সিলেটে কাউন্সিলর দিবার বাসায় হামলা আ’লীগের জামালসহ ৩ জনের সাজা – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

সিলেটে কাউন্সিলর দিবার বাসায় হামলা আ’লীগের জামালসহ ৩ জনের সাজা

প্রকাশিত: ৭:৫০ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ১, ২০১৭

সিলেটে কাউন্সিলর দিবার বাসায় হামলা আ’লীগের জামালসহ ৩ জনের সাজা

সিলেটের নারী কাউন্সিলরের বাসায় হামলা ও লুটপাটের মামলায় আওয়ামীলীগের জামালসহ ৩ জনের সাজা হয়েছে। আসামিদের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ সন্দেহাতীত প্রমাণিত হওয়ায় আদালত তাদের বিরুদ্ধে এই রায় দেন। জরিমানা অনাদায়ে আসামিদের যথাক্রমে ১৫ দিন ও ৭ দিন হাজত বাসের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। গতকাল মঙ্গলবার সিলেটের মেট্রোপলিটন প্রথম আদালতের বিচারক মামুনুর রহমান ছিদ্দিকী এই রায় দেন। এই মামলার বাদি সিলেট সিটি কর্পোরেশনের নারী কাউন্সিলর দিবা রাণী দে। আদালতের এপিপি অ্যাডভোকেট রাশেদা সাঈদা চৌধুরী জানান, মামলার মোট ৪ আসামির মধ্যে ১ জনকে খালাস দিয়ে বাকি ৩ আসামিকে সাজা দিয়েছেন আদালত। আসামিরা হচ্ছে, সিলেট নগরীর যতরপুরের মৃত আব্দুল জব্বারের পুত্র কামাল, জামাল ও সোহেল। এরমধ্যে ৩২৩ ধারায় আনীত অভিযোগ প্রমাণ হওয়ায় আসামিদের প্রত্যেককে ১ হাজার টাকা করে জরিমানা অনাদায়ে ১৫ দিনের হাজত বাস ও ৪৪৭ ধারার অভিযোগ প্রমাণ হওয়ায় ৫শ টাকা অর্থদন্ডের নির্দেশ দেন আদালত।
অপর আসামি হেলাল নিরপরাধ প্রমাণিত হওয়ায় তাকে বেকসুর খালাস দেন আদালত। সংশ্লিষ্ট সুত্র জানায়, মামলার বাদি সংখ্যালঘু পরিবারকে দীর্ঘদিন ধরে হুমকি দিয়ে আসছিল আসামিরা। তারা চাপ দিয়ে আসছিল বাড়ি-ভিটে বিক্রি করে যাওয়ার জন্য। এরই ধারাবাহিকতায় ২০১১ সালের ৩০ জানুয়ারি রাত সাড়ে ৮টার দিকে সিলেট নগরীর নবপুষ্প ১২/৩ বাসায় হামলা চালায় মহানগর আওয়ামীলীগ নেতা জামাল আহমদ, তার ভাই কামাল ও সোহেলসহ কয়েকজন। হামলার সময় বাসার লোকজনদের অস্ত্রের মুখে জিম্মি, মারধোর করে নগদ টাকা, স্বর্ণালংকার, টিভি, মোবাইল সেটসহ ৪ লাখ ১১ হাজার টাকার মালামাল লুট করে নিয়ে যায়। এসময় পুলিশকে খবর দিলে আসামিরা পালিয়ে যায়। পরে পুলিশ গিয়ে হামলাকারীদের ফেলে যাওয়া কিছু আলামত উদ্ধার করে। ঘটনার পরদিন বাসার গৃহকত্রী, মনিন্দ্র রঞ্জন দে’র স্ত্রী দিবা রাণী দে সিলেট কোতোয়ালী মডেল থানায় মামলা করেন। মামলাটি তদন্ত করেন পি এস আই মৃণাল দেবনাথ। মামলা তদন্তে সত্যতা পেয়ে ২০১১ সালের ২৫ এপ্রিল আদালতে চার্জশীট দাখিল করে পুলিশ। দীর্ঘ বিচার শেষে গতকাল রায় দেন আদালত। মামলার আসামিপক্ষের আইনজীবি ছিলেন অ্যাডভোকেট ফরিদ উদ্দিন। তাকে বার বার ফোন করলেও তিনি ধরেননি। তবে সাজাপ্রাপ্ত আসামিরা বলেন, মামলায় তারা ন্যাবিচার পাননি। এব্যাপারে তারা আদালতে আপিল করবেন।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

ফেসবুকে সিলেটের দিনকাল