সিলেটে নাবালিকা ধর্ষণ-হত্যা গোপনে পুতে ফেলা হয় লাশ – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

সিলেটে নাবালিকা ধর্ষণ-হত্যা গোপনে পুতে ফেলা হয় লাশ

প্রকাশিত: ৩:৫৮ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২২, ২০১৬

সিলেটে নাবালিকা ধর্ষণ-হত্যা গোপনে পুতে ফেলা হয় লাশ

14369858_1312566302107411_3289792567051744722_nবৃহস্পতিবার (২২ সেপ্টেম্বর) সিলেটের কোম্পানীগঞ্জে গৃহকর্তার ধর্ষনের শিকার হয়ে মারা গেছে নাবালিকা এক গৃহপরিচারিকা। দীর্ঘদিন ধর্ষনের পর তাকে হত্যা করা হয়। অবগত করা হয়নি পুলিশসহ আইনশৃংখলা রক্ষাকারী কোন সংস্থাকে। রাতের আঁধারে বাড়ির আঙ্গিনায় পুতে ফেলা হয় তার লাশ। ঘাতক প্রভাবশালী হওয়ায় প্রাণভয়ে মূখ খোলতে রাজি হচ্ছে না এলাকার কোন মানুষ। গত ঈদুল আযহার কিছুদিন পূর্বে উপজেলার পাড়–য়া মাঝপাড়া গ্রামে নারকীয় এ হত্যাকান্ড ঘটে বলে স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে। জানা গেছে, সিলেটের কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার পাড়–য়া মাঝপাড়ার এক দুর্ধর্ষ প্রভাবশালীর বাড়িতে দু’বছর ধরে গৃহপরিচারিকার কাজ করতো ১২-১৩বছরের একটি মেয়ে। কাজের ওই মেয়ের বেড়ে ওঠা রূপদেহের প্রতি আকৃষ্ট হয়ে পড়েন প্রভাবশালী গৃহকর্তা । জৈবিক লালসা মেটাতে নাবালিকা কাজের ওই মেয়েকে ধর্ষণ করতে থাকে গৃহকর্তা। পাশবিক লালসা চরিতার্থের এক পর্যায়ে মৃত্যুমূখে ঢলে পড়ে ওই গৃহপরিচারিকা। পরে তার পিতা-মাতা ও ভাইবোনকে খবর দিয়ে শাসিয়ে তাদের হাওয়ালা করে দেয়া হয় মৃতদেহ। গৃহকর্তার নির্দেশ ও চোখরাঙ্গানীতে তড়িঘড়ি করে তার মরদেহ দাফন করে ফেলা হয় মৃতার পিতার বাড়ির আঙ্গিনায়। ঘাতক প্রভাবশালী ও ধনকুবের হওযায় প্রাণভয়ে মূখ খেলেনি নিহতের স্বজনরা। নাবারিকা ধর্ষণসহ হত্যাকান্ডটি উপজেলার পাড়–য়া মাঝপাড়া গ্রামে ঘটলেও মেয়েটির লাশ পুতে রাখা হয়েছে উপজেলার বুধবারীবাজারস্থ উত্তর রাজনগর গ্রামের ছোয়াব আলীর বাড়ির আঙ্গিনায়। নিহত গৃপরিচারিকা বাড়ির মালিক ছোয়াব আলীর মেয়ে ছিল বলে জানা গেছে। ঘটনা সম্পর্কে ভয়ে প্রাথমিকভাবে কেই মূখ খোলতে রাজি না হলেও ঘটনাটি আর গোপন থাকছে না। ক্রমশ: বেরিয়ে আসছে অনেকের মূখ থেকে। মৃতার আপন ভাই আরী আহমদ ওই গৃপরিচারিকার মৃত্যুর বিষয়টি সিলেট নিউক্লাবের কাছে নিশ্চিত করলেও হত্যা না স্বাভাবিক মৃত্যু ব্যাপারে এখনো মূখ খোলতে রাজি হয়নি সে। তবে এটা যে নির্ঘাত ও নারকীয় হত্যাকান্ড এ বিষয়ে নিশ্চিত নামপ্রকাশে অনিচ্ছুক মৃতার স্বজনসহ এলাকার অনেক মানুষ। -নমুনা ফাইল ছবি।