২২ নভেম্বর সিলেট সিটি কর্পোরেশন ঘেরাও কর্মসুচী – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

২২ নভেম্বর সিলেট সিটি কর্পোরেশন ঘেরাও কর্মসুচী

প্রকাশিত: ১০:২৮ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২২, ২০২০

২২ নভেম্বর সিলেট সিটি কর্পোরেশন ঘেরাও কর্মসুচী

অনলাইন ডেস্ক : বৃহত্তর সিলেটের অরাজনৈতিক কল্যাণমূলক স্বেচ্ছাসেবী সামাজিক সংগঠন সিলেট কল্যাণ সংস্থা এবং সিলেট বিভাগের যুব সংগঠক, আত্মকর্মী ও বাংলাদেশ প্রেমী সৃষ্টিশীল যুবদের সমন্বয়ে এ প্রজন্মের মুক্তিযোদ্ধাদের নিয়ে গঠিত অরাজনৈতিক স্বেচ্ছাসেবী সামাজিক যুব সংগঠন সিকস’র অঙ্গ সংগঠন সিলেট বিভাগ যুব কল্যাণ সংস্থার যৌথ আয়োজনে ২০ অক্টোবর ২০২০ মঙ্গলবার বিকাল ৪টায় সিলেট কল্যাণ সংস্থার কেন্দ্রীয় কার্যালয় (হক মঞ্জিল, শাপলা-১০, উত্তর জল্লারপার, ০২ নং ওয়ার্ড, সিলেট সিটি কর্পোরেশন, সিলেট) হতে সিিেলট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার হয়ে শাহী ঈদগাহ মাঠ প্রাঙ্গন পর্যন্ত ঐতিহ্যবাহী শাহী ঈদগাহের পবিত্রতা রক্ষা ও সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের সম্মান রক্ষার দাবীতে পদযাত্রা কর্মসূচী অনুষ্ঠিত হয়। পদযাত্রা পরবর্তী সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ ও শাহী ঈদগাহ মাঠ প্রাঙ্গণে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।
সমাবেশে বক্তারা বলেন, সিলেটের ঐতিহাসিক শাহী ঈদগাহের পবিত্রতা রক্ষায় মাদক সেবী, অশ্লীল নারীদের অবাধ বিচরণসহ সকল অনৈসলামিক কার্যকলাপ বন্ধ করতে হবে। সর্বোপরী শাহী ঈদগাহ নামাজের স্থান। যেখানে ঈদের নামাজ ও জানাজার নামাজ অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে কোন ধরণের অনৈসলামিক কার্যকলাপ হতে দেওয়া হবে না। এই পবিত্র মাঠিতে বিশ্ব বরেণ্য আলেমে দ্বীন সহ বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ ও সাধারণ জনতা নামাজ আদায় করেন। তাই শাহী ঈদগাহ মাঠের পবিত্র রক্ষার জন্য সিসিক সহ প্রশাসনের কড়া নজরদারির আহ্বান করেন বক্তারা।
শহীদ মিনারে বক্তারা বলেন, শহীদ মিনারে উপস্থিত হলে প্রত্যেক মানুষের ভেতরে দেশপ্রেমের উদয় হয়। মানুষ দেশের জন্য নিজেকে উৎসর্গ করতে চায়। দেশের প্রতি সর্বস্তরের জনসাধারণের চেতনা জাগ্রত হয়। কিন্তু কয়েকদিন ধরে সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার সম্পূর্ণরূপে খোলামেলা হয়ে পড়েছে। যে যেভাবে পারছে সেভাবে শহীদ বেদিতে উঠে সম্মানহানী করছে। যা অত্যন্ত দুঃখজনক ও নিন্দনীয়। আগামী ৩০ দিনের মধ্যে শাহী ঈদগাহের পবিত্রতা রক্ষা ও সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের সম্মান রক্ষায় কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করা না হলে ২২ নভেম্বর সিসিক ঘেরাও কর্মসুচী গ্রহণ করা হবে।
গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছ থেকে জাতীয় যুব দিবস ২০১০-এ জাতীয় যুব পুরস্কার শ্রেষ্ঠ যুব সংগঠক পদকপ্রাপ্ত, দক্ষ, কর্মমূখী, গতিশীল যুব সমাজের স্বপ্নদ্রষ্টা ও ব্যতিক্রমধর্মী কর্মসূচীর উদ্ভাবক সিলেট বিভাগের সামাজিক যুব কার্যক্রমের কর্ণধার সংস্থাদ্বয়ের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি মোহাম্মদ এহছানুল হক তাহেরের সভাপতিত্বে এবং সিবিযুকস’র প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ও সিবিযুকস’র বিভাগীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক হুমায়ূন রশিদ চৌধুরীর পরিচালনায় শাহী ঈদগাহ মাঠ প্রাঙ্গণে আয়োজিত সমাবেশে শুরুতে পবিত্র কোরআন শরীফ থেকে তেলাওয়াত করেন সিবিযুকস’র বিভাগীয় কমিটির অর্থ সম্পাদক মুসলেহ উদ্দিন চৌধুরী মিলাদ। স্বাগত বক্তব্য রাখেন সিবিযুকস’র বিভাগীয় কমিটির সিনিয়র সহ-সাধারণ সম্পাদক বিজিত চন্দ। সমাবেশে একাত্মতা পোষণ করে বক্তব্য রাখেন হাজারীবাগ জামে মসজিদের পেশ ইমাম ও খতিব মাওলানা আব্দুল মুমিদ, নিরাপদ সড়ক ও রেলপথ বাস্তবায়ন পরিষদের মহাসচিব এম. বাবর লস্কর, সিবিযুকস’র বিভাগীয় কমিটির সহ-সভাপতি মো. নিয়াজ কুদ্দুস খান, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক ও জাতীয় যুব দিবস ২০১৯ এ বিভাগীয় সফল যুব সংগঠক পদকপ্রাপ্ত সৈয়দ রাসেল, সিনিয়র সহ-ধর্ম সম্পাদক দিপক কুমার মোদক বিলু, সাহিত্য ও সংস্কৃতিক সম্পাদক ইন্দ্রজ্যোতি পাল জীবন, মহানগর প্রতিনিধি সম্পাদক সৈয়দ ইব্রাহীম, সহ-প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক মোঃ রমজান আহমদ শাকিল, সহ-যুব ও ক্রীড়া সম্পাদক নাহিদুল ইসলাম পারভেজ, সহ-প্রতিবন্ধী সম্পাদক এস.এ.এন. রাহি, যুবনেতৃবৃন্দদের মধ্য থেকে হাফিজ রফিকুল ইসলাম, সাংবাদিক ফুজায়েল আহমদ, মোঃ ইমন আহমেদ, মোঃ বদরুদ্দোজা জুলফিকার, উত্তম পাল রকি, সানোয়ার আহমদ, লিটন আহমদ, মফিজ মিয়া, মারজান আহমদ, রাসেল আহমদ, মারুফ আহমদ, ওহিদ আহমদ, মাহীনুল ইসলাম মাহীন, মাসুক মিয়া, আমান আহমদ, শাফি আহমদ, বাবুল মিয়া, নাদেল হোসেন জনি ও রফি মিয়া।
সমাবেশে স্থানীয় জনসাধারণের মধ্য থেকে শতাধিক সচেতন নাগরিকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

 

ফেসবুকে সিলেটের দিনকাল