সিলেট আ.লীগ নেতা রাজধানীতে ব্যস্ত

প্রকাশিত: ৩:১০ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২০, ২০১৬

সিলেট আ.লীগ নেতা রাজধানীতে ব্যস্ত

01২০ অক্টোবর ২০১৬, বৃহস্পতিবার: সিলেটের আওয়ামীলীগ নেতাকর্মীদের স্রোত এখন ঢাকার সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের দিকে। এই উদ্যানে শনিবার হবে আওয়ামীলীগ নেতাকর্মীদের এক মিলন মেলা। বিপুল উৎসাহ উদ্দিপনা আর উচ্ছাস নিয়ে ছুটে চলেছেন ঢাকার দিকে। কেউ বিমানে আবার কেউ ট্রেন অথবা বাসে আবার কেউ কেউ প্রাইভেট গাড়ী নিয়ে উৎসবের আমেজ নিয়ে সিলেট ছেড়েছেন। সম্মেলনে যোগ দিতে সিলেট ছাড়ছেন সহস্রাধিক কাউন্সিলর-ডেলিগেট। এরই মধ্যে অনেকে ঢাকায় পৌঁছেছেন। কেউবা যাওয়ার অপেক্ষায়। এছাড়াও অনেকেই আজ বৃহস্পতিবার (২০ অক্টোবর) যাত্রা করবেন বলে জানিয়েছেন জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের নেতারা। এবারের কাউন্সিলে সিলেটের নতুন নেত্ত্বৃ আসবে বলে দলীয় সূত্রে জানা যায়। কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের সিলেট বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক এডভোকেট মিছবাহ উদ্দিন সিরাজ, সিলেট মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি বদর উদ্দিন আহমদ কামরান, সাধারণ সম্পাদক আসাদ উদ্দিন আহমদ ও জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক শফিকুর রহমান চৌধুরী কেন্দ্রীয় কমিটিতে দেখার অপেক্ষায় এখন সিলেটের অসংখ্য কর্মী, সমর্থক ও শুভাকাঙ্খিরা।
01-1তিনি সাংবাদিকদের জানান ঐতিহ্যবাহী সংগঠন আওয়ামীলীগের সম্মেলন হবে একটি ঐতিহাসিক ঘটনা। সারাদেশের আওয়ামীলীগ পরিবারের সদস্যদের ২২ ও ২৩ অক্টোবর হবে এক মিলন মেলা। নেতাকর্মীরা যেন নদীর মতো ছুটে চলেছেন সাগরে মিলিত হওয়ার দূরন্ত বাসনায়। তারা আশা করেন সারাদেশের জনস্রোত ঢাকার সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের জনসমুদ্রে মিলিত হয়ে আওয়ামীলীগ রাজনীতির নতুন এক অধ্যায় সূচিত হতে পারে।
সকল নেতাকর্মীর মনে নতুন শপথ নতুন অঙ্গিকার আর নতুন লক্ষ্য নিয়ে সারাদেশের আওয়ামীলীগ নেতাকর্মীরা উদ্ভাসিত হয়েই সম্মেলন শেষ করে বাড়ি ফিরবেন। ঢাকার সম্মেলনকে কেন্দ্র করে সিলেট নগরী সেজেছে বর্ণিল সাজে। গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা সমূহে করা হয়েছে আলোকসজ্জা। নগরীর যে দিকে চোখ যায় সেদিকেই দেখা যায় বাঙ্গালী জাতির অবিসংবাদিত নেতা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্ঠা সজীব ওয়াজেদ জয়ের সুন্দর সুন্দর প্রতিকৃতি শোভা পাচ্ছে। নগরী ছেয়ে গেছে ব্যানার, ফেষ্টুন আর তোরনে। আগামী ২২ ও ২৩ অক্টোবর ঢাকার সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে অনুষ্ঠিতব্য সম্মেলনকে ঘিরে সিলেটের নেতা-কর্মীর মধ্যে বিরাজ করছে ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনা।
জানা যায়, এবার সিলেট জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের ২শ’ ৪ জন কাউন্সিলর ও প্রায় ১ হাজার ৩শ’ ডেলিগেট সম্মেলনে অংশ নিচ্ছেন। এরমধ্যে সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের কাউন্সিলর ১শ’ ৬৪ ও ডেলিগেট এক হাজার জন। আর মহানগর আওয়ামী লীগের কাউন্সিলর ৪০ ও ডেলিগেট ৩শ’জন রয়েছেন। মূলত ২৫ হাজারে একজন কাউন্সিলর মনোনীত হন। সে হিসেবে সিলেট থেকে ২শ ৪ জন কাউন্সিলর সম্মেলনে সিলেটের প্রতিনিধিত্ব করবেন জানিয়েছেন নগর আওয়ামী লীগের দফতর সম্পাদক অ্যাডভোকেট শামসুল ইসলাম।
মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদ উদ্দিন আহমদ জানান, মহানগর আওয়ামী লীগের ৪০ জন কাউন্সিলর এবং ৩শ জন ডেলিগেট সম্মেলনে যোগ দেবেন। তিনি বলেন, সম্মেলনে যাবেন এমন কাউন্সিলর ও ডেলিগেটদের তালিকা ইতোমধ্যে ঢাকায় পাঠানো হয়েছে। জেলা আওয়ামী লীগ থেকে ১শ’ ৬৪ জন কাউন্সিলর ও এক হাজার ১৬ ডেলিগেট সম্মেলনে অংশ নিবেন। এরমধ্যে জেলা কমিটির সদস্য, উপজেলা কমিটির সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকসহ সিনিয়র নেতারা কাউন্সিল হিসেবে জাতীয় সম্মেলনে যাবেন।
নেত্রীর সিদ্ধান্তই আমাদের সিদ্ধান্ত জানিয়ে সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদ উদ্দিন আহমদ জানান, সিলেটের মাটি ও মানুষের সঙ্গে বঙ্গবন্ধুর আত্মার সম্পর্ক ছিলো। যা আমাদের নেত্রীর মধ্যেও বিদ্যমান। সে হিসেবে আমরা নেত্রীর মনের মণিকোঠায় থাকতে চাই।
এদিকে, এবারের সম্মেলনে চমক দেখাতে পারেন প্রধানমন্ত্রীর আস্থাভাজন জাতিসংঘস্থ বাংলাদেশ মিশনের সাবেক স্থায়ী প্রতিনিধি ও রাষ্ট্রদূত ড. একে আবদুল মোমেন। তিনি আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য নির্বাচিত হতে পারেন। নেত্রীর গুড বুকে রয়েছেন দলের শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদকের দায়িত্বে থাকা শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদও। এছাড়া তৃণমূলে সংগঠনকে শক্তিশালী করতে না পারা, ইউনিয়ন পরিষদ ও পৌরসভা নির্বাচনে বিতর্কিতদের কাছ থেকে অনৈতিক সুবিধা নিয়ে মনোনয়ন দেওয়াসহ যাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ আছে, তাদের কার্যনির্বাহী সংসদ থেকে বাদ দেওয়া হতে পারে। এমনটি নিশ্চিত করেছেন দলের একাধিক সূত্র।
সভায় সভায় আর পরিদর্শনের মধ্যে দিয়ে রাজধানীতে ব্যস্ত সময় পার করছেন সিলেট আওয়ামীলীগের নেতারা।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

ফেসবুকে সিলেটের দিনকাল