সিলেটের সন্তান ফরহাদের ইউটিউবে স্বপ্নপূরণের গল্প – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

সিলেটের সন্তান ফরহাদের ইউটিউবে স্বপ্নপূরণের গল্প

প্রকাশিত: ১২:২১ পূর্বাহ্ণ, এপ্রিল ২৭, ২০২১

সিলেটের সন্তান ফরহাদের ইউটিউবে স্বপ্নপূরণের গল্প

অনলাইন ডেস্ক ::
পর্যটন নগরী সিলেটের হয়ে ইউটিউবে প্রতিনিধিত্ব করছে ফরহাদ হাসান। সে সিলেট সরকারি কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্র। তিনি একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ সিরাজ মিয়ার ছেলে ফরহাদ। ২০১৬ সালের ২৯ এপ্রিল থেকে শুরু হয় তাঁর ইউটিউবে পদার্পণ। ইউটিউব কিং তৌহিদ আফ্রিদিকে দেখেই সে অনুপ্রাণিত হন। ফরহাদ তার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

তার ইউটিউব চ্যানেলের নাম Tiner Ghor (www.youtube.com/c/ Tiner Ghor

ফানি ভিডিও, শটফিল্ম এবং মাদক,জুয়া নিয়ে কাজ করতে বিশেষ আগ্রহ। মাত্র ২০টি ভিডিও আপলোড হলেও হাজারো ভক্তের ভালবাসায় ইতমধ্যে তার চ্যানেলে দেড় হাজার সাবস্ক্রাইবার পূর্ণ হয়েছে। প্রথম দিকে বেশি সাড়া না পেলেও ২০১৯ সালে তিনি সাবস্ক্রাইবদের মন জয় করতে শুরু করেন।

তারঁ প্রিয় শখ ইউটিউবিং। এটিকে পেশা হিসেবেও নেয়ার কথা ভাবছে ফরহাদ। অন্যদিকে সে ক্রিকেট খেলতে ও দেখতে ভালবাসেন। পর্যটন নগরী সিলেটের হয়ে প্রতিনিধিত্ব করে ইউটিউব চ্যানেলকে তুলে ধরা বিশেষ উদ্দেশ্য তাঁর। এ সফলতার জন্যে সে তার ইউটিউব পরিবারের সদস্যদের কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

ফরহাদ জানালেন, একজন ইউটিবার হিসেবে স্বপ্ন পূরণের যাত্রিক হওয়ার পেছনে সর্ব প্রথম তার বাবা ও মার কাছ থেকে সাপোর্ট পান।এবং টিম মেম্বার দের নিয়ে তার এতটুকু পথচলা। এর পেছনে আরো একজনের কথা জানালেন ফরহাদ। বাংলাদেশের সেরা একজন ইউটিউব স্টার তৌহিদ আফ্রিদি অবদান আজীবন চিরস্মরনীয় করে রেখেছি।

প্রসংগত, তাঁর যখন মাত্র ১০২ জন সাবস্ক্রাইবার তখন সে বিভিন্ন কারণে হতাশায় ভোগে এক পর্যায়ে ইউটিউব ছেড়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। কিন্তু তাঁরপর বন্ধুদের সহযোগিতায় ক্যামেরা ও প্রয়োজনীয় জিনিস পত্র সংগ্রহ করে আবার শুরু করেন ইউটিউবের কাজ।তৈরি করেন বিভিন্ন পেইজ। পাশিপাশি তৈরি করেন সিলেটি নাটক এবং সিলট নগরী নিয়ে বিভিন্ন প্রতিবেদন। আস্তে আস্তে কিছু সফলতার মুখ দেখেন তিনি।

সিলেট শাহীঈদগাহ বসবাস করেন তিনি। ইউটিউবার হওয়ার স্বপ্নের কথা! জানতে চাইলে ফরহাদ বলেন,আমি মধ্যবিত্ত পরিবারের ছেলে শুরুতে কঠিন সময় ছিলোও আমার। ক্যামেরা বা প্রয়োজনীয় জিনিস পত্র ছিলোও না মোবাইল দিয়ে কাজ করতাম। আস্তে আস্তে কিছু বন্ধুদের নিয়ে ইউটিউব চ্যানেল শুরু করি। অনেক কষ্টের পড়ে ২০১৯ সালে সফলতার মুখ দেখতে পাই।এখনোও যুব সমাজ নিয়ে কাজ করে যাচ্ছি। শিক্ষানীয় ভিডিও তৈরি করছি।

ফেসবুকে সিলেটের দিনকাল