সিলেটের বেসরকারি দুটি হাসপাতালে কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগিরা চিকিৎসা নিতে পারবেন – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

সিলেটের বেসরকারি দুটি হাসপাতালে কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগিরা চিকিৎসা নিতে পারবেন

প্রকাশিত: ৩:৫৬ অপরাহ্ণ, জুন ৮, ২০২০

সিলেটের বেসরকারি দুটি হাসপাতালে কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগিরা চিকিৎসা নিতে পারবেন

কোনো রোগি যাতে চিকিৎসাবিহীন ফেরত না যায় সেদিকে আমাদের সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিতে হবে

নিজস্ব প্রতিবেদক
সিলেটের নর্থইস্ট মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও মাউন্ট এডোরা হাসপাতালে কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগিরা চিকিৎসা নিতে পারবেন। কোনো বেসরকারি হাসপাতালে যাতে রোগি চিকিৎসাবিহীন ফেরত না যায় সেদিকে সংশ্লিষ্ট হাসপাতালগুলোকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিতে হবে।
সোমবার (৮ জুন) দুপুরে নগরীর একটি প্রাইভেট হাসপাতালে এক সংবাদ সম্মেলনে সিলেট প্রাইভেট হসপিটাল এন্ড ডায়গনস্টিক সেন্টার এসোসিয়েশনের নেতৃবৃন্দ এ তথ্য জানান।
সিলেটে গত সপ্তাহে তিনজন রোগির অনাকাঙ্খিত মৃত্যুতে নেতৃবৃন্দ শোক প্রকাশ করে নিহতদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করে শোকার্ত পরিবারের প্রতিও সমবেদনা জানান তারা।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে সিলেট প্রাইভেট হসপিটাল এন্ড ডায়গনস্টিক সেন্টার এসোসিয়েশন নেতৃবৃন্দ কোভিড-১৯ সহ অতি সংক্রমনশীল ব্যাধির চিকিৎসার উদ্ভূত পরিস্থিতি নিয়ে বলেন, বিভিন্ন সীমাবদ্ধতাসহ চিকিৎসা সেবা নিয়ে তাদের বক্তব্য তুলে ধরেন। নেতৃবৃন্দ বলেন, আমরা রোগিদের চিকিৎসায় আন্তরিক। পেশাগত কারণে আমরা মনে করি সেবক হিসেবে যেকোনো রোগির জীবন বাঁচাতে চিকিৎসা সেবা দেওয়া আমাদের কর্তব্য। বর্তমান পরিস্থিতিতে কোনো রোগি যাতে চিকিৎসা সেবা না পেয়ে ফেরত না যায়, সেদিকে আমাদের সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিতে হবে। সরকারিভাবে গত ২৮ মে যে সার্কুলেশন অনুযায়ী আমাদের কাছে যে নির্দেশনা এসেছে তাতে যেসব বেসরকারি হাসপাতালে ৫০টি বেডের ঊর্ধ্বে রয়েছে তারাই কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগিদের চিকিৎসা দিতে হবে।
কোভিড-১৯সহ অতি সংক্রমনশীল ব্যাধির চিকিৎসার জন্য জরুরি বিভাগের পাশে ৪টি বেডের আলাদা আইসোলেশন সেন্টার রাখতে হবে। প্রত্যেক বেসরকারি হাসপাতালে কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগি গেলে তাদেরকে প্রয়োজনে এম্বুলেন্স ও অক্সিজেনসহ সংশ্লিষ্ট হাসপাতালে পাঠাতে হতে হবে।
তারা বলেন, কোভিড-১৯সহ অতি সংক্রমনশীল ব্যাধির চিকিৎসার জন্য আমাদের বেসরকারি হাসপাতালগুলোর অবকাঠামো প্রস্তুত নয়। প্রতিটি হাসপাতালে রোগি প্রবেশ ও নির্গমনের পথ একটি। ফলে সকলেরই আক্রান্ত হবার ঝুঁকি সর্বাধিক। একই হাসপাতালে কোভিড ও নন কোভিড রোগিদের চিকিৎসা চালু রাখলে নন কোভিডদের সংক্রমণের ঝুঁকি থাকে। এছাড়া হাসপাতালগুলোর আশেপাশের স্থানীয় জনগণ অসহযোগিতা এমনকি বাধাও প্রদান করেন। এসব প্রতিকূলতা মোকাবেলা করে সুষ্ঠু চিকিৎসা সেবা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে করোনা পরিস্থিতিতে একেবারে শুরু থেকে আমরা সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র, বিভাগীয় ও জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন ও স্বাস্থ্য বিভাগের সমন্বয়ে বারবার সভা করি। আমাদের সভার প্রেক্ষিতে নর্থইস্ট মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালকে সম্পূর্ণভাবে কোভিড-১৯ চিকিৎসার জন্য নিবেদিত করার প্রস্তাব পাঠানো হয়। প্রশাসনের আন্তরিকতা ও মেয়রের প্রচেষ্টা সত্বেও উপরোক্ত প্রস্তাব চূড়ান্ত অনুমোদন লাভ করেনি।
নেতৃবৃন্ত বলেন, ঢাকার অনেকগুলো ও চট্টগ্রামের ২টি বড় বেসরকারি হাসপাতাল এবং ৮টি পিসিআর ল্যাব অনুমোদন পাওয়ার পরও সন্তোষজনক চিকিৎসা সেবা প্রদানে হিমশিম খাচ্ছে। এ রকম সীমাবদ্ধতা সত্ত্বেও গত ৭ জুন সিলেট প্রাইভেট হসপিটাল এন্ড ডায়গনস্টিক সেন্টার এসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে এক জরুরি সভা আহবান করে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয় যে, সিলেটের নর্থইস্ট মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল এবং মাউন্ট এডোরা হাসপাতাল (আখালিয়া) কোভিড-১৯ চিকিৎসার জন্য আলাদাভাবে নির্ধারিত করা হয়েছে। আক্রান্ত ও সন্দেহজনক রোগিদের সরকারি হাসপাতালের পাশাপাশি এ দুটো হাসপাতালে যোগাযোগ করার জন্য অনুরোধ জানান নেতৃবৃন্দ। এছাড়া এই দুটি হাসপাতাল ব্যতিত অন্য কোনো বেসরকারি হাসপাতালে এসব রোগি গেলে তাদেরকে আইসোলেশন সেন্টারে রেখে অক্সিজেন ও জরুরি ওষুধ দেয়াসহ সার্বিক সহযোগিতার মাধ্যমে রোগির মনোনিত কোভিড-১৯ হাসপাতালে পাঠানোর ব্যবস্থা করতে হবে। প্রয়োজনে এম্বুলেন্স ও অক্সিজেন সহায়তা প্রদান করতে হবে। অত্যন্ত ঝুকিপূর্ণ বিধায় স্বাস্থ্যকর্মীদের উচ্চ বেতন, সুরক্ষা সামগ্রী ও অন্যান্য সুবিধা নিশ্চিত করতে হয় বলে বেসরকারি পর্যায়ে কোভিড-১৯ কিচিৎসা ব্যয়বহুল। এজন্য আমরা সরকারি সুবিধাপ্রাপ্ত হাসপাতালে চিকিৎসা নেয়ার উৎসাহ প্রদান করছি। চূড়ান্ত অনুমোদনের অপেক্ষায় দোদূল্যমান অবস্থায় থাকায় কোভিড-১৯ মোকাবেলায় বেসরকারি হাসপাতালের অবকাঠামো প্রস্তুতি ও জনবল ব্যবস্থাপনায় সংগত কারনেই কিছুটা সময় ক্ষেপন হয়েছে। এছাড়া আমাদের প্রত্যাশা ছিল অনুমোদন পেলে ৬০০ শয্যার নর্থইস্ট মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল বিনামূল্যে এই ব্যয়বহুল চিকিৎসা প্রদান করা সম্ভব হবে। এই অনুমোদনের অপেক্ষায় সময় ক্ষেপন হয়েছে। কোভিড মোকাবেলায় কর্তব্যরত চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীদের প্রণোদনা ও সুরক্ষা সামগ্রী সর্বরাহ করার জন্য সরকারের কাছে বিশেষ সহযোগিতার অনুরোধ জানান নেতৃবৃন্দ।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন সিলেট প্রাইভেট হসপিটাল এন্ড ডায়গনস্টিক সেন্টার এসোসিয়েশনের সভাপতি ডা. নাসিম আহমদ। এ সময় উপস্থিত ছিলেন সাধারণ সম্পাদক ডা. মো. আজিজুর রহমান রোমান, কোষাধ্যক্ষ জাকির আহমদ চৌধুরী ও স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ সিলেট শাখার আহবায়ক ডা. মুজিবুল হক।