্য ছড়িয়ে রেখেছে। দারুণ বিষয় হলো এই আলোকশক্তি বৈদ্যুতিক আলোকশক্তির মতো নয়। ফলে প্রচুর তাপশক্তি উৎপন্ন হয় না এবং জোনাকি প্রচণ্ড তাপ অনুভব করে না। প্রকৃতিতে এমন ঘটনা বিরল নয়। আমরা ফসফরাস নামের একটি মৌলের নাম জানি। ফসফরাসের আদি নাম ছিল Icy noctiluca—Cold night light। বিশুদ্ধ ফসফরাস বাতাসের সংস্পর্শে জ্বলে ওঠে এবং প্রচুর আলো তৈরি হয়।

কিন্তু পুরো প্রক্রিয়াটিকে একটি কাচের জারে নিয়ে যদি করা হয়, তাহলে কাচের জারটি দুই হাতের তালুতে ধরে রাখা যায়। কারণ, জারটি খুব গরম হয় না বরং কিছুট ঠান্ডা হয়ে যায়। সকল তরঙ্গদৈর্ঘ্যের শক্তি, তাপশক্তি উৎপন্ন করে না। জোনাকির কোষে রাসায়নিক বিক্রিয়ায় উৎপন্ন শক্তি ঠিক সুনির্দিষ্ট তরঙ্গদৈর্ঘ্যের, যেটি আলোকশক্তিতে রূপান্তরিত হতে পারে কিন্তু তাপশক্তিতে নয়। অনন্য বৈশিষ্ট্য ছাড়া কি আর এত চমৎকার রসায়ন হয়!

তবে বর্তমানে কীটনাশকের ব্যবহার, আবাসস্থল হারানো এবং কৃত্রিম আলোর কারণে প্রায় ২ হাজার প্রজাতির জোনাকি যে কোনো সময় বিলুপ্ত হয়ে যেতে পারে। জীবনচক্র পূরণের জন্য সুনির্দিষ্ট আবহাওয়া প্রয়োজন জোনাকিদের। জার্নাল বায়োসায়েন্সে এ তথ্য জানিয়েছেন টাফটস বিশ্ববিদ্যালয়ের জীববিজ্ঞানের প্রফেসর সারা লিউস।মালেয়শিয়ান জোনাকি হচ্ছে সমন্বিত আলোক বিচ্ছুরনের জন্য বিখ্যাত। তাদের প্রজননের জন্য ম্যানগ্রোভ বনভূমি অত্যন্ত জরুরি। অথচ এই বনভূমিগু’লো পরিণত হয়েছে পম বাগানে। কৃত্রিম আলো আরেকটি বড় সমস্যা। জোনাকি টিকে থাকা নিয়ে

এটি দ্বিতীয় সর্বোচ্চ হুমকি। এদিকে মালেয়শিয়া, তাইওয়ান ও জাপানের মতো দেশগু’লোয় ইদানিং বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে জোনাকি পর্যটন। প্রতিবছর প্রায় ২ লাখ পর্যটক সংগৃহীত এসব জোনাকির তৈরি আলো দেখতে যাচ্ছেন। সংখ্যা কমে যাওয়ার এটিও একটি বড় কারণ বলে জানা গেছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •