সিলেটে বাণিজ্য মেলা বন্ধে প্রধানমন্ত্রী.অর্থমন্ত্রী ও শিক্ষামন্ত্রীর হস্থেক্ষেপ কামনা – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

সিলেটে বাণিজ্য মেলা বন্ধে প্রধানমন্ত্রী.অর্থমন্ত্রী ও শিক্ষামন্ত্রীর হস্থেক্ষেপ কামনা

প্রকাশিত: ১১:৪৭ পূর্বাহ্ণ, নভেম্বর ৫, ২০১৬

সিলেটে বাণিজ্য মেলা বন্ধে প্রধানমন্ত্রী.অর্থমন্ত্রী ও শিক্ষামন্ত্রীর হস্থেক্ষেপ কামনা

নিজস্ব প্রতিবেদক: সিলেটে একটি মেলা আয়োজনকে কেন্দ্র করে জনসাধারণের মধ্যে বিরুপ প্রতিক্রিয়া বিরাজ করছে। মেলা আয়োজনের পক্ষে-বিপক্ষে বিভিন্ন বক্তব্য পাওয়া গেলেও এ বিষয় নিয়ে বিভিন্ন ভাবে অভিযোগের পাল্লা ভারী হয়ে উঠছে। সিলেট মেট্রোপলিটন চেম্বারের আয়োজনে নগরীর শাহী ঈদগাহস্থ সদর উপজেলা খেলার মাঠে শুরু হতে যাচ্ছে সিলেটের ৩য় বারের মতো বৃহৎ এই আন্তর্জাতিক বানিজ্য মেলা। এদিকে উক্ত মেলা আয়োজন স্থলের আশপাশে বেশ কয়েকটি স্কুল ও কলেজ থাকায় নিয়মিত পাঠদানসহ জেএসসি, জেডিসি পরীক্ষা চলছে এবং পিএসসি ও প্রাইমারী স্কুল এবং মাধ্যমিকের বার্ষিক পরীক্ষা কিছু দিনের মধ্যে শুরু হবে। তাই এমন সময়ে এই স্থানে মেলা আয়োজনে ভোগান্তির শিকার হতে যাচ্ছেন শিক্ষার্থী ও এলাকাবাসীসহ অভিভাবকবৃন্দ। বানিজ্য মেলা বলা হলেও এখানে মেলার নামে গেইটে প্রবেশে টাকার বিনিময়ে টিকিট, র‌্যাফেল ড্র, ও জুয়ার আসর বসবে বলে অভিযোগ উঠেছে। এ ব্যাপারে সেখানকার জনগণের মধ্যে ক্ষোভ সৃষ্টি হলেও আয়োজকরা প্রভাবশালী হওয়ায় মুখ খোলার সাহস করছেন না কেউই। জানা গেছে, আয়োজক সিলেট মেট্রোপলিটন চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি বলা হলেও পাশাপাশি মেলা পরিচালনায় থাকছেন ক্ষমতাসীন দলের সাইনবোর্ড ব্যবহারকারী গুটি কয়েক অর্থলোভী নেতা। 022এব্যাপারে শিক্ষার্থী, অভিভাবক ও স্থানীয় এলাকাবাসী মেলা আয়োজনের সময় পরিবর্তন করে শুরুর সময়কালে বন্ধ রাখার জোর দাবী জানিয়েছেন। তারা প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা, অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত, শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ ও প্রশাসনের ঊর্ধবতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ বলেন, সদর উপজেলা খেলার মাঠ নাম মাত্র হলেও মূলত এখানে সমউপযোগী বিভিন্ন ক্ষেত্রে মাঠের ব্যবহার ও মেলার আয়োজনই বেশি হয়ে থাকে। মেলা শেষ হলেও এই মাঠটি পরবর্তী সময়েও খেলা অনুপযোগী হয়ে পড়ে। ইট, পাথর, স্টল তৈরীর অবশিষ্ট বর্জ যত্রতত্র ফেলে রাখা হয়। যা মাসের পর মাস চলে গেলেও পরিষ্কার করার কোন উদ্যোগ গ্রহণ করা হয় না। তারা বলেন, বাংলাদেশের সফল শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ শিক্ষা ও শিক্ষার্থীদের উন্নয়নে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। তার দুরদর্শী চিন্তা-চেতনার ফলে বর্তমান বাংলাদেশ শিক্ষার ক্ষেত্রে গোটাবিশ্বে সুনাম অর্জন করছে। কিন্তু কিছু কুচক্রী মহল নিজ স্বার্থ হাসিল করতে শিক্ষা ব্যবস্থা ও পরিবেশের তোয়াক্কা না করে পরীক্ষার সময় কোন মনমানসিকতায় এই মেলার আয়োজন করছেন তা বুঝে উঠতে পারছেন সচেতন মহল। এবিষয়ে সিলেট সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আশফাক আহমদের সাথে ফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করা হলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি। এবং মেলা আয়োজক কর্তৃপক্ষের একজন আলতাফুর রহমান আলতাফের সাথে ফোনে যোগাযোগ করলে তিনি জানান, ১০ নভেম্বর মেলা উদ্বোধন হওয়ার কথা রয়েছে। মেলাটি মাসের অধিক সময়ও চলতে পারে বলে জানান তিনি ।