সুশান্তকে হত্যা করা হয়েছে – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

সুশান্তকে হত্যা করা হয়েছে

প্রকাশিত: ২:১৭ পূর্বাহ্ণ, জুন ২১, ২০২০

সুশান্তকে হত্যা করা হয়েছে

 

বিনোদন প্রতিবেদক :: সুশান্ত সিং রাজপুতকে হরিয়ে শোকে স্তব্ধ তার ভক্তরা। এখন চলছে সুশান্তের মৃত্যু নিয়ে নানা ধরনের বিশ্লেষণ। ফেসবুক, টুইটার সব মাধ্যমেই যেনো সুশান্তের মৃত্যু নিয়ে চর্চা। শেষ কথা হচ্ছে সুশান্ত যে আত্মহত্যা করেছেন তার পেছনে রয়েছে নেপটিজমের মতো কারণ। এ ইন্ডাস্ট্রিতে কেবল ‌‌‘স্টার কিডসরাই’ সকল ধরনের সুযোগ সুবিধা পেয়ে থাকেন। সুশান্তরা প্রতিভা নিয়ে এলেও কিছু করতে পারেননা। অবশেষে ব্যর্থতা নিয়ে বিদায় হোন। কেউ কেউ সুশান্তের মতো নেন চির বিদায়!

সুশান্ত সিংয়ের কিসের অভাব ছিলো? অভিনয়, ফিটনেস, লুকিং সব কিছুতেই বলিউডের সুপারস্টারদের চেয়ে কোন অংশে কম নেই। ছোট্ট ক্যারিয়ার। অথচ এই ক্যারিয়ারে যে কয়টিতে কাজের সুযোগ পেয়েছে সব কটিতেই প্রশংসা পাওয়ার মতোই অভিনয় করেছেন। পেয়েছেনও প্রশংসা। সেটা কেবল মুখে মুখে। আনুষ্ঠানিক কোন স্বীকৃতি মিলেনি।

কাই পো চে, ধোনি, কেদারনাথ, ছিছোড়ের মতো ছবি  সুশান্তের ঝুলিতে। ছবিগুলো দেখছেন অথচ তার অভিনয়ে মুগ্ধ হোননি এমন দর্শক পাওয়া যাবেনা। অথচ ফিল্ম ফেয়ার মতো আয়োজনে স্বীকৃতি মিলেনা তার। মিলে স্টার কিডদের।

 

 

তাই সুশান্তকে যে বলিউড খুন করেছে সেটা বুক ফুলিয়ে বলে দিয়েছেন কঙ্গনা। কোন গড ফাদারকে ভয় না পেয়ে এই অভিনেত্রী বলেন, ”যে ছেলে স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের ইঞ্জিনিয়ারিং স্কলারশিপ ছেড়ে অভিনয়কে জড়িয়ে ধরেছিল, তাকে আপনারা বাঁচতে দিলেন না। ‘কাই পো চে’, ‘ধোনি’, ‘কেদারনাথ’, ‘ছিছোড়ে’র মতো ছবি করেও সে কোনো স্বীকৃতি পায়নি?”

কঙ্গনার প্রশ্নের গভীরতা মাপলে কেনো সুশান্তর মৃত্যু আত্মহত্যা নয় খুন সেটা অনায়াসেই বুঝতে পারবেন সবাই।  মৃত্যুর পরও কাপুর খানদানের কারিনা কাপুর উপহাস করতে ছাড়লেন না সুশান্তকে। তার মৃত্যু নিয়ে সারা ভারত যখন ব্যথিত, তখনই সৎ মেয়ে সারা আলি খানকে বেবোর সতর্কবাণী  আবার স্মরণ করিয়ে দিয়ে বলেন, এ জন্যই বলেছি, প্রথম নায়কের সঙ্গে কখনও প্রেম করো না।

বলিউডে সারা আলি খানের প্রথম ছবি ‘কেদারনাথ’। ছবিতে তার বিপরীতে ছিলেন সুশান্ত সিংহ রাজপুত। দু’জনের কেমিস্ট্রি যেমন ক্লিক করেছিল, তেমনই ভালো ব্যবসাও করেছিল ছবিটি।

অথচ এই সুশান্তকে একাই লড়ে যেতে হয়েছে বলিউডে। কোন গড ফাদারের সাহায্য ছাড়াই।  মৃত্যুর পুর জানা গেছে ‘ছিছোড়ে’র পর সুশান্তকে সাতটি ছবি থেকে বাদ দেওয়া হয়। রাজনীতিবিদ সঞ্জয় নিরুপম এ তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। একাধিক পরিচালক, প্রযোজক, অভিনয়শিল্পী ও সমালোচক ‘ছিছোড়ে’কে বলেছেন বলিউডের সর্বকালের সেরা সিনেমাগুলোর একটি।  অন্যদিকে ছবিটির সাফল্যে সুশান্তের ভাগ্য না আরও বন্ধই হয়ে যায়!

সুশান্তের বাবাও জানান প্রায় ছয় মাস ধরে সুশান্ত  ভালো ছবি না পাওয়া ও পেয়েও হাতছাড়া হয়ে যাওয়ায় হতাশার কথা বলেছিলেন। অন্তত তিনবার বাবাকে সুশান্ত ক্যারিয়ার নিয়ে হতাশার কথাও বলেছেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •