সুনামগঞ্জে পরিবহন ধর্মঘট : বিপাকে যাত্রীরা – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

সুনামগঞ্জে পরিবহন ধর্মঘট : বিপাকে যাত্রীরা

প্রকাশিত: ১০:০০ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৯, ২০২১

সুনামগঞ্জে পরিবহন ধর্মঘট : বিপাকে যাত্রীরা

দিনকাল ডেস্ক
চাঁদা আদায়ের অভিযোগে সুনামগঞ্জ-সিলেট পরিবহন ধর্মঘটে পথে পথে ভোগান্তিতে পড়েছেন গন্তব্যে ছুটে চলা সাধারণ মানুষ। রবিবার (১৯ সেপ্টেম্বর) সকাল ৬টা থেকে জেলা সড়ক পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়ন এ ধর্মঘট পালন করে। হঠাৎ করে ধর্মঘট ডাকায় গন্তব্যমুখী মানুষ চরম বিপাকে পড়ে। সকালে বিভিন্ন উপজেলা থেকে জেলা শহরের সুনামগঞ্জ বাস টার্মিনালে এসে সাধারণ যাত্রীরা দেখে টিকিট কাউন্টারগুলো বন্ধ। বাস কাউন্টারের সামনে অনেকেই পরিবার-পরিজন নিয়ে গন্তব্যে যাওয়া জন্য অপেক্ষা করে। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে কাউন্টারগুলোর সামনে বাড়ছে যাত্রীদের ভিড়।
তাহিরপুরের বাদাঘাট এলাকার মো. রিয়াজুল ইসলাম বলেন, আমি একজন বিদেশযাত্রী। ভ্যাকসিন নিতে ঢাকায় যেতে হবে। এখন বাস স্টেশনে এসে জানতে পারলাম আজ থেকে ঢাকাগামী বাস চলবে না। এতে আমরা বিপাকে পড়েছি। আগে জানলে আমি ঢাকা যাওয়ার বিকল্প ব্যবস্থা করতাম।
হবিগঞ্জ থেকে আসা জুয়েল আহমেদ বলেন, একটা প্রজেক্টের কাজের জন্য সুনামগঞ্জ আসছি, আজ বাড়ি যাওয়ার কথা। কিন্তু হঠাৎ শুনলাম যানবাহন চলবে না। এটা আসলেই দুঃখজনক। সুনামগঞ্জ থেকে প্রায় ১৫০ কিলোমিটার দূরে হবিগঞ্জ যাওয়ার এখন কোনো মাধ্যমই নেই। এ সমস্যার দ্রুত সমাধানে সরকারের কাছে জোর দাবি জানাচ্ছি।
সুনামগঞ্জ-সিলেট রুটের বাসচালক জয়নাল মিয়া বলেন, সিলেট বাইপাস সড়কে একটি চক্র আমাদের কাছ থেকে অবৈধভাবে চাঁদা আদায় করছে। চাঁদা না দিলে মারধর করে। আমরা বিষয়টি শ্রমিক নেতাদের জানালে তারা পুলিশকে জানান। কিন্তু কোনো প্রতিকার না পেয়ে আমরা ধর্মঘট ডেকে দূরপাল্লার বাস চলাচল বন্ধ রেখেছি।
শ্যামলী পরিবহনের শ্রমিক আবদুল করিম বললেন, আমরা প্রতিদিন ঢাকায় যাওয়ার সময় সিলেট বাইপাস থেকে চাঁদা নেয় কিছু মানুষ। আমরা বিষয়টি প্রশাসনকে জানিয়েছি। কিন্তু তারা চাঁদা বন্ধে কোনো ব্যবস্থা নেয়নি। তাই আজ আমরা বাধ্য হয়েই অনির্দিষ্টকালের জন্য ধর্মঘটের ডাক দিয়েছি।
সুনামগঞ্জ জেলা পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক নূরুল হক বললেন, সুনামগঞ্জ থেকে ছেড়ে যাওয়া আন্তঃজেলা বাসগুলো সিলেটের বাইপাস সড়কে গেলেই চাঁদাবাজির শিকার হয়। ১ সেপ্টেম্বর থেকে এ অরাজক পরিস্থতির সৃষ্টি হয়েছে। চাঁদাবাজি ঠেকাতে সিলেটের শ্রমিক নেতারা, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কাছে নালিশ করায় তারা আরও বেপরোয়া হয়েছে। শ্রমিকদের মারধরও করেছে তারা। এ অবস্থায় পরিবহন ধর্মঘট অব্যাহত আছে।