৬৫লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ চেয়ে সিসিককে নোটিশ – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

৬৫লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ চেয়ে সিসিককে নোটিশ

প্রকাশিত: ৯:৪৩ পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৯, ২০১৬

৬৫লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ চেয়ে সিসিককে নোটিশ

sssস্টাফ রিপোর্টার : অবেশষে সিসিকর কোরবানীর পশুর হাটের ইজারাদার ৬৫লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ দাবি করে লিগ্যাল নোটিশ জারি করেছেন। ৩০দিনের মধ্যে দাবিকৃত টাকা পরিশোধ না করলে উপযুক্ত আদালতের মাধ্যমে তা আদায়ের ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে নোটিশে উল্লেখ করেছেন ইজারাদারের পক্ষে জজ কোর্ট সিলেটের আইনজীবী শশাংকর শেখর পাল। ১৮ সেপ্টেম্বর এই নোটিশ জারি করা হয়।
সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মেয়রের পক্ষে প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এনামুল হাবীব বরাবরে লিগ্যাল নোটিশ প্রদান করা হয়েছে। সিটি কর্পোরেশনের মাছিমপুর কয়েদী মাঠের কোরবানীর পশুর হাটের ইজারাদার সিরাজুল ইসলাম শামীমের পক্ষে সিলেট জজ কোর্টের ১নং বার হলের আইনজীবী শশাংক শেখর পাল এই লিগ্যাল নোটিশটি প্রদান করেন। ১৮ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশ ডাক বিভাগের মাধ্যমে রেজিষ্ট্রিকৃত এই লিগ্যাল নোটিশ প্রেরণ করা হয়। এতে উল্লেখ করা হয় নগরীর ছড়ারপার ৬০-সুগন্ধা এলাকার মৃত ইলিয়াস মিয়ার ছেলে সিরাজুল ইসলাম শামীম ০১ সেপ্টেম্বর সর্বোচ্চ দরদাতা হিসেবে মাছিমপুর কয়েদী হাওড় সংলগ্ন মাঠে অস্থায়ী পশুর হাট ২৬ লাখ ৩২ হাজার টাকায় ইজারা লাভ করেন। সে অনুযায়ী ০৬ সেপ্টেম্বর সিসিকর নির্বাহী প্রকৌশলী আলী আকবর ইজারাদারকে দখল বুঝিয়ে দিতে এসে অবৈধ দখলদারদের বাধার মুখে ব্যর্থ হয়ে দখল না বুঝিয়েই ফিরে আসেন। ০৭ সেপ্টেম্বর পশুর হাটের দখল বুঝে না পেয়ে ইজারাদার সিরাজুল ইসলাম শামীম সিসিকর প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবরে ৪৫ লাখ টাকার ক্ষতিপূরণ দাবি করে একটি আবেদন করেন। আবেদনের প্রেক্ষিতে প্রধান প্রকৌশলী নূর আজিজ মৌখিকভাবে ইজারাদারকে আশ্বাস দেন ০৮ সেপ্টেম্বর ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে সীমানা নির্ধারণ করে ইজারাদারকে হাট সমজিয়ে দিবেন। সে অনুযায়ী ০৮ সেপ্টেম্বর দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে একজন ম্যাজিষ্ট্রেট, সিসিকর প্রধান প্রকৌশলী, নির্বাহী প্রকৌশলী ও বাজার শাখার কর্মকর্তাসহ পুলিশ র্ফোস নিয়ে অবৈধ বাজার উচ্ছেদের জন্য আসেন।
এসময় জনৈক মামা খন্দকারের অবৈধ বাজারের রাস্তা ভ্রাম্যমাণ আদালতের নিদের্শে বন্ধ করে দেওয়া হয়। প্রস্তাবিত হাটের সামনের দিকে এসে জনৈক বাবলু আহমদের অবৈধ বাজারে উচ্ছেদ করতে এসে ব্যর্থ হয়ে ফিরে যান। তারপর ভ্রাম্যমাণ আদালত ২৪ ঘন্টার মধ্যে অবৈধ পশুর হাট উচ্ছেদ করে প্রকৃত ইজারাদারকে সমঝিয়ে দেওয়ার আশ্বাস দেন প্রধান প্রকৌশলী নূর আজিজ। কিন্তু উক্ত আদালত চলে যাওয়ার পরপরই বহাল তবিয়তে রয়ে যায় অবৈধ দখলদাররা। ০৮ সেপ্টেম্বর রাত ১১টার দিকে গরু সহ ট্রাক ইজারাদারের হাটের সামনে নামাতে গেলে অবৈধ হাটের লোকজন দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে হামলা করে। এসময় ইজারাদারের ২০লাখ টাকার ক্ষতি সাধিত হয়। এডভোকেট শশাংক শেখর পাল আরো উল্লেখ করেন তার মোয়াক্কেল একজন প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী অপরদিকে প্রধান প্রকৌশলী নূর আজিজ ২৪ ঘন্টার মধ্যে হাট সমঝিয়ে দেওয়ার প্রতিশ্র“তি দেওয়ার পরও তিনি ব্যর্থ হন। এবং সিসিক কোন লোকজন এসময়ের ভিতরে পশুর হাটে আসেননি। নোটিশদাতা আইনজীবী আরো বলেন, তার মোয়াক্কেল সিরাজুল ইসলাম শামীম সি.সি. এক্টের মাধ্যমে ব্যবসা করেন। ব্যাংক থেকে ঋণ ও বন্ধু-বান্ধবদের কাছ থেকে ধারকর্য করে গরুর হাটের ইজারার নেওয়ার জন্য বিনিয়োগ করেছিলেন কিন্তুু সিসিক কর্তৃপক্ষ অবৈধ দখলদারের প্রতিরোধের মুখে ইজারাদারকে পশুর হাট বুঝিয়ে দিতে ব্যর্থ হওয়ায় তার মোয়াক্কেল ৬৫ লাখ টাকার ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছেন। উপরোক্ত ক্ষতিপূরণের টাকা প্রদানের জন্য ০৯ সেপ্টেম্বর একটি দরখাস্ত দিয়েছিলেন ইজারাদার। কিন্তুু অদ্যাবধি ক্ষতিগ্রস্থ ইজারাদারের ক্ষতিপূরণ প্রদানে কোন উদ্যোগে গ্রহণ করছেন না। কারণ সিসিক কর্তৃপক্ষ অবৈধ দখলদার উচ্ছেদে ব্যর্থ হওয়ায় ৬৫ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ অধিকারী হয়েছেন। অতএব আমার মোয়াক্কেলের ৬৫ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ নোটিশ প্রাপ্তির ৩০দিনের মধ্যে সমঝিয়ে দিতে অনুরোধ করা হচ্ছে। অন্যথায় মোয়াক্কেলের দাবিকৃত ৬৫লাখ টাকা পাওয়ার জন্য উপযুক্ত আদালতে মামলা দায়ের করা হবে।
এব্যাপারে সিলেট সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এনামুল হাবীব সাংবাদিকদের জানান, ডাক ফাইলে দেখবো নোটিশ এসেছে কি না। এধরণের একটি নোটিশ আসছে বলে জানতে পেরেছি।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

ফেসবুকে সিলেটের দিনকাল