সিলেট প্রেসক্লাবে অবস্থান কর্মসূচি : সাংবাদিক রোজিনা ইসলামের নিঃশর্ত মুক্তি ও হেনস্তাকারীদের শাস্তির দাবি

প্রকাশিত: ৯:০৯ অপরাহ্ণ, মে ১৯, ২০২১

সিলেট প্রেসক্লাবে অবস্থান কর্মসূচি : সাংবাদিক রোজিনা ইসলামের নিঃশর্ত মুক্তি ও হেনস্তাকারীদের শাস্তির দাবি

নিজস্ব প্রতিবেদক

দৈনিক প্রথম আলোর জ্যৈষ্ঠ প্রতিবেদক রোজিনা ইসলামের নিঃশর্ত মুক্তি ও হেনস্তাকারীদের শাস্তির দাবিতে অবস্থান কর্মসূচি পালন করেছে সিলেট প্রেসক্লাব। বুধবার বেলা সাড়ে ১১টায় প্রেসক্লাব প্রাঙ্গণে এ কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়। প্রেসক্লাব সভাপতি ইকবাল সিদ্দিকীর সভাপতিত্বে ও সহ-সাধারণ সম্পাদক আহমাদ সেলিমের পরিচালনায় এতে সূচনা বক্তব্য রাখেন সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রশিদ মো. রেনু।
সভাপতির বক্তব্যে ইকবাল সিদ্দিকী বলেন, ‘সাংবাদিক রোজিনা ইসলাম একজন খ্যাতিমান সাংবাদিক। করোনাকালীন সময়ে তিনি স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের দুর্নীতি নিয়ে একাধিক অনুসন্ধানী প্রতিবেদন প্রকাশ করেছেন যা দেশবাসীর জানা। তাঁর লিখনিতে এ খাতে ব্যাপক অনিয়ম জনসম্মুখে এসেছে। অথচ আজ তাঁকেই জেলে থাকতে হচ্ছে। আর দুর্নীতিবাজ, অপরাধী যারা তারা বাইরে আছে। তিনি পেশাগত দায়িত্ব পালনে গেলে সচিবালয়ে ঘণ্টার পর ঘণ্টা যে ভাবে হেনস্তা করা হয়েছে তা উদ্বেগজনক এবং স্বাধীন সাংবাদিকতার জন্য হুমকি। এর মাধ্যমে বিশ্বের কাছে দেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হয়েছে। আজ বিশ্ব গণমাধ্যমে এ খবর ফলাও করে প্রকাশ করা হয়েছে। তাই আমি বলব যারা এমন জঘন্য কাজ করেছে তাদের আইনের আওতায় এনে শাস্তি প্রদান করা হোক একই সাথে রোজিনা ইসলামকে মুক্তি দেওয়া হোক।
এ সময় অনুসন্ধানী সাংবাদিকতাকে কাজে লাগিয়ে স্বাস্থ্যখাতের দুর্নীতির মুখোশ উন্মোচন করার আহ্বান জানিয়ে ইকবাল সিদ্দিকী আরও বলেন, ‘সাংবাদিক সমাজ যেভাবে রোজিনা ইসলামের পাশে দাঁড়িয়েছেন তা অব্যাহত রাখতে হবে। একই সাথে অনুসন্ধানী সাংবাদিকতাকে কাজে লাগিয়ে স্বাস্থ্য খাতের ব্যাপক দুর্নীতি জনসম্মুখে নিয়ে আসতে হবে। কারণ অনুসন্ধানের বিকল্প নেই।’
এ সময় বক্তারা আরও বলেন, ‘সাংবাদিকদের কাজই হচ্ছে তথ্য সংগ্রহ করা। তথ্য সংগ্রহ যদি অপরাধ হয় তাহলে রোজিনা ইসলাম একা অপরাধী নয়। সারা দেশের সকল সাংবাদিক অপরাধী। তাই সকল সাংবাদিকদের জেলে নেওয়া হোক। তাহলে আর কেউ দুর্নীতি নিয়ে সংবাদ প্রকাশ করবে না।’
বক্তব্য রাখেন ক্ল¬াবের সাবেক সভাপতি ইকরামুল কবির, সহ-সভাপতি এম এ হান্নান ও আবদুল কাদের তাপাদার, সিনিয়র সদস্য আব্দুল মালিক জাকা, সাবেক সহ-সভাপতি আ.ফ.ম. সাঈদ ও মোহাম্মদ বদরুদ্দোজা বদর, সদস্য আব্দুল বাতিন ফয়সল, মো. মুহিবুর রহমান, শেখ আশরাফুল আলম নাসির, আনিস রহমান, মাইদুল ইসলাম রাসেল, শাহ শরীফ উদ্দিন, শাকিলা আক্তার ববি প্রমুখ।
উপস্থিত ছিলেন ক্লাবের সাবেক কোষাধ্যক্ষ মো. আফতাব উদ্দিন, ক্রীড়া ও সংস্কৃতি সম্পাদক মারুফ আহমদ, পাঠাগার ও প্রকাশনা সম্পাদক কবির আহমদ, নির্বাহী সদস্য আশকার ইবনে আমিন লস্কর রাব্বী ও আব্দুর রাজ্জাক, সদস্য নাজমুল কবীর পাভেল, মো. দুলাল হোসেন, এম এ মতিন, আবু সাঈদ মো. নোমান, ইউনুছ চৌধুরী, শুয়াইবুল ইসলাম, নৌসাদ আহমেদ চৌধুরী, গোলজার আহমেদ, নিরানন্দ পাল, মো. মারুফ হাসান, মানাউবী সিংহ শুভ, হোসাইন আহমদ সুজাদ, এটিএম তুরাব, শাফী চৌধুরী, দিপক বৈদ্য দিপু, মাধব কর্মকার, সাকিব আহমদ মিঠু, সহযোগী সদস্য এইচ এম শহীদুল ইসলাম। এছাড়াও এসএ টিভির প্রতিনিধি আবু বকর আল আমিন, দৈনিক প্রথম আলোর আলোকচিত্রি আনিস মাহমুদ, ফটো সাংবাদিক মামুন হোসেন ও আজমল আলী প্রমুখ।

 

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

ফেসবুকে সিলেটের দিনকাল