সিলেটেও বিস্তৃত ছিল শাহেদ করিমের প্রতারণার জাল – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

সিলেটেও বিস্তৃত ছিল শাহেদ করিমের প্রতারণার জাল

প্রকাশিত: ৫:৫৮ অপরাহ্ণ, জুলাই ২০, ২০২০

সিলেটেও বিস্তৃত ছিল শাহেদ করিমের প্রতারণার জাল

নিজস্ব প্রতিবেদক

সিলেটেও বিস্তৃত ছিল প্রতারক শাহেদ করিমের প্রতারণার জাল। সিলেটে পাথর ব্যবসায়ী শামসুল মাওলার কাছ থেকে পাথর নিয়েও টাকা দেয়নি। ওই পাথর ব্যবসায়ীর টাকা আত্মসাৎ করতে ঢাকায় বসে নানা ঘটনার জন্ম দিয়েছে সে। ধরা পড়ার পর ওই পাথর ব্যবসায়ী ঢাকায় গিয়ে বিচারপ্রার্থী হয়েছেন। তবে- তার প্রতারণার কৌশল আঁচ করতে পেরে সিলেটের প্রেস ব্যবসায়ী মঈনুল হক মঈন ফাঁদে পা দেননি। শাহেদ করিম গ্রেপ্তার হওয়ার পর ওই ব্যবসায়ী নিজের ফেসবুক আইডিতে শাহেদ করিমের প্রতারণা কৌশলের বিষয়টি তুলে ধরেছেন। সিলেটি জামাই প্রতারক শাহেদ করিম। বিয়ের পর শাশুড়ির সঙ্গে করেছে প্রতারণা। শাহেদ গ্রেপ্তার হওয়ার পর তার প্রতারণার কাহিনী সিলেটেও আলোচিত হচ্ছে। বিগত সিটি করপোরেশন নির্বাচনে নৌকার পক্ষে প্রচারণা চালাতে শাহেদ এসেছিল সিলেটে। আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে বসে ছবিও তুলেছেন। গ্রেপ্তার হওয়ার পর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সিলেটে এসব ছবি ভাইরাল হয়েছে। এ নিয়েও হয়েছে আলোচনা-সমালোচনা। গ্রেপ্তারের পর প্রতারণার একাধিক ঘটনা প্রকাশ হওয়ার পর জানা যায়- সিলেটেও ছিল শাহেদের প্রতারণার নেটওয়ার্ক। সে বিভিন্ন সময় সিলেটে এসেছে। এবং নানাভাবে সিলেটের মানুষকেও প্রতারিত করার চেষ্টা চালায়। এর মধ্যে তার প্রতারণার ফাঁদে পা দিয়ে সব হারিয়েছেন জাফলংয়ের পাথর ব্যবসায়ী শামসুল মাওলা। তার বাড়ি জৈন্তাপুর উপজেলার দরবস্ত এলাকায়। তবে- তিনি পাথর ব্যবসা করেন জাফলংয়ে। পরিচিত ব্যবসায়ী হওয়ার কারণে সবার কাছে পরিচিত তিনি। প্রায় ৬ মাস আগে পাথর ব্যবসাকে কেন্দ্র করে শাহেদের সঙ্গে পরিচয় হয় শামসুল মাওলার। এরপর শাহেদ তার কাছ থেকে প্রায় ৩০ লাখ টাকার পাথর নেয়। সেই টাকা ফেরত না দিয়ে নানা টালবাহানা করে। পাথর ব্যবসায়ী শামসুল মাওলা গতকাল বিকালে মানবজমিনকে জানিয়েছেন- শাহেদ নিজেকে প্রধানমন্ত্রীর এপিএস পরিচয় দিয়েছিল। সহজ সরল কথা বলে তার কাছ থেকে পাথর নিয়েছে। কিন্তু পাথরের বিনিময়ে যে চেক দিয়েছে সেই চেক ব্যাংক থেকে রিটার্ন চলে আসে। অ্যাকাউন্টে টাকা না থাকায় চেক পাস হয়নি। এসব বিষয় নিয়ে তিনি ঢাকায় গিয়ে জিডি করলে তাকে প্রাণনাশের হুমকি দেয়া হয়। এরপর তিনি সিলেটে ফিরে প্রতারক শাহেদকে আসামি করে তিনটি চেক ডিজঅনার মামলা করেন। সিলেটের আদালতে এই তিন মামলা চলমান রয়েছে। তিনি জানান- মামলা হলেও তাকে পুলিশ গ্রেপ্তার করেনি কিংবা আইনগত ব্যবস্থা নেয়নি। উল্টো মামলা তুলে নিতে তাকে একের পর এক হুমকি দিচ্ছিল। বর্তমানে টাকার জন্য পাওনাদারদের যন্ত্রণায় ফেরারি জীবন কাটাচ্ছেন বলে জানান। এখন টাকা পেতে তিনি দুয়ারে দুয়ারে ঘুরছেন। টাকার জন্য তার মেয়ের বিয়ে পর্যন্ত দেয়া হয়নি বলে জানান তিনি। শামসুল মাওলা শাহেদের প্রতারণায় পা দিলেও সিলেটের প্রেস ব্যবসায়ী মঈনুল হক মঈন প্রতারণার বিষয়টি আগেই বুঝেছিলেন। এ কারণে তিনি অগ্রিম টাকা দিয়ে প্রেস সংক্রান্ত ছাপার কাজে আগ্রহ দেখাননি। শাহেদ গ্রেপ্তার হওয়ার পর তার নিজের ফেসবুক আইডিতে তুলে ধরেছেন সেই ঘটনা। জিন্দাবাজারের গ্রাফিক্স ডিজাইনের স্বত্বাধিকারী মঈন ঘটনার বিবরণে ‘শাহেদের সঙ্গে যাপিত দু’দিনের স্মৃতি’ সম্পর্কে লিখেছেন- ‘লগো বসিয়ে কলাম দিয়ে একটি পেজ কাজ নিয়ে এক দুপুরে জিন্দাবাজারে আমাদের প্রতিষ্ঠানে নন সিলেটি এক ভদ্রলোক আসেন। কথাবার্তায় তাকে উচ্চশিক্ষিত মনে হলো। তখনকার আমার গ্রাফিক্স ডিজাইনার অতি অল্প সময়ে চাহিদা মাফিক কাজ করে প্রিন্ট দিয়ে দেয়। তখন ভদ্রলোক বলেন যে, কোম্পানির কাজে সিলেট এসে তিনি মনে করছিলেন হয়তো দেশের বাইরে অবস্থান করছেন অর্থাৎ সিলেটের আঞ্চলিক ভাষার সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে তার কষ্ট হচ্ছিল। আমাদের সঙ্গে কথা বলে তিনি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করছেন। কাজ শেষে তিনি ১০০ টাকা দিয়ে দেন; যা ছিল আমাদের চাহিদা থেকে সামান্য বেশি। আমরা তাকে চা পান করালাম। চা পানের সঙ্গে করে তিনি চার রঙা ইংরেজি একটি ম্যাগাজিন বের করে ছাপার হিসাব জানতে চান। অতঃপর ম্যাগাজিন ছাপার ব্যাপারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়ার লক্ষ্যে তিনি সশরীরে ঢাকার উত্তরায় অবস্থিত তাদের অফিসে যেতে প্রস্তাব করেন। তিনি আমার একটি ভিজিটিং কার্ড নিয়ে ওই দিনের মতো চলে যান।’ স্ট্যাটার্সে তিনি জানান- ‘পরদিন ঢাকা গিয়ে তিনি ফোন করেন। বসের সঙ্গে আমাদের সার্ভিস নিয়ে কথা বলেছেন। বস অত্যন্ত সন্তুষ্ট। তিনি আমাকে উত্তরায় চা পানের দাওয়াত করেছেন। তাই দু’দিন পর আমি ট্রেনযোগে বিমানবন্দর রেলওয়ে স্টেশনে পৌঁছে ভদ্রলোককে কল করি। তিনি সঙ্গে সঙ্গে স্টেশনে এসে আমাকে রিসিভ করে তাদের অফিসে নিয়ে যান। ভদ্রলোক অফিসের একটু দূরে থাকতেই বসকে কল করেন। বস (শাহেদ) আমাকে রিসিভ করতে বের হন। অতি সম্মানের সঙ্গে আমাকে বসতে দিয়ে দুঃখ প্রকাশ করেন যে, অফিসের সবার ছুটি হয়ে গেছে। আগামীকাল সকালে আমার সঙ্গে ম্যাগাজিন নিয়ে অফিসের চুক্তি হবে। চা পানের পর আমি তার কাছে ওই দিনের জন্য বিদায় চেয়ে উঠে পড়ি।’ শাহেদের প্রতারণার কৌশল তুলে ধরে ব্যবসায়ী উল্লেখ করেন- ‘পর দিন সকালে ওই ভদ্রলোক আমার হোটেল রুমে এসে আমাকে নিয়ে উত্তরার অফিসে যান। বস (শাহেদ) আমার জন্য নাস্তার ব্যবস্থা করেন। একসঙ্গে দু’জন বসে নাস্তা করি। নাস্তা সার্ভ করা মেয়েটিকে মনে হচ্ছিল চিত্র জগতের কোনো নায়িকা। নাস্তার ফাঁকে তিনি বলেন যে, সাড়ে তিন লাখের সঙ্গে আরো ৫০ হাজার টাকা যুক্ত করে চার লাখ টাকার বিল বানাতে হবে। ৫০ হাজার টাকা তার নিজের। বিদেশি দু’জন ডোনার আসবে। ম্যাগাজিন সম্পর্কে তাদের সঙ্গে আমাকে কথা বলে চুক্তি ফাইনাল করতে হবে। ডোনারের একজন হলেন বোম্বের অধিবাসী, তার সঙ্গে হিন্দিতে; অন্যজন কুয়ালালামপুরের, তার সঙ্গে ইংরেজিতে কথা বলতে হবে। ছয় বা সাত বছর পূর্বে ২০০৪ সনে আমি কুয়ালালামপুর সফর করেছিলাম। এত লম্বা আকৃতি এবং চেহারা দেখে লোকটিকে মালয়েশিয়ান বলে মনে হচ্ছে না। মালয়েশিয়ান মানুষ সাধারণত এত লম্বা হয় না আর তাদের মুখের গঠন সাধারণত আমাদের সিলেটি মণিপুরীদের সঙ্গে সাদৃশ্যপূর্ণ। লোকটিকে কুয়ালালামপুর সম্পর্কে কিছু প্রশ্ন করে স্পষ্ট জবাব পাইনি। অবশ্য বোম্বের লোকটির সঙ্গে হিন্দিতে কথা বলে মোটামুটি সন্তোষজনক জবাব পাই। সবার জন্য দুপুরের খানা আসে। একটু টক স্বাদের পোড়া গোশত অনেক দিন পর খেলাম; যা আরবি শেখেরা খেয়ে থাকে। সবাই মিলে দুপুরের খানা খাওয়ার পর ম্যাগাজিন নিয়ে এফোর সাইজের একটি সাদা কাগজে চুক্তিপত্র হয়। চুক্তির মূল কপি আমার কাছে এবং ফটোকপি তাদের অফিসে রাখা হয়। অবশ্য শাহেদের তখনকার নামটি ভুলে গেছি। এই শাহেদ সাহেব আমাকে অনুরোধ করলেন, তিন দিন পর ক্যাশ পঞ্চাশ হাজার টাকা নিয়ে তার অফিসে যেতে। ওই দিন তিনি কোম্পানির এক লাখ টাকার চেকের সঙ্গে ছাপার অর্ডারটি আমাকে বুঝিয়ে দেবেন।’ স্ট্যাটাসের শেষ অংশে ব্যবসায়ী মঈন জানান- ‘বিকাল ৩টায় সিলেটগামী ট্রেনে আমাকে উঠিয়ে দেয়া হয়। ট্রেনে বসে দু’দিনের যাবতীয় বিষয়াবলী আদ্যোপান্ত হিসাবনিকাশ করে ঢাকা ট্যুরকে লস প্রজেক্ট মনে করে সব কিছু মন থেকে বাদ দিয়ে দেই। তিন দিন পর আমার মোবাইলে বেশ কয়েকটি কল আসলেও আমি অর্ডারটি রিসিভ করতে আগ্রহী নই বলে জানিয়ে দেই। আজ ২০২০ সালে এসে সিলেটি পাথর ব্যবসায়ী হাজী সাহেবের ৩০ লাখ টাকা চেকের ঘটনাটি শুনে নিজেকে ভাগ্যবান মনে হচ্ছে।’