হবিগঞ্জের তিন ভাইয়ের রায় যেকোনো দিন – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

হবিগঞ্জের তিন ভাইয়ের রায় যেকোনো দিন

প্রকাশিত: ১০:৫২ পূর্বাহ্ণ, মে ১১, ২০১৬

হবিগঞ্জের তিন ভাইয়ের রায় যেকোনো দিন

0160c4d0b154fccae5fba2e2a0f07b2b-manobotabirudi-oporadhহবিগঞ্জের দুই আপন ভাই মহিবুর রহমান (৬৫) ও মজিবুর রহমান (৬০) এবং তাঁদের চাচাতো ভাই আবদুর রাজ্জাকের (৬৩) বিরুদ্ধে করা একাত্তরের মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলার কার্যক্রম শেষ হয়েছে। আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল যেকোনো দিন রায় ঘোষণা করবেন।

বিচারপতি আনোয়ারুল হকের নেতৃত্বাধীন তিন সদস্যের ট্রাইব্যুনালে আজ বুধবার এই মামলায় রাষ্ট্র ও আসামিপক্ষ যুক্তি উপস্থাপন শেষ করে। এরপর রায় ঘোষণা অপেক্ষমাণ (সিএভি) রাখেন ট্রাইব্যুনাল।

শুনানিতে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন প্রসিকিউটর সুলতান মাহমুদ, রেজিয়া সুলতানা ও তাপস কান্তি বল। আসামিপক্ষে ছিলেন আইনজীবী গোলাম কিবরিয়া, পারভেজ হোসেন, মাসুদ রানা ও উজ্জল হোসেন।

শুনানিতে রাষ্ট্রপক্ষ আসামিদের সর্বোচ্চ সাজার আরজি জানায়। বিপরীতে আসামিপক্ষ বলেছে, রাষ্ট্রপক্ষ আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণে ব্যর্থ হয়েছে। এ জন্য তাঁরা আসামিদের খালাসের আরজি জানান।

গত বছরের ২৯ সেপ্টেম্বর এই তিন আসামির বিরুদ্ধে চারটি অভিযোগ গঠন করার মধ্য দিয়ে বিচার শুরু হয়। ২১ অক্টোবর থেকে রাষ্ট্রপক্ষের সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হয়। রাষ্ট্রপক্ষে সাক্ষ্য দেন ১২ জন। আসামিপক্ষে সাক্ষ্য দেন সাতজন। সাক্ষ্য গ্রহণ শেষে ১০ মে থেকে দুই পক্ষের যুক্তি উপস্থাপন শুরু হয়।

ট্রাইব্যুনালের গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারির পরিপ্রেক্ষিতে গত বছরের ১৯ মে এই তিন ভাইকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। তাঁদের তিনজনকে আজ কারাগার থেকে ট্রাইব্যুনালে হাজির করা হয়।

চার অভিযোগ: মহিবুর, মজিবুর ও রাজ্জাকের বিরুদ্ধে প্রথম অভিযোগ, একাত্তরে হবিগঞ্জের বানিয়াচং উপজেলায় অভিযান চালিয়ে তাঁরা মুক্তিযোদ্ধা আকল আলী ও রজব আলীকে হত্যা করে লাশ গুম করেন। দ্বিতীয় অভিযোগ, আসামিদের সহযোগিতায় পাকিস্তানি সেনারা মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক মেজর জেনারেল এম এ রবের বাড়িতে হামলা চালিয়ে অগ্নিসংযোগ ও লুণ্ঠন চালান। তৃতীয় অভিযোগে বলা হয়েছে, খাগাউড়া এলাকার উত্তরপাড়ায় আসামিদের সহযোগিতায় পাকিস্তানি সেনারা দুই নারীকে ধর্ষণ করেন। চতুর্থ অভিযোগ, আনছার আলী নামের এক ব্যক্তিকে বাড়ি থেকে ধরে নিয়ে রাজাকার ক্যাম্পে আটক রেখে নির্যাতন চালান আসামিরা। ওই নির্যাতনে পঙ্গু হন আনছার।