সিলেটে সাতদিনেও উঘাটিত হয়নি ষোড়শী কন্যা নাজুয়া’র মৃত্যুরহস্য – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

সিলেটে সাতদিনেও উঘাটিত হয়নি ষোড়শী কন্যা নাজুয়া’র মৃত্যুরহস্য

প্রকাশিত: ১১:১৪ পূর্বাহ্ণ, এপ্রিল ২৭, ২০১৬

সিলেটে সাতদিনেও  উঘাটিত হয়নি ষোড়শী কন্যা নাজুয়া’র মৃত্যুরহস্য

NAJUA PiC-WA0000সিলেটে সপ্তাহ পেরিয়ে গেলেও বাকপ্রতিবন্ধী ষোড়শীকন্যা নাজুয়া মৃত্যুরহস্য উদঘাটিত হয়নি। ঘটনাটি হত্যা না আত্মহত্যা এবিষয়ে নিশ্চিত হতে পারেনি পুলিশসহ এলাকার সাধারন মানুষ। ২১ এপ্রিল সকালে নগরীর শিবগঞ্জ লামাপাড়াস্থ ৩৪নং বাসায় এ ঘটনা ঘটে। মৃত আয়েশা সিদ্দিকা নাজুয়া (১৬)আরব আমিরাত প্রবাসী বিলাল আমদের মেয়ে। গত ২১ এপ্রিল গলায় ওড়না পেচানো অবস্থায় ত্রা লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এঘনায় এসএমপির শাহপরান থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা হয়েছ্।ে
জানা গেছে, আমিরাত প্রবাসী বিলাল মিয়ার প্রথম স্ত্রী সালমা বেগম স্বপ্নার সাথে ছাড়াছাড়ি হয়ে গেলে স্বপ্না রঅন্য স্বামীর ঘরে চলে রযার এবং একমাত্র বাকপ্রতিবন্ধী মেয়ে নাজুয়া পিতার আশ্রয়ে থেকে যায়। পরে পিতা বিলাল মিয়া চেমন বিবি (৩০) নামের আরেক মহিলাকে বিয়ে করে সংসার কবরতে থাকেজন। তখন থেকে নাজুয়া তার সৎমা চেমন বিবির সাথেই থাকতো। গত ২১ এপ্রিল সকালে সৎমা চেনবিবির শোরচিৎকার শোনে আশপাশের লোকজনকে গিয়ে ঘরে তার সৎ মেয়ে নাজুয়ার গলায় ফাস দেয়া লাশ দেখেতে পান। খবর পেয়ে নাজুয়ার মামাসহ স্বজনরা ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন। এর পর পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ মর্গে প্রেরন করে। এসময় সৎমা চেমনবিবি দাবি করেন তার সৎমেয়ে নাজুয়া গরায় ফাস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে। এ ঘটনায় মৃত নাজুয়ার মামা আবুল বাশার বাদী হয়ে এসএমপির শাহপরাণ থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা (নং-১৪/১৬) করেন। মামলায় তিনি প্রাথমিকভাবে কাউকে সন্দেহ না করে ময়না তদন্ত রিপোর্টের পর হত্যা নিশ্চিত হলে হত্যামামলা করবেন বলে উল্লেখ করেন। এলাকাবাসীও  নাজুয়ার মৃত্যু নিয়ে নানা সন্দেহের মধ্যে রয়েছেন।
মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসএমপির শাহপরাণ(র.) থানার এসআই সোহেল রানা জানান, বাকপ্রতিবন্ধী আয়েশা সিদ্দিকা নাজুয়ার মৃত্যু রহস্যজনক বলেই থানায় অপমৃত্যু মামলা হয়েছে। কিন্তু ময়না তদন্ত রিপোটৃ এখনো তার হাতে পৌছায়নি। ময়না তদন্ত প্রতিবেদন পাওয়ার পর রিপোর্ট অনুযায়ী পরবর্তী আইনী ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান তিনি।

ফেসবুকে সিলেটের দিনকাল