সিলেটে মূল্যবান সরকারী জায়গা থেকে মাছ বাজার উচ্ছেদে হাইকোর্টেও রুল নিশি জারি – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

সিলেটে মূল্যবান সরকারী জায়গা থেকে মাছ বাজার উচ্ছেদে হাইকোর্টেও রুল নিশি জারি

প্রকাশিত: ৮:৩১ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ১২, ২০১৭

সিলেটে মূল্যবান সরকারী জায়গা থেকে মাছ বাজার উচ্ছেদে হাইকোর্টেও রুল নিশি জারি

আবুল মোহাম্মদ: সিলেট নগরীরকাজিরবাজারে জেল াপ্রশাসক ও সড়ক ও জনপথের মালিকাধীন প্রায় ২০ কোটি টাকা মূল্যেও ভুমি দখল করে প্রতিষ্ঠিত মৎস্য আড়ৎ উচ্ছেদে হাইকোর্টের ইতিবাচক একটি নির্দেশনায় আশাবাদী হয়ে উঠেছেন ভুক্তভোগীরা। প্রশাসনের চোখের সামনেই মূল্যবান সরকারী জমির উপর কাজিরবাজার মৎস্য আড়ৎদার সমিতি ও সিলেট্ সদর মৎস্য আড়ৎধার কল্যান সমিতির নামে সরকারি প্রায় ৮০ শতক ভূমি দখল করে গড়ে তোলা হয়েছে এই মৎস্য আড়ৎ।(এস.এপ্লটনং ৩০৬৪, ৩০৬৫, ৩০৬৭ বর্তমান ২৪২৫১, ২৪২৫২, ২৪২৮৫, ২৪২৮৬, ২৪২৮৭, ২৪২৮৮, ২৪২৮৯, ২৪২৯০, ২৪২৯১, ২৪২৯৭ জেল নং ৯১ মৌজা সিলেট সদও মিউনিসিপ্যালিটি) কাজিরবাজার সেতুরনিচ ও পাশর্^বর্তী স্থানটি সরকারি মালিকাধীন হলেও সেখানে দীর্ঘ দিন ধরে বেআইনি ভাবে মাছবাজার স্থাপন করা হয়েছে। কিন্তু এদেরবিরুদ্ধে আইননুগ কোনব্যবস্থা গ্রহন করা হয়নি। ফলে মাছ বাজার কেন্দ্র করে পক্ষে বিপক্ষে গড়ে উঠেছে মতামত। এ নিয়ে প্রায়ই ঘটছে অনাকাঙ্খিত ঘটনা। সচেতন মহলের অভিযোগ সরকারের সংশ্লিষ্ট দফতর গুলো রহস্য জনক কারণে কাজিরবাজার সেতুর সংলগ্ন অবৈধ মৎস্য আড়ৎটি উচ্ছেদ করছেনা। যে কারণে জনসাধারণের মাঝে ক্ষোভ দেখা দিয়েছে। এরই ধারাবাহিকাতায় হাইকোর্টে ভূক্তভোগীদের পক্ষেনগরীর কানিশাইল রোডের বাসিন্দা মাসুম আহমদের দায়ের কর াএকটি রিটপিটিশনের (রিটপিটিশন ৩৫৭৫/২০১৭) প্রেক্ষিতে বিজ্ঞ আদালতে সরকারী ভূমি থেকে অবৈধ দখলদার উচ্ছেদে যথাযত পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য আদেশ জারি করেছেন। সে অনুযায়ী মৎস্য আড়ৎ উচ্ছেদে চার সপ্তাহের সময় সীমা বেঁধে দিয়েছেন হাইকোর্ট। সরকারী ভূমির উপর এ মৎস্য আড়ৎ কেন বেআইনি হবেনা এবং তা কেন উচ্ছেদ করা হবে না এ মর্মে কারণ দর্শাতে রুল জারিকরেছে হাইকোর্ট। বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টর হাইকোর্ট ডিভিশনেরর বিচারপতি কাজী রেজাউল হক ও বিচারপতি মোহাম্মদ উল্লাহ সমন্বেয়ে গঠিত বেঞ্চ ২০ মার্চ এ রুল জারিকরে জবাব দাখিল করতে সরকার ও প্রশাসনের ১১টি দফতর প্রধানকে নির্দেশ দিয়েছেন ।এদিকে স্থানীয় জনসাধারণ পরিবেশ দূষণ মুক্ত রাখতে মৎস্য আড়ৎ কাজিরবাজার সেতুর নিচ থেকে অপসারণের দাবী জানিয়েছেন। এ লক্ষ্যে গতকাল সিলেটে এক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। হাই কোর্টেও রুলে নির্দেশিতকর্তা-ব্যাক্তিরা হলেন ভূমি মন্ত্রনালয়ের সচিব, পানিসম্পদ মন্ত্রনালয়ের সচিব, সিলেট সিটিকর্পোরেশনের মেয়র, এসএমপিপুলিশ কমিশনার, সিলেট জেলা প্রশাসক, সিলেটের অতিরিক্ত জেলাপ্রশাসক (রাজস্ব), সিলেট সদও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী, পরিবেশ অধিদফতর, সিলেট-এর বিভাগীয় পরিচালক, সহকারী কমিশনার (ভূমি) সিলেট সদর ও সিলেট কতোয়ালী মডেল থানা ওসি। হাই কোটের রুল জারির প্রেক্ষিতে নগরীর ব্যবসায়ীরা কাজিরবাজার বিজ্র সংলগ্ন বেআইনি মৎস্য আড়ৎ উচ্ছেদ দাবীতে ২৭মার্চ সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনারের কাছে লিখিত আবেদন করেছেন। তাছাড়া নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয়ের সচিবালয়ে একটি আবেদন দাখিল করেছেন।
বিভিন্ন সূত্র থেকে জানাযায়, সরকারী জায়গায় মৎস্য আড়ৎ বসানোর ফলে কাজিরবাজার ব্রিজের এপ্রোচ রাস্তায় সব সময়যান জটও জনজটের সৃষ্টি হয়ে থাকে। ফলে স্কুল-মাদারাস এবং ভার্সিটির ছাত্র-ছাত্রী, অফিস আদালতের কর্মকর্তা কর্মচারী, পথচারী যাত্রীরা সময়মত তাদের কার্মস্থলে পৌছোতে পারেনা। এছাড়া দুর্গন্ধময় পরিবেশ ও মৎস্য আড়তের আশে পাশে মাদক হাট বসানোর ফলে স্থানীয় মসজিদ, মাদরাসা, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও অন্যান্য মার্কেও ব্যবসায়ী এবং ক্রেতাদেও জন্য আড়ৎ টি মারাত্মক অশ^স্থিও কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। এলাকাবাসীর দীর্ঘ দিন ধরে বেআইনি এ মৎস্য আড়ৎ অপসারণে কোন ব্যবস্থা নিচ্ছে না বলে অভিযোগ প্রকাশ। ফলে ভূক্তভোগীরা মহামাণ্য হাই কোর্টের আশ্রয় নিলে এ আদেশ জারি করা হয়। ভূক্তভোগীদের অভিযোগ মৎস্য আড়তের আশে পাশে বেশকয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ এবং উল্লেখ্য যোগ্য প্রতিষ্ঠান রয়েছে, যেমনঃ- কাজীরবাজার জামে মসজিদ, কাজীরবাজার ইসলামীয়া মাদরাসা, কাজীর বাজার জামে মসজিদ মার্কেট, চাউলের আড়ৎ, শেখ ছানা উল্লাহ জামে মসজিদ, ময়মুননেছা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, সরকারী অফিসার্স কোয়াটার, কামাল উদ্দিন বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ^বিদ্যালয়, পার্ক ভিউ মেডিকেল কলেজ, নর্থ ইষ্ট মেডিকেল কলেজ, বুদ্ধি প্রতিবন্ধী কল্যান সংস্থা উল্লেখ্যযোগ্য। এমতাবস্থায় কাজীরবাজার সেতুরনিচে ও পাশের্^ মৎস্য আড়ৎ নির্মাণ করায় প্রতিদিন অসংখ্য মাছের ট্্রাকা, পিকআপ কাভার ভ্যান সহঅন্যান্য গাড়ীর যানজট অত্র এলাকার অগণিত ছাত্র-ছাত্রী, আইনজীবি, ডাক্তার ও নানা পেশাজীবি জনসাধারণের অফিসের সময় যাতায়াতে মারাত্মক সমস্যার সুষ্টি ্হচ্ছে এবং মুমুর্ষ রোগী নিয়ে এ্যাম্বুলেন্স চলাচলসহ বিরাটযান জট ও পরিবেশ বিপর্যয়ের আশংকা দেখা দিয়েছে। তদুপরি এলাকার রোগ ব্যাধির প্রকোপ দেখা দিয়েছে অর্থাৎ স্বাস্থ্য সম্মত পরিবেশ ও বিপর্যস্থ হয়েপড়েছে। জনসাধারণের জীবনযাত্রা মারত্মক হুমকির মুখে সিলেট ভি, আই, পি রোড তীব্র যানজট সৃষ্টি সম্মুখীন হয়েছে। উল্লেখ্য মৎস্য আড়ৎটি নাম ধারণ কওে অনেকেই রাতের আধারে অস্ত্র, ফেনসিডিল, ইয়াবা, গাজা, হেরোইন, জুয়া ও মদ ইত্যাদি ব্যবসা বানিজ্য করে থাকে। এর ফলে যুব সমাজ ধ্বংসের ধার প্রান্তে পৌছেছে।
উল্লেখ্য কতিপয় স্বার্থন্বেষী ব্যক্তি তাদেও মাছের ব্যবসা বাণিজ্যেও জন্য সিলেট মহানগর অনতি দুওে বিভিন্ন আড়তে ব্যবসা করার সুযোগ থাকা স্বত্তেও সরকার জেলা প্রশাসক ও সড়ক জনপথ বিভাগের জমি দখলকরে সেতুর নিচে ও পাশে মাছের আড়ৎ নির্মাণ কওে এলাকার পরিবেশ নষ্ট

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

ফেসবুকে সিলেটের দিনকাল