সিলেট-৫ আসনে নির্বাচনী প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন সম্ভাব্য প্রার্থীরা – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

সিলেট-৫ আসনে নির্বাচনী প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন সম্ভাব্য প্রার্থীরা

প্রকাশিত: ১:২৮ পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ১২, ২০১৮

সিলেট-৫ আসনে নির্বাচনী প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন সম্ভাব্য প্রার্থীরা
দেশের উত্তরপূর্ কোণে ভারত ঘেঁষা জনপদ জকিগঞ্জ-কানাইঘাট; এ দুই উপজেলা নিয়ে গঠিত সংসদীয় আসন সিলেট-৫। এ আসনের বর্তমান সংসদ সদস্য (এমপি) বিরোধী দলীয় হুইপ সেলিম উদ্দিন। দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মহাজোটের ব্যানারে প্রার্থী হয়ে বিনা ভোটে বিজয়ী হন জাতীয় পার্টির এই নেতা। বিগত দিনে আসনটিকে আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য ছিলেন হাফিজ আহমদ মজুমদার।
এ আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী তালিকায় রয়েছেন- আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় উপ-কমিটির সদস্য ফয়সাল আহমদ রাজ, জেলা সহ-সভাপতি মাসুক উদ্দিন আহমদ, রূপালী ব্যাংকের চেয়ারম্যান ড. আহমদ আল কবির, সিলেট বিভাগ আইনজীবী পরিষদের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মোস্তাক আহমদ, কৃষক লীগের কেন্দ্রীয় নেতা আবদুল মুমিন চৌধুরী ।
অন্যদিকে সিলেট  জেলা বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি আবুল কাহির চৌধুরী,জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি ও কানাইঘাট উপজেলা চেয়ারম্যান  আশিক উদ্দিন চৌধুরী ও জেলা বিএনপির সহ সভাপতি মামুনুর রশীদ মামুন  বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশী।
২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি সংসদ নির্বাচনে জাতীয় পার্টিকে আসনটি ছেড়ে দেয় আওয়ামী লীগ। তবে এবার এই আসনটি জাপার দখল থেকে মুক্ত করতে তৎপর রয়েছেন আওয়ামী লীগের ৫ প্রার্থী।
অন্যদিকে, জামায়াতকে কোনো অবস্থায়ই আসনটি ছাড় দিতে নারাজ স্থানীয় বিএনপি। এজন্য দলের মনোনয়ন পেতে তৎপর বিএনপির তিন নেতা।
এছাড়া বর্তমান সংসদ সদস্য সেলিম উদ্দিনকে হটিয়ে পার্টির মনোনয়ন পেতে তৎপরতা চালাচ্ছেন জাপার তিন নেতা। তিনজনই পার্টির মনোনয়ন প্রাপ্তির ব্যাপারে আশাবাদী।
এ আসনে আল-ইসলাহ’র কেন্দ্রীয় সভাপতি মাওলানা হুসাম উদ্দিন চৌধুরী ফুলতলী আসনটি চাইতে পারেন আওয়ামী লীগের কাছে। আর ২০ দলীয় জোটের পক্ষ থেকে শরিক জামায়াত আবারও আসনটিতে মাওলানা ফরিদ উদ্দিনকে প্রার্থী দিতে জোর তৎপরতা চালাচ্ছে।
এখন দেখার পালা, আসনটি পুনঃরুদ্ধারে বড় দুই দলের প্রার্থী হচ্ছেন কারা? নাকি অতীতের মতো শরিকদের হাতে আসনটি ছেড়ে দেবে আ’লীগ-বিএনপি। জাপা-জামায়াত প্রার্থীরা কেবল সেই সুযোগের অপেক্ষায়।
সব মিলিয়ে একাদশ সংসদ নির্বাচনে বিভিন্ন দলের ১৪ জন সম্ভাব্য প্রার্থী এলাকায় নির্বাচনী প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। তাদের নিয়ে নেতা-কর্মীরাও দ্বিধাবিভক্ত।
আর জাতীয় পার্টির মনোনয়ন চান- বর্তমান সংসদ সদস্য ও পার্টির চেয়ারম্যানের আন্তর্জাতিক উপদেষ্টা সেলিম উদ্দিন, কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও জকিগঞ্জ উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান সাব্বির আহমদ, পার্টির কেন্দ্রীয় সদস্য সাইফুদ্দিন খালেদ, কেন্দ্রীয় সদস্য ও জেলা ছাত্রসমাজের সাবেক সভাপতি জাকির হোসাইন।
এ বিষয়ে জেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি মাসুক উদ্দিন আহমদ বলেন, ‘৫৩ বছরের রাজনৈতিক ক্যারিয়ার আমার। পারিবারিক ঐতিহ্যও আওয়ামী লীগের। এলাকায় এ যাবৎ কোনো বদনামের ভাগিদার হইনি। গত নির্বাচনে মনোনয়ন পেলেও জাপাকে আসনটি ছেড়ে দেওয়ায় নেত্রীর সিদ্ধান্তকে সম্মান জানিয়ে প্রার্থী হইনি।
মনোনয়ন পাওয়া নিয়ে আশাবাদী লায়ন ফয়সাল আহমদ রাজ। তিনি বলেন, কানাইঘাট জকিগঞ্জের জনগনের সাথে যুক্ত ছিলাম। সে সুবাদে কাজ করে যাচ্ছি  আর ২ উপজেলার নেতাকর্মীদের এক্যবদ্ব করতে কাজ করে যাচ্ছি এবং  এলাকার জনগণও প্রার্থী হিসেবে আমাকে চায়।
সিলেট জেলা বিএনপির সহ সভাপতি আশিক উদ্দিন চৌধুরী বলেন, বিএনপি নির্বাচনে গেলে দলের মনোনয়ন চাইবো। তবে আগে চেয়ারপারসনের মুক্তি চাই।
জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক সাব্বির আহমদ বলেন, দশম সংসদ নির্বাচনে পার্টির চেয়ারম্যানের নির্দেশে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েও প্রত্যাহার করি। এবার পার্টির চেয়ারম্যান নিজেই এ আসনে নির্বাচনের প্রস্তুতি নিতে বলেছেন।
জাপার কেন্দ্রীয় সদস্য সাইফুদ্দিন খালেদ বলেন, পার্টির চেয়ারম্যান বর্তমান সংসদ সদস্য সেলিম উদ্দিনকে অন্য আসনে নির্বাচন করতে বলেছেন। এই আসনে আমার নির্বাচন করার নিশ্চয়তা দিয়েছেন।
সূত্র জানায়, দু’টি পৌরসভা ও ১৮ টি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত সিলেট-৫ আসনে ভোটার তিন লাখ ৮ হাজার ৬১৬ জন। এর মধ্যে পুরুষ এক লাখ ৫৪ হাজার ৭০৫ এবং এক লাখ ৫৩ হাজার ৯১১ জন নারী ভোটার।