সিলেটে ক্ষমতাসীনদের নিয়ন্ত্রণে অর্ধশত অবৈধ পশুর হাট – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

সিলেটে ক্ষমতাসীনদের নিয়ন্ত্রণে অর্ধশত অবৈধ পশুর হাট

প্রকাশিত: ৯:৪৬ পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১১, ২০১৬

সিলেটে ক্ষমতাসীনদের নিয়ন্ত্রণে অর্ধশত অবৈধ পশুর হাট

abcd-01১১ সেপ্টেম্বর ২০১৬, রবিবার: ঈদুল আজহা ঘনিয়ে আসতেই সিলেট নগরীজুড়ে বসতে শুরু করেছে পশুর হাট। নগরীতে দুটি হাট বসানোর অনুমোদন থাকলেও ইতোমধ্যে প্রায় অর্ধশত স্থানে হাট বসানোর উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। ক্ষমতাসীন দলের নেতাদের হাতে এইগুলো গড়ে উঠছে। অভিযোগ রয়েছে, গরু পাইকাররা ট্রাকে করে গরু নিয়ে যাওয়ার সময় এসব অবৈধ হাটে জোরপূর্বক গরু রেখে দেয়া হয়। ফলে বিপাকে পড়েছে ব্যবসায়ি ও ক্রেতারা। অন্যদিকে বিপুল পরিমাণ রাজাস্ব হারাচ্ছে সরকার।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, সিলেটে অবৈধ অর্ধশত হাটের বাইরেও নগরীর কুমারপাড়া, শাহী ঈদগাহ উপজেলা মাঠ, আখালিয়া বিজিবি মাঠ, মাছিমপুর, মেডিকেল রোড, রিকাবিবাজার, খরাদিপাড়া আনন্দ মাঠ, টিলাগড় পয়েন্ট, বালুচর খেলার মাঠ, চালিবন্দরে ক্রীড়া কমপ্লেক্সের মুখ, লাক্কাতুড়া, মেন্দিবাগ পয়েন্টসহ বিভিন্ন স্থানে অবৈধ পশুর হাট বসানোর পাঁয়তারা চালাচ্ছে একটি চক্র। ইতিমধ্যেই কয়েকটি স্থানে অবৈধ পশুর হাট বসানো হয়েছে। অভিযোগ রয়েছে, গরু পাইকাররা ট্রাকে করে গরু নিয়ে যাওয়ার সময় এসব অবৈধ হাটে জোরপূর্বক গরু রেখে দেয়া হয়। প্রতি বছর অবৈধ পশুর হাটের কারণে অপরিচ্ছন্ন ও দূষিত হয় নগরীর পরিবেশ, বাড়ে যানজট। অস্বাস্থ্যকর পরিবেশের কারণে বিঘিœত হয় জনস্বাস্থ্য।

সিটি করপোরেশন বলছে, কাজির বাজার পশুর হাট ও কয়েদি মাঠের হাট ছাড়া নগরীতে আর কোনো হাট বসানোর অনুমোদন নেই। এর বাইরে যেখানেই হাট বসবে তা অবৈধ। এরপরও কোনো ধরণের অনুমোদনের তোয়াক্কা না করে হাট বসছে। এসব হাটের নেপথ্য নিয়ন্ত্রণ ক্ষমতাসীন দলের নেতাদের হাতে রয়েছে বলে অভিযোগ। তাদের প্রশ্রয়েই নগরীজুড়ে প্রতি বছর অবৈধ হাট বসে।

সিলেট সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এনামুল হাবীব জানান, নগরীর মাছিমপুরস্থ কয়েদির মাঠ ও কাজিবাজার ছাড়া অন্যত্র যতো পশুর হাট আছে, সেগুলো অবৈধ। নগরীর একমাত্র স্থায়ী পশুর হাট কাজিরবাজার। এছাড়া কোরবানির ঈদকে সামনে রেখে কয়েদির মাঠে পশুর হাট বসানোর জন্য ইজারা দেয়া হয়েছে। ভ্যাট-ট্যাক্সসহ ২৬ লাখ টাকায় কয়েদির মাঠে পশুর হাট বসানোর ইজারা দেয়া হয়েছে বলে তিনি জানিয়েছেন।

এদিকে মহানগরীর কদমতলি পয়েন্টে আরেকটি অস্থায়ী পশুর হাট ইজারা দিতে চায় সিসিক। এ লক্ষ্যে দ্বিতীয়বারের মতো টেন্ডার আহবান করা হয়েছে। এ হাট ইজারা দেয়া হলে মহানগরীতে বৈধ পশুর হাট হবে তিনটি। তবে এখনও পর্যন্ত বৈধ দুই পশুর হাট ছাড়াও নগরীর অন্তত বিশটি স্থানে অবৈধ পশুর হাট বসানো হয়েছে, প্রতিদিন নতুন স্থানে হাট বসছে।

সার্বিক বিষয়ে সিলেট সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এনামুল হাবীব বলেন, অবৈধ পশুর হাটের বিরুদ্ধে জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসনসহ সকলের সমন্বিত প্রচেষ্টা প্রয়োজন। সমন্বিত প্রচেষ্টা ছাড়া এসব বন্ধ করা যাবে না।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

ফেসবুকে সিলেটের দিনকাল