৬ ইতালীয় ও ৭ জাপানি নাগরিক নিখোঁজ – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

৬ ইতালীয় ও ৭ জাপানি নাগরিক নিখোঁজ

প্রকাশিত: ৮:৫৪ পূর্বাহ্ণ, জুলাই ২, ২০১৬

৬ ইতালীয় ও ৭ জাপানি নাগরিক নিখোঁজ

file৬ ইতালীয়

নিখোঁজ ছয়জনই স্টুডিও টেক্স লিমিটেড নামে একটি প্রতিষ্ঠানে কাজ করেন। ওই প্রতিষ্ঠানের প্রশাসনিক ব্যবস্থাপক ফারুক আলম খতিব আজ শনিবার সকাল সোয়া ১০টায় ঘটনাস্থলে এই ছয়জনের নিখোঁজের কথা জানান। ফারুক আলম বলেন, তাঁদের প্রতিষ্ঠানে কর্মরত ওই ছয় ইতালীয় নাগরিক গতকাল শুক্রবার রাতে ওই রেস্তোরাঁয় খেতে আসেন। তাঁরা যে দুটি গাড়িতে করে রেস্তোরাঁয় আসেন সেই দুই গাড়ির চালক শরিক ও ভিনছং ফারুক আলমকে জানিয়েছেন, সেখানে গোলাগুলি শুরু হলে তাঁরা (চালকেরা) সেখান থেকে পালিয়ে আসেন। চালকেরা ইতালীয় নাগরিকদের ব্যাপারে আর কিছু জানাতে পারেনি।
ফারুক প্রথম আলোকে বলেন, রাত থেকে ছয় ইতালীয় নাগরিকদের সঙ্গে তাঁরা আর যোগাযোগ স্থাপন করতে পারেননি।

৭ জাপানি

রাজধানীর গুলশানে হলি আর্টিজান রেস্টুরেন্টে সন্ত্রাসী হামলার ঘটনায় সাত জাপানি নাগরিক এখনো নিখোঁজ রয়েছেন। ঘটনাস্থল থেকে আহত অবস্থায় পালিয়ে আসতে সক্ষম হয়েছেন জাপানের এক নাগরিক। তাকে হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। ঘটনার ব্যাপারে জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে টেলিফোনে কথা বলেছেন। শেখ হাসিনা তাকে জানিয়েছেন, মোট ১৩ জনকে জীবিত উদ্ধার করা হয়েছে। এর মধ্যে তিনজন বিদেশী নাগরিক রয়েছেন। আর্টিজান রেস্টুরেন্টে সন্ত্রাসী হামলার ঘটনার শিকার আট জাপানির সবাই জাপান আন্তর্জাতিক সহযোগিতা সংস্থার (জাইকা) নির্মাণ প্রকল্পে সম্পৃক্ত ছিলেন। তারা বেসরকারি একটি ফার্মে কর্মরত ছিলেন। জাপান টাইমস এই খবর দিয়ে জানিয়েছে, প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে টোকিওতে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে বলেছেন, জাপানি নাগরিকদের জীবন রক্ষাকে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দেয়ার জন্য প্রশাসনকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এর আগে সিনজো আবে জাপানের হোক্কাইডোতে পূর্বপরিকল্পিত নির্বাচনী প্রচারাভিযান বাতিল করে বাংলাদেশ পরিস্থিতি সম্পর্কে তথ্য সংগ্রহের জন্য তার কর্মকর্তাদের নির্দেশ দেন। এদিকে, দুপুরে সেনানিবাসে আয়োজিত প্রেস ব্রিফিংয়ে আইএসপিআর জানিয়েছে, উদ্ধারকৃত ১৩ জনের মধ্যে একজন জাপান এবং দু’জন শ্রীলঙ্কার নাগরিক রয়েছেন। এছাড়া ঘটনাস্থল থেকে ২০টি মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে, যাদেরকে গতরাতেই ধারালো অস্ত্র দিয়ে হত্যা করা হয়েছিল। আইএসপিআরের ওই প্রেস ব্রিফ্রিংয়ে বলা হয়, অভিযানে ছয় সন্ত্রাসী নিহত হয়েছে, একজন সন্দেহভাজন সন্ত্রাসীকে আটক করা হয়েছে।