সিলেট-কোম্পানীগঞ্জ সড়কে ধর্মঘট বিআরটিসি বাসে যাত্রীদের উপচেপড়া ভিড় – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

সিলেট-কোম্পানীগঞ্জ সড়কে ধর্মঘট বিআরটিসি বাসে যাত্রীদের উপচেপড়া ভিড়

প্রকাশিত: ১১:৪৯ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ১৯, ২০১৯

সিলেট-কোম্পানীগঞ্জ সড়কে ধর্মঘট বিআরটিসি বাসে যাত্রীদের উপচেপড়া ভিড়

রেজওয়ান আহমদ
সিলেট কোম্পানীগঞ্জ সড়কে অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘটের ডাক দিয়েছে সিএনজি অটোরিক্সা শ্রমিক ইউনিয়ন ৭০৭ আম্বরখানা সালুটিকর শাখা। ধর্মঘটের ফলে সকাল থেকে গাড়ি চলাচল বন্ধ রাখা হয়। যার কারণে এই রোডে যাতায়াতকারী যাত্রীরা কিছুটা ভোগান্তি মধ্যে পড়ে। বিআরটিসি বাস চলাচলের ফলে যাত্রীরা ভোগান্তি থেকে মুক্তি পায়। মজুমদারী এলাকায় বিআরটিসি বাস কাউন্টারে যাত্রীদের উপচেপড়া ভিড় লেগে থাকে সারাদিন। প্রতিদিন তিনটি বাস চলাচল করলেও ধর্মঘটে উপচেপড়া ভিড়ের কারণে আরেকটি বাস যুক্ত করা হয়। মোট চারটি বাস দিয়ে সারাদিন যাত্রীদের সেবা দিয়ে যান বিআরটিসি কর্তৃপক্ষ।
সিলেট-কোম্পানীগঞ্জ রোড দিয়ে চলাচলকারী কয়েকজন যাত্রী জানান, এই রোডে কিছুদিন পর পর পরিবহন শ্রমিকরা ধর্মঘটের ডাক দেয়। তাঁরা যাত্রীদের সেবা না দিয়ে নিজেদের স্বার্থের জন্য অযথা ধর্মঘট করে। ভোগান্তির মধ্যে পরতে হয় আমাদের। যাত্রীদের কাছ থেকে ভাড়াও নেওয়া হয় অতিরিক্ত। বিআরটিসি বাস সার্ভিস চালু করায় আমরা ভোগান্তি থেকে রক্ষা পাচ্ছি।
সিএনজি অটো রিক্সা শ্রমিক ইউনিয়ন ৭০৭ আম্বরখানা-সালুটিকর শাখার সভাপতি মো. আবুল হোসেন খান জানান, আমরা চারটি দাবি নিয়ে এই ধর্মঘট ডাক দিয়েছি। দাবিগুলো হলো- সড়ক পরিবহন আইন ২০১৮ এর শ্রমিক স্বার্থবিরোধী ও বৈষম্যমূলক ধারাগুলি সংশোধন, অনটেস্ট থাকা গাড়িগুলো রেজিস্ট্রেশনের সুযোগ প্রদান, অটোরিক্সা চালকদের লাইসেন্স করতে অষ্টম শ্রেণি পাস থাকা বাধ্যতামূলক। এই বিষয়টি বাতিল ও সিলেট-কোম্পানীগঞ্জ সড়কে বিআরটিসি বাস চলাচল বন্ধ করা। এই দাবিগুলো না মানা পর্যন্ত অনির্দিষ্টকালের জন্য ধর্মঘট চলবে। তিনি বলেন সড়ক পরিবহন যে আইন করা হয়েছে, তা মানা সম্ভব না। কারণ একজন ড্রাইভার ইচ্ছে করে দুর্ঘটনা করে না। পথচারীদের ভুলে অনেকসময় দুর্ঘটনা ঘটে যায়। একজন ড্রাইভার কিভাবে ৫ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ দিবে। প্রতিদিন তাঁরা যে টাকা আয় করে তা দিয়ে পরিবারের চাহিদা মেটাতে হিমশিম খাচ্ছে তাঁরা। রাস্থায় পুলিশ ও তাদের হয়রানি করে।
বিআরটিসি বাস কাউন্টারের একজন কর্মকর্তা জানান, উদ্বোধনের পর থেকে প্রতিদিন আমাদের তিনটি বাস চলাচল করছে। যাত্রীদের সেবায় আমরা কাজ করে যাচ্ছি। ধর্মঘটের কারণে চাপ বেড়েছে। যার ফলে আরেকটি বাস যুক্ত করা হয়েছে। ৪টি বাস দিয়ে ধর্মঘটের মধ্যে যাত্রীদের ভোগান্তি ছাড়া সেবা দিয়ে যাচ্ছি, পরিবহন শ্রমিকরা চার দফা দাবি বাস্তবায়ন করার লক্ষ্যে মজুমদারী বাস স্ট্যান্ডে মানববন্ধন করে তারা।