সিলেট নগরীতে যুবলীগের দু’ গ্রুপে সংর্ঘষ ! আসামি ছিনতাই ! নেপথ্যে অবৈধ পশুর হাট! – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

সিলেট নগরীতে যুবলীগের দু’ গ্রুপে সংর্ঘষ ! আসামি ছিনতাই ! নেপথ্যে অবৈধ পশুর হাট!

প্রকাশিত: ৭:৩৯ পূর্বাহ্ণ, আগস্ট ৩০, ২০১৬

সিলেট নগরীতে যুবলীগের দু’ গ্রুপে সংর্ঘষ ! আসামি ছিনতাই ! নেপথ্যে অবৈধ পশুর হাট!

Jobolige৩০ আগস্ট ২০১৬. মঙ্গলবার: সিলেট নগরীতে যুবলীগের দু’গ্রুপের পাল্টা-পাল্টি হামলার নেপথ্যে অবৈধ পশুর হাট!

সিলেট নগরীর শাহজালাল উপশহরসহ আশপাশ এলাকায়  ঈদুল আযহা উপলক্ষে্ অবৈধ পশুর হাট বসানো এবং এর নিয়ন্ত্রণ রাখাকে কেন্দ্র করেই যুবলীগের বিবদমান দুই গ্রুপের মধ্যে উত্তজনা বিরাজ করছে। এরই অংশ হিসেবে সোমবার রাতে নগরীর তেররতনে যুবলীগের বিবদমান দু’গ্রুপের হামলা-পাল্টা হামলা এবং সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এমনটি জানিয়েছেন এ সম্পর্কে ওয়াকিবহাল এলাকার লোকজন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় লোকজন জানান, দীর্ঘদিন থেকে তেররতনসহ শাহজালাল উপশহর এলাকায় যুবলীগের শামীম ইকবাল ও দুলাল গ্রুপের মধ্যে বিরোধ চলে আসছিল।

আসন্ন ঈদুল আযহায় উপশহর এলাকায় পশুর অবৈধ হাট বসানোকে কেন্দ্র করে এ বিরোধ চরম আকার ধারন করে। এর জের ধরে সোমবার রাত ১১টার দিকে উপশহর এলাকায় দু’গ্রুপের কর্মীরা হামলা-পাল্টা হামলা ও সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে।

খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে সংঘর্ষ থামাতে গেলে যুবলীগ কর্মীরা পুলিশের উপর হামলা চালায়। একপর্যায়ে পুলিশ ও যুবলীগ কর্মীদের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া হয়।

যুবলীগ কর্মীরা পুলিশের উপর ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে। এসময় তারা ৪টি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটায়। পরে পুলিশ লাঠিচার্জ করে তাদেরকে ছত্রভঙ্গ করে দেয়। এসময় পুলিশ যুবলীগের দুই কর্মীকে আটক করে পিকআপ ভ্যানে তুলে থানায় নিয়ে যাওয়ার সময় পুলিশের কাছ খেকে আটক দুই কর্মীকে ছিনিয়ে নিয়ে যায় শামীম ইকবাল গ্রুপ।

এছাড়া সংঘর্ষের সময় শাহপরাণ থানার ওসি শাহজালাল মুন্সীসহ ৪ পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন।

ঘটনার ব্যাপারে শাহপরাণ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহজালাল মুন্সী জানান, সংঘর্ষের খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গেলে তারা (যুবলীগ) পুলিশের উপর হামলা চালায়। হামলায় তিনিসহ ৪ পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন।

তবে এ ঘটনায়  আটক দুই যুবলীগ কর্মীকে ছিনিয়ে নেওয়ার বিষয়টি অস্বীকার করেন ওসি।

সিলেট নগরীতে যুবলীগের দু’গ্রুপের পাল্টা-পাল্টি হামলার নেপথ্যে অবৈধ পশুর হাট!

সিলেট নগরীর তেররতনে যুবলীগের দুই গ্রুপের মধ্যে হামলা-পাল্টা হামলার। এ সময় কয়েকটি ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটিয়ে আতঙ্কের সৃষ্টি করা হয়। এসময় পুলিশ দু’জনকে আটক করে। তবে যুবলীগের শামীম ইকবাল গ্রুপ পুলিশের ওপর হামলা করে পিকআপ ভ্যান থেকে আটক দু’জনকে ছিনিয়ে নিয়ে যায়। পুলিশের পিকআপ ভ্যান থেকে এই দুইজনকে ছিনিয়ে নেয় যুবলীগ ক্যাডাররা। সোমবার রাত ১১টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।
প্রত্যক্ষদর্শী সূত্র জানায়,, স্থানীয় যুবলীগ নেতা দুলাল গ্রুপের নেতাকর্মীরা মিছিল বের করেন। মিছিল শেষ হওয়ার পর নেতাকর্মীরা চলে যাওযার সময় যুবলীগ নেতা শামীম ইকবাল গ্রুপের নেতাকর্মীরা হামলা চালান। পরে উভয় গ্রুপের মধ্যে পাল্টাপাল্টি হামলার ঘটনা ঘটে। পর পর চারটি ককটেল বিস্ফোরণও  ঘটানো হয়।
ককটেলের বিস্ফোরণের খবর পেয়ে শাহপরাণ থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এসময় পুলিশ দু’জনকে আটক করে। তবে যুবলীগের শামীম ইকবাল গ্রুপ পুলিশের ওপর হামলা করে পিকআপ ভ্যান থেকে আটক দু’জনকে ছিনিয়ে নিয়ে যায়।
যুবলীগের হামলায় নিজে (ওসি) সহ চার পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন বলে জানিয়েছেন শাহপরাণ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহজালাল মুন্সী।

 

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

ফেসবুকে সিলেটের দিনকাল