১৫ ও ২১ শে আগস্টের কুশিলবরা এখনো চারিদিকে ছড়িয়ে আছে-তথ্যমন্ত্রী – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

১৫ ও ২১ শে আগস্টের কুশিলবরা এখনো চারিদিকে ছড়িয়ে আছে-তথ্যমন্ত্রী

প্রকাশিত: ৯:৩৬ অপরাহ্ণ, আগস্ট ২০, ২০২০

১৫ ও ২১ শে আগস্টের কুশিলবরা এখনো চারিদিকে ছড়িয়ে আছে-তথ্যমন্ত্রী

বঙ্গবন্ধুকে যারা রাজনৈতিকভাবে মোকাবেলা করতে সক্ষম হয়নি। তারাই ষড়যন্ত্র করে তাকে হত্যা করেছে। একইভাবে ২১শে আগস্ট বৃষ্টির মতো গ্রেনেড ছুঁড়ে বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যা চেষ্টা করা হয়েছে। সেই ১৫ ও ২১ শে আগস্টেও কুশিলবরা এখনো চারিদিকে ছড়িয়ে আছে। তাই আমাদেরকে সতর্ক থাকতে হবে বলে মন্তব্য করেছেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ এমপি।

বৃহস্পতিবার (২০ আগস্ট) বিকেলে সিলেট জেলা পরিষদ মিলনায়তনে করোনাকালীন পরিস্থিতিতে সিলেট বিভাগের চার জেলার সাংবাদিকদের মাঝে প্রধানমন্ত্রীর আর্থিক সহায়তা চেক বিতরণকালে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, করোনার সাড়ে ৫ মাস। এই সময়ে দেশে মৃত্যুও হার সার্কভ’ক্ত দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশে সবচেয়ে কম। করোনা মোকাবেলায় সরকার সক্ষমতা দেখাতে না পারলে বাংলাদেশে ভারত-পাকিস্তানের চেয়ে বেশি মানুষ মরতো। আর তা প্রধানমন্ত্রীর দক্ষ নেতৃত্বেও কারণে সম্ভব হয়েছে।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, করোনাকালে সরকার দেশে ৮ কোটি মানুষকে খাদ্য সহায়তা দিয়েছে। নগদ ২৫০০ টাকা করেও দেওয়া হয়েছে। আর করোনাকালে অগ্রভাগের যোদ্ধা সাংবাদিকদেরও অর্থসহায়তা দিয়ে যাচ্ছে।

তিনি বলেন, আমরা দলমত নির্বিশেষে সবাইকে সহায়তা দিয়েছি। এটাই আওয়ামী লীগের মূলনীতি। এ ধরণের সহায়তা সার্কভ’ক্ত দেশগুলোর কোনো সরকার করেনি। তাছাড়া করোনাকালেও শেখ হাসিনার দক্ষ নেতৃত্বের কারণে অর্থনীতির চাকা সচল রয়েছে। গত মাসের চেয়ে এ মাসে রফতানী আরো ১৩ শতাংশ বেড়েছে। এ কারণে বিশ্বের বুকে শেখ হাসিনাকে উন্নয়নের রোল মডেল আখ্যা দেওয়া হয়।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি মোল্লা জালাল বলেন, বঙ্গবন্ধু একটি দেশ দিয়েছেন। এ কারণে পুরো পৃথিবী মূল্যায়ন করে দেখেছে তিনি মহামানব।

তিনি বলেন, স্ংাবাদিকদের মানোন্নয়নের জন্য বঙ্গবন্ধু পিআইবি গঠন করেছেন। তাই সাংবাদিকতায় বস্তুনিষ্টতায় জাতিরজনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, দেশাত্ববোধের ব্যাপারে কোনো আপোষ নেই। তিনি সাংবাদিকদের ঐক্যেবদ্ধ হতে এবং সিলেটে ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন গঠনের তাগিদ দেন।

ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের মহাসচিব শাবান মাহমুদ বলেন, বিশ্ব পরিস্থিতি যখন টালমাটাল, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দুরদর্শিতায় তখন করোনা অনেকটা নিয়ন্ত্রনে এসেছে। দেশের মানুষ যখন অসহায়, তখন তিনি পাশে দাঁড়িয়েছেন। পোষাক শিল্পকে বাঁচাতে প্রণোদনা দিয়েছে।প্রতি জেলায় জেলায় সাংবাদিকদের অর্থ সহায়তা দিয়েছেন। যখন কোনো রাষ্ট্র সাংবাদিকদেও আর্থিক সহায়তা দেয়নি, তখন বাংলাদেশে প্রধানমন্ত্রী সাংবাদিকদেও পাশে দাঁড়িয়েছেন।

সিলেটের জেলা প্রশাসক এম কাজি এমদাদুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা মাসুক উদ্দিন আহমদ, সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক জাকির হোসেন, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নাসির উদ্দিন খান, সিলেট জেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি তাপস দাশ পুরকায়স্থ, প্রেসক্লাবের সভাপতি ইকবাল সিদ্দিকী। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন তথ্য অধিদপ্তর সিলেটের উপ পরিচালক যুলিয়া জেসমিন মিলি। অনুষ্ঠানে সিলেট বিভাগের চার জেলার ১০৫ জন সাংবাদিককে ১০ হাজার টাকা কওে প্রধানমন্ত্রীর অনুদানের চেক হস্তান্তর করেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

ফেসবুকে সিলেটের দিনকাল