সিলেট বিভাগে আওয়ামী লীগের নতুন চমক, নাদেলকে অভিনন্দন – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

সিলেট বিভাগে আওয়ামী লীগের নতুন চমক, নাদেলকে অভিনন্দন

প্রকাশিত: ৮:৩১ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ২৮, ২০১৯

সিলেট বিভাগে আওয়ামী লীগের নতুন চমক, নাদেলকে অভিনন্দন

লতিফ নুতন:
সিলেট বিভাগে আ. লীগের নতুন চমক তাতে হতাশায় থামা নয়। দলের তৃণমূলের নেতা-কর্মীদের মূল্যায়ন হয়েছে। রাখে আল্লাহ মারে কে? বন্ধুবর সিলেট জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সফল সভাপতি, ৯০দশকের তুখোর ছাত্রনেতা শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল আ. লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছেন। আমরা যারা ৯০ দশকের প্রথম দিকে ছাত্রলীগ কর্মী ছিলাম তাদের আশার আলো হয়েছে। ৮০দশকের শেষের দিকে শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল সিলেট এমসি কলেজ ছাত্রলীগ নেতা ছিলেন। আমি সিলেট সরকারী কলেজ ছাত্রলীগের কর্মী।

সে সুবাদে শফিউল আলম চৌধুরী নাদেলের সাথে আমরা ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক গড়ে উঠে। অনেকে ভাবছেন নাদেল কি ভাবে সাংগঠনিক সম্পাদক হলেন। তাতে আশ্চর্য হবার কিছু নেই। কারন তা হল জাতির জনকের কন্যা,আ. লীগের সভানেত্রী, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নতুন চমক। তা একটি সারা দেশের নেতা-কর্মীদের জন্য একটি ম্যাসেজ। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ আর শফিউল আলম চৌধুরী নাদেলকে অভিনন্দন।

গত ৫ ডিসেম্বর সিলেট জেলা ও মহানগর আ.লীগের সম্মেলন ও নতুন কমিটি ঘোষনা হওয়ায় আ.লীগের তৃণমূলের নেতা কর্মীদের মধ্যে উল্লাস দেখা যাচ্ছে। দলীয় নেতা-কর্মীরা তাদের প্রাণ ফিরে পেয়েছে। সিলেট জেলা আ. লীগের নতুন সভাপতি এডভোকেট লুৎফুর রহমান ও সাধারন সম্পাদক সাবেক ছাত্রনেতা নাসির উদ্দিন খান এবং মহানগর আ.লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযুদ্ধা মাসুক উদ্দিন আহমদ ও সাধারন সম্পাদক সাবেক ছাত্রনেতা অধ্যাপক জাকির হোসেন সিলেটের দলীয় নেতা কর্মীদের আঙ্খাখা পূরন এবং আপন ঠিকানা ফিরে পেয়েছে।

বঙ্গকন্যা মাননীয় নেত্রী আপনার সিদ্ধান্ত সমপযোগী। সিলেট বিভাগ থেকে আ.লীগের কেন্দ্রীয় নেতৃত্বে ৭জন নেতা স্থান পেয়েছেন। সবাইকে অভিনন্দন। আ.লীগের সভাপতি মন্ডলীর সদস্য হয়েছেন সাবেক শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। উপদেষ্ঠা মন্ডলীতে স্থান পেয়েছেন সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত, সাবেক সচিব ইনাম আহমদ চৌধুরী, সিলেট জেলা আ.লীগের সাবেক সভাপতি এডভোকেট আবু নছর,সাংগঠনিক সম্পাদক শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল,সদস্য হয়েছেন সিলেটের সাবেক মেয়র বদর উদ্দিন কামরান, হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতি ডাঃ মুশফিকুর রহমান।

সবাই নিজ নিজ স্থান থেকে যোগ্য। তাতে আগামী দিনে সিলেট বিভাগে আ. লীগে সাংগঠনিক অবস্থান হবে সকলের প্রত্যাশা। ৯০দশকের পর যারা সিলেটে ছাত্রলীগ করেছেন তাদের যুগ যুগ ধরে অনেককে মূল্যায়ন হয়নি। আ.লীগের কবিরাজরা তাদের ইচ্ছা মত কমিটি করেছেন। অনেক ত্যাগী নেতা-কর্মীরা দলে নিশ্চুপ ছিলেন। গত ৩ দিনে দেখা যাচ্ছে তারা শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল হওয়াতে সবাই উৎফুল্ল। বিশেষ করে ৯৭ ব্যাচ ছাত্রলীগ উৎফুল্ল। কারন হল সে ব্যাচে জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি ছিলেন শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল আর সাধারন সম্পাদক ছিলেন জেলা আ.লীগের নব নির্বাচিত সাধারন সম্পাদক নাসির উদ্দিন খান।

নতুন পুরাতন নিয়ে আগামী দিনে সিলেট আ.লীগ সাজানো হবে তৃণমূলের প্রত্যাশা। নাদেল ও নাসির সিলেটের রাজনীতির একটি ব্যান্ড। দুই নেতার প্রত্যাশা আপনারা দুদির্নের কর্মীদের মূল্যায়ন করবেন। ৮০ ও ৯০ দশকের ছাত্রনেতাদের অনেক আজ হতাশ তারা রাহুর কবলে পড়ে রাজনীতিতে নৌকায় ভোট দেওয়া ছাড়া আর কোন কাজ নেই। তাদের কাজে লাগান। আমরা দলে কাজ করতে চাই।

কুলাউড়ার কৃতি সন্তান, শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল আজ কুলাউড়ার নয় তিনি হচ্ছেন সিলেট বিভাগের দলীয় কর্মীদের আপন ঠিকানা। এক সময়ে কুলাউড়া থেকে আমাদের প্রানপ্রিয় নেত্রী,মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একজন কে ঠেনে কেন্দ্রীয় কমিটিকে নিয়ে এমনকি ছাত্রলীগের সভাপতি করে সৃষ্ঠি করেছিলেন। কিন্তুু তিনি’র আজ আওয়ামী রাজনীতিতে অপমৃত্যু হয়েছে। সেই জায়গায় শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল কে সৃষ্টি করে কুলাউড়া বাসীকে একটি উপহার দিয়েছেন। এখন আর ভাড়া করে কুলাউড়ায় প্রার্থী দিতে হবে না। তাই শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল কে বুঝতে হবে আপনি তৃণমূল থেকে এসেছেন উড়ে এসে জুড়ে বসেন নাই। আপনাকে তৃণমূলের আশা আঙ্খাখার প্রতি ফলন ঘঠাতে হবে।

আজ বার বার মনে পড়ছে আমাদের সিলেটের কৃতিসন্তান,সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী,আ.লীগের সাবেক সভাপতিমন্ডলীর সদস্য মরহুম আব্দুস সামাদ আজাদ, বর্ষিয়ান নেতা বাবু সুরঞ্জিত সেন গুপ্ত,সাবেক মন্ত্রী দেওয়ান ফরিদ গাজী,সাবেক স্পীকার হুমায়ুন রশীদ চৌধুরী,সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এস এম কিবরীয়া। তারা আজ আমাদেরকে ছেড়ে পরকালে চলে গেছেন। সিলেট আ.লীগ অভিবাবক শূন্য নয়।

সিলেটে আ.লীগ, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবকলীগ, শ্রমিকলীগ, ছাত্রলীগে যারা অনুপ্রেবশকারী ঢুকেছে তাদেরকে তাড়িয়ে দেওয়া। জেলা ও মহানগর ছাত্রলীগ নতুন কমিটি মেয়াদ উত্তীর্ণ স্বেচ্ছাসেবকলীগের নতুন কমিটি ঘোষনা করা। যুবলীগের পুনাঙ্গ কমিটি। জেলা শ্রমিকলীগের সম্মেলনের মাধ্যমে নতুন নেতৃত্ত্ব সৃষ্টি করা।

আজ নতুন কেন্দ্রীয় নেতাদের মূল দায়িত্ব। এবং এজন্য শফিউল আলম চৌধুরী নাদেলকে সাংগঠনিক ভীত মজবুত করতে দায়িত্ব পালন করতে হবে। সিলেট আ. লীগে কর্মী বান্ধব নেতা নেত্রী দিয়েছেন। এখন আর নেতা পূজা আর তোষামুদি করতে হবে না। সবাই তার আপন ঠিকানা ফিরে পেয়েছে। আপন ঠিকানায় আমরা তৃণমূল আওয়ামীলীগের মূল্যায়ন চাই।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

ফেসবুকে সিলেটের দিনকাল