সিলেটে অটোরিকশাযাত্রীর পকেট থেকে ৭০ হাজার টাকা উধাও – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

সিলেটে অটোরিকশাযাত্রীর পকেট থেকে ৭০ হাজার টাকা উধাও

প্রকাশিত: ৪:১২ অপরাহ্ণ, মে ৬, ২০২১

সিলেটে অটোরিকশাযাত্রীর পকেট থেকে ৭০ হাজার টাকা উধাও

নিজস্ব প্রতিবেদক :: সিলেটে সিএনজি অটোরিকশাযাত্রী এক যুবকের পকেট থেকে ৭০ হাজার টাকা চুরির ঘটনা ঘটেছে। অটোরিকশার অন্যান্য যাত্রী ও চালক এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত বলে ওই যুবকের অভিযোগ।

ঘটনাটি বৃহস্পতিবার (৬ মে) সকাল সোয়া ১১টার দিকে নগরীর আম্বরখানা থেকে বন্দরবাজার আসার পথে এ ঘটনা ঘটে। এর আগে সকাল ১১টায় আম্বরখানার ইউনিয়ন ব্যাংকের শাখা থেকে ৭০ হাজার টাকা উত্তোলন করেন ওই যুবক।

জানা গেছে, সিলেট নগরীর ওরিয়েন্টাল শপিং সেন্টারে অবস্থিত মেসার্স সোমা এয়ার সার্ভিস নামক ট্রাভেল এজেন্সির কর্মচারী আব্দুল জাব্বার ক্লায়েন্টের দেয়া চেক দিয়ে বৃহস্পতিবার সকাল ১১টার দিকে আম্বরখানার ইউনিয়ন ব্যাংকের শাখা থেকে ৭০ হাজার টাকা উত্তোলন করেন। সে টাকা তিনি তার প্যান্টের ডান পকেটে রেখে আম্বরখানা পয়েন্ট থেকে বন্দরবাজার আসার উদ্দেশে একটি সিএনজি অটোরিকশায় উঠেন। সে অটোরিকশায় আগে থেকেই পেছেন দুজন এবং সামনে একজন যাত্রী বসা ছিলেন। তিনি বসেন গাড়ির বাম পাশে। অটোরিকশাটি চলা শুরু করতেই আব্দুল জাব্বারের ডানের যাত্রী তাকে একটু সামনের এগিয়ে বসতে অনুরোধ করেন।

এদিকে, বন্দরগামী অটোরিকশাটি অন্য যাত্রীর সুবিধার্থে চালক জিন্দাবাজার হয়ে না নিয়ে চৌহাট্টা পয়েন্ট থেকে রিকাবীবাজার ও জিতু মিয়ার পয়েন্ট হয়ে বন্দরবাজার নিয়ে আসার কথা বলেন। বন্দর আসার পথে কিছুক্ষণ পর পর সজোরে গাড়িটির ব্রেক চাপতে থাকেন। এতে আব্দুল জাব্বার সিটের মধ্যে দোল খেতে থাকেন।

আব্দুল জাব্বারের অভিযোগ, এই দোল খাওয়ার সময় কৌশলে তার ডানের যাত্রী পকেট থেকে ৭০ হাজার টাকা বের করে নেন।

পরে বন্দরবাজার আসার পরও গাড়ির চালক আব্দুল জাব্বারকে কোর্ট পয়েন্টে নামিয়ে না দিয়ে জিন্দাবাজার ঘুরে আবার কোর্ট পয়েন্টে নিয়ে আসেন। এসময় আব্দুল জাব্বার বিষয়টি অস্বাভাবিক বুঝতে পেরে একরকম জোর করে তিনি গাড়ি থেকে নেমে ভাড়া দিয়ে সোজা অফিসে (মেসার্স সোমা এয়ার সার্ভিসে) চলে যান। অফিসে গিয়েই তার পকেট থেকে টাকা চুরি হওয়ার বিষয়টি বুঝতে পারেন

পরে বৃহস্পতিবার বিকেলে এ বিষয়ে একটি সাধারণ ডায়েরি করতে আব্দুল জাব্বার সিলেট মহানগর পুলিশের কোতোয়ালি মডেল থানায় যান।

কোতোয়ালি মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এস এম আবু ফরহাদ বলেন, এখনও এমন অভিযোগ করতে কেউ থানায় আসেনি। তবে অভিযোগ দেয়ামাত্র আমরা উল্লেখিত জায়গাগুলোর সিসিটিভি ক্যামেরায় ধারণকৃত ফুটেজগুলো খতিয়ে দেখে অপরাধীদের ধরতে দ্রুত চেষ্টা চালাবো।